Dr. G Venugopal, Suparna Jana and G Vijay Kumar
(বাঁ দিক থেকে) ডাঃ জি বেণুগোপাল, সুপর্ণা জানা এবং চিফ অপারেটিং অফিসার জি বিজয় কুমার।

ওয়েবডেস্ক: দেশে, বিশেষ করে, পশ্চিমবঙ্গে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এই রোগের চিকিৎসা হল অস্ত্রোপচার। সেই অস্ত্রোপচারে নতুন দিগন্ত এনেছে হায়দরাবাদের যশোদা হাসপাতাল। ফলে অস্ত্রোপচার করে সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি বেড়ে গিয়েছে বলে হাসপাতালের তরফে এক প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়েছে, প্রতি বছর ভারতে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৪০ থেকে ৫০ হাজার করে বাড়ছে। বর্তমানে দেশে ওই রোগে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় এক কোটি। পশ্চিমবঙ্গে ক্যানসার রোগীর সংখ্যা খুবই বেশি। এক সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, ২০০৭ সালে রাজ্যে মোট ক্যানসার রোগীর ১২.৫% ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত রোগী। পরবর্তী তিন বছরে এই হার পৌঁছেছে ৩৫.৫%-এ।

এই রোগের চিকিৎসা অস্ত্রোপচার। সেই অস্ত্রোপচার হতে হবে সঠিক এবং নিরাপদ। দেখতে হবে যাতে বারবার অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন না নয়। এই মস্তিষ্ক অস্ত্রোপচারেই বিপ্লব এনেছে হায়দরাবাদের যশোদা হাসপাতাল। ওই হাসপাতালে বসানো হয়েছে ‘থ্রিটি ইন্ট্রাঅপারেটিভ এমআরআই’ (আইএমআরআই)। ভারতে প্রথম কোনো হাসপাতালে এই ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এর ফলে যশোদা হাসপাতালে ব্রেন সার্জারি এখন অভূতপূর্ব ভাবে নিরাপদ এবং সঠিক। এই নতুন আইএমআরআই পদ্ধতি অবলম্বন করে গত কয়েক মাসে যশোদা গ্রুপ অফ হসপিটালস-এ ২৫০-এরও বেশি রোগীর জটিল অস্ত্রোপচার করা হয়েছে বলে জানান হাসপাতালের চিফ অপারেটিং অফিসার জি বিজয় কুমার।

এমনই একজন রোগী হলেন ৪৪ বছরের সুপর্ণা জানা। তিনি কলকাতার বাসিন্দা। তাঁর ডান দিকের চোখের প্রপটোসিস-এর জন্য  মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়। তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, “আমার চোখ এখন স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে।”

ইন্ট্রাঅপারেটিভ এমআরআই সম্পর্কে হাসপাতালের সিনিয়র নিউরোসার্জন ডাঃ জি বেণুগোপাল বলেন, “অস্ত্রোপচারের সময়ে ব্রেন প্রায়ই নড়ে যায়। যার ফলে অস্ত্রোপচারের আগে ব্রেনের যে ছবি তোলা হয় তা সঠিক থাকে না। সঠিক সময়ে ব্রেনের সঠিক ছবি ধরা পড়ে ইন্ট্রাঅপারেটিভ এমআরআই-তে। সঠিক ভাবে ব্রেন সার্জারিতে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।”

ছবি হাসপাতাল সূত্রে পাওয়া।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here