ওয়েবডেস্ক :  জোয়ানের মধ্যে আছে আয়ুর্বেদের গুণ। তাই শুধু হজমে সাহায্য করা নয়, এ ছাড়াও জোয়ান সমাধান করে আরও অনেক সমস্যার।

পাকা চুলের সমস্যায় –

চুল পেকে যাচ্ছে? এটা আজকাল আবাল-বৃদ্ধ-বনিতার সমস্যা। ফলে চুল ঠিক রাখতে লাগাতে হয় রং। কিন্তু রঙের বদলে ভালো সমাধান হল জোয়ান। চুল পাকা আটকাতে জোয়ান দারুণ কাজের। তাঁর জন্য একটা পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। তার জন্য কারি পাতা, শুকনো আঙুর, চিনি আর জোয়ান নিয়ে এক কাপ জলে দিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। এই ভাবে তৈরি পেস্টটা প্রতিদিন এক গ্লাস করে খেতে হবে।

এ বার দেখে নেওয়া যেতে পারে বাংলায় সুলভ জোয়ানের আরও কিছু চমৎকারী গুণাগুণ।

আরও পড়ুন : জেনে নিন, নাক-কান-দাঁতের সমস্যায় কী ভাবে কাজ করে জোয়ান?

শ্বাসের সমস্যা, টান, ব্রঙ্কাইটিস –

এই সব কিছু থেকে মুক্তি পেতে একটাই ওষুধ ব্যবহার করা যেতে পারে। ওষুধের নাম জোয়ান। শ্বাসের সমস্যা, টান, ব্রঙ্কাইটিস থেকে মুক্তির জন্য জোয়ানের পেস্টটা দিনে দু’ বার দু’ চামচ করে খেতে হবে। অথবা ঘুমের সময় বালিশের তলায় জোয়ান রেখে দিলেও তার গন্ধ নাকে গিয়ে কাজ হবে।

ত্বকের কাটাছেড়ার জন্য –

ত্বকের কাটাছেড়া বা ইনফেকশনের ক্ষেত্রেও দারুণ এই জোয়ান। জোয়ান ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি রোধ করে। ফলে কাটা জায়গা কোনোভাবেই ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে বিষিয়ে যায় না।

মাইগ্রেন পেন – মাইগ্রেন পেন থেকে মুক্তির জন্য একটা রুমালে বা পাতলা কাপড়ে বেশ কিছুটা জোয়ান গুঁড়ো করে নিয়ে বার বার শুকতে হবে।

আর্থাইটিসের ব্যথায় –

জোয়ানের দু’টি গুণ আর্থাইটিসের ব্যথা থেকে দেয়, ফোলা ভাবে কমায়। জোয়ান গুঁড়ো করে পেস্ট তৈরি করে তা ব্যথার জায়গায় লাগিয়ে হাল্কা হাতে মালিশ করে, শুকিয়ে নিন।

হজমশক্তি বাড়াতে –

আজকালকার ব্যস্ততম কখন কোথায় কী খাওয়া হয় তা কোনো ঠিকানা থাকে না। তাই নিয়ম মেনে খাওয়া সম্ভব হয় না অনেকেরই। বেশির ভাগ সময়ই মশলাদার, তেল ঝালের খাব্র খেতে বাধ্য হতে হয়। আরও এই সব খাবার হজম করা বেশ কঠিন হয়ে যায়। শুরু হয় বদহজম আর গ্যাসের সমস্যা। কিন্তু জোয়ান জল পেটের মধ্যে গিয়ে পাচক রসকে উপযুক্ত পরিমাণে নিঃসৃত হতে সাহায্য করে। ফলে বাড়ে হজম ক্ষমতা। গোটা প্রক্রিয়াটা চলে সুস্থ ভাবে। গ্যাস আর বদ হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি মেলে।

গর্ভবতীদের জন্য আদর্শ –

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য উপকারী জোয়ান জল। ক্ষুধামান্দ্য দূর করতে, পাচন ক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে ও পেট পরিষ্কার করতে মহিলারা এই সময় জোয়ান জল খেয়ে থাকেন। তা ছাড়া বহুদিনের প্রচলিত ধারণা থেকেই গর্ভাবস্থার পরও নানা সমস্যার সমাধানে এই পথ্যের ব্যবহার করে থাকেন অনেক মহিলাই। যদিও তার কোনো বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here