pomegranate juice
বেদানার রস।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: পুষ্টিগুণের দিক থেকে বেদানা অন্য অনেক ফলের চেয়ে এগিয়ে৷ নিয়মিত বেদানা খেলে ডাক্তার আর ওষুধের পেছনে আপনার যে সময় ও টাকা নষ্ট হচ্ছে তার অনেকটাই কিন্তু বেঁচে যাবে। বেদানার অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিটিউমার গুণাবলি আমাদের শরীর ভিতর থেকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে সাহায্য করে৷ এর মধ্যে প্রচুর ভিটামিন এ, সি, ই ও ফলিক অ্যাসিড আছে, সে কারণেই গর্ভবতী মহিলাদেরও বেদানা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়৷ গ্রিন টি বা রেড ওয়াইনে যতটা অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট আছে, তার প্রায় তিন গুণ মেলে বেদানায়৷ স্বাস্থ্যরক্ষায় বেদানার কার্যকারিতা তাই অপরিসীম।

বেদানার রসের উপকারিতা

স্ট্রোকের আশঙ্কা কমায়

একাধিক গবেষণার পর চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা একটা বিষয়ে নিশ্চিত হয়েছেন যে, আজকের ভয়ংকর পরিস্থিতিতে শরীর বাঁচাতে বেদানার রসের কোনো বিকল্প হয় না। রোজকার ডায়েটে এই ফলটিকে রাখলে সারা শরীরে রক্তের প্রবাহ মারাত্মক ভাবে বৃদ্ধি পায়। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই হার্টের কর্মক্ষমতা বাড়তে থাকে। সেই সঙ্গে কমে হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের মতো মারণরোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও।

ক্যান্সার প্রতিরোধে

অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টে সমৃদ্ধ হওয়ায় বেদানার রস ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সক্ষম। পুরুষদের ক্ষেত্রে বয়স হয়ে গেলে প্রস্টেট ক্যান্সারের সংক্রমণের আশঙ্কা থেকে যায়। পুরুষদের ক্ষেত্রে পিএসএ (PSA) তথা প্রস্টেট স্পেসিফিক অ্যান্টিজেন অতিরিক্ত মাত্রায় বেড়ে গেলে প্রস্টেট ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। নিয়মিত বা প্রতি দিন বেদানা খেলে এই পিএসএ-র মাত্রা বাড়তে পারে না। ফলত ক্যান্সার সংক্রমণের ভয় কমে যায়।

স্মৃতিশক্তি বাড়াতে

আলঝাইমারের সমস্যা থাকলে প্রতি দিন এক গ্লাস করে বেদানার রস পান করুন। এর সঙ্গে স্মৃতিশক্তিকে উন্নত করতে সাহায্য করে বেদানার রস।

হজমক্ষমতা বাড়াতে

আমাদের হজমক্ষমতা ভালো রাখা আমাদের শরীর সুস্থ রাখার জন্য অত্যন্ত জরুরি। অতিরিক্ত জাঙ্ক ফুড খাওয়া বা সঠিক পরিমাণে সময়মতো না খাওয়াদাওয়া করার ফলে আমাদের হজমশক্তি খারাপ হয়ে যায়। প্রতি দিন একটি করে বেদনা আমাদের শরীরে প্রয়োজনীয় ফাইবারের অনেকটাই জোগান দেয়, যা আমাদের হজমক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে বা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে।

আর্থারাইটিস নিরাময়ে

যাঁরা রিউম্যাটয়েড আর্থারাইটিস বা অস্টিওআর্থারাইটিসের মতো সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদের ইমিউনিটি বাড়ানোটা খুব প্রয়োজন৷ সে ক্ষেত্রেও সাহায্য করতে পারে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ বেদানা৷

শরীরে যখন ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমতে শুরু করে তখন এমন কিছু ক্ষতিকর এনজাইমের ক্ষরণ বেড়ে যায় যে জয়েন্টের সচলতা কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে হাড় এত মাত্রায় দুর্বল হয়ে পরে যে অস্টিওআর্থ্রাইটিসের মতো রোগ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। এ ক্ষেত্রেও কিন্তু বেদানা নানা ভাবে কাজে আসে।

অ্যানিমিয়া দূর করতে

প্রতি বছর লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে অ্যানিমিয়ার প্রকোপ। এই পরিস্থিতিতে বেদানা খাওয়ারও খুব উপকারী। বেদানায় রয়েছে প্রচুর মাত্রায় আয়রন, যা লোহিত রক্তকণিকার উৎপাদন বাড়িয়ে দিয়ে রক্তাল্পতার মতো সমস্যা দূর করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। এই কারণেই তো ছোটো  থেকেই মেয়েদের নিয়মিত বেদানা খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন চিকিৎসকেরা।

দাঁত-মাড়ির ইনফেকশন থেকে রক্ষা  

মুখে দুর্গন্ধ বা মাড়ি ও দাঁতের গোড়া দিয়ে রক্তক্ষরণ সাধারণত ব্যাক্টেরিয়া বা ফাঙ্গাল ইনফেকশনের কারণে হয়ে থাকে। বেদানায় আন্টিব্যাক্টেরিয়া ও আন্টিফাংগাল উপাদান থাকে যা আমাদের দাঁত ও মাড়ি সংক্রান্ত যে কোনো রকম ইনফেকশন থেকে রক্ষা করে বা সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। আমাদের ওরাল হেলথ ভালো রাখার জন্য প্রতি দিন বেদানার রস খাওয়া অত্যন্ত জরুরি।

রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে

বেদানায় বর্তমান বিভিন্ন অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ও বায়োঅ্যাক্টিভ পলিফেলনস এ ছাড়া পুনিসিস অ্যাসিড আমাদের দেহে রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। বেদানার রস খাওয়া শুরু করলে ব্লাড ভেসেলে সৃষ্টি হওয়া প্রদাহ কমতে শুরু করে। সেই সঙ্গে সারা শরীরে রক্তের প্রবাহ এতটা বেড়ে যায় যে ব্লাডপ্রেসার নিয়ন্ত্রণে চলে আসতে সময় লাগে না।

আরও পড়তে পারেন

অল্পতেই রেগে যাওয়া থেকে মুক্তির উপায় কিছু অনুশীলন, বলছেন বিশেষজ্ঞরা

সারা দিন ল্যাপটপ, মোবাইল ঘেঁটে চোখে ব্যথা? কী পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা

কিডনিতে পাথর: প্রচুর জল খান, খাদ্যের দিকে নজর দিন, বলছেন বিশেষজ্ঞরা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন