যৌনতাকে জানতে তরুণরা সব থেকে বেশি নির্ভরশীল পর্ন ছবির উপর: সমীক্ষা

0

খবর অনলাইন ডেস্ক: তরুণ সম্প্রদায়ের যৌন সম্পর্ককে প্রভাবিত করতে পারে পর্ন ছবি। কারণ, একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, অপেক্ষাকৃত কমবয়সি প্রাপ্তবয়স্করা যৌনতা সম্পর্কে জানতে পর্নকেই সব থেকে বেশি সহায়ক উৎস বলে মনে করেন।

বোস্টনের বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এমিলি রথম্যান বলেছেন, “দুর্ভাগ্যের বিষয়টা হল এই যে, পর্ন আসলে কী, তা সঠিক ভাবে বোঝেন না তরুণরা। আসলে অনলাইন পর্নগ্রাফি বিনোদনের জন্য এবং নির্মাতাদের কাছে অর্থোপার্জনের জন্য একটা মাধ্যম মাত্র”।

তিনি আরও স্পষ্ট করে বলেন, ব্যক্তিগত জীবনে যৌন মিলনের সময় কী করা দরকার, সে সম্পর্কে পর্ন ছবি থেকে কোনো শেখার মতো উপাদান নেই।

‘আর্কাইভস অব সেক্সুয়াল বিহেভিয়ার’ জার্নালে প্রকাশিত এই সমীক্ষাটি ৬৮১ জন তরুণ এবং কিশোরের উপর চালানো হয়েছিল। যাঁদের মধ্যে ৩৭৫ জন তরুণের বয়স ১৮-২৪ বছরের মধ্যে এবং ৩২৪ জন কিশোরের বয়স ১৪-১৭ বছরের ভিতর। কোথা থেকে তাঁরা যৌনতা সম্পর্কে জেনেছেন, এমন প্রশ্নেই তাঁদের কাছ থেকে পাওয়া প্রতিক্রিয়া বিশ্লেষণ করেছেন সমীক্ষকরা।

১৪-১৭ বছর বয়সিরা যৌনতা সম্পর্কে যতটুকু জানে, সে সবের উৎস তাঁদের অভিভাবক এবং বন্ধুরা। তাদের মধ্যে মাত্র ৮ শতাংশ কিশোর জানিয়েছে, পর্ন থেকে তারা যৌনতা সম্পর্কে জেনেছে।

আরও পড়তে পারেন: যৌনগন্ধী স্বপ্ন দেখেন ? মনস্তাত্ত্বিকরা কি বলছেন

কিন্তু তরুণদের বেশির ভাগেরই যৌনতা সম্পর্কে শেখার উৎস হিসেবে উঠে এসেছে পর্ন ছবি। জনস্বাস্থ্যের দৃষ্টিকোণ থেকে রথম্যান বলেছেন, এটা বেশ উদ্বেগজনক। কারণ তরুণ বয়সের বেশিরভাগই যৌন সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়ে তথ্যের উৎস হিসাবে পর্নের উপর নির্ভরশীল।

তাঁর মতে, তরুণদের কীভাবে পরিপূর্ণ, নিরাপদ, সম্মতিযুক্ত যৌনতা সম্পর্কে শিক্ষা দিতে বিস্তৃত যৌনশিক্ষার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। অন্তত গবেষণা থেকে তেমন উপসংহারই উঠে এসেছে।

আরও পড়তে পারেন: শোয়ার ধরনও প্রভাবিত করে যৌনজীবনকে, গবেষণায় উঠে এল চমকে দেওয়া তথ্য

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন