binoy badal dinesh
ছবি: ইন্টারেনট থেকে

ওয়েবডেস্ক: বেঙ্গল ভলান্টিয়ার্স বা বিভি দলের নাম এখন আর খুব একটা আলোচনায় উঠে আসে না। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের একটি গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়ের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে থাকা এই বিভি দল পাঠ্যপুস্তকের ক্ষুদ্র পরিসরেই আটকে পড়েছে। তবুও ভালো!

১৯২৮ সালে জাতীয় কংগ্রেসের কলকাতা অধিবেশনে সুভাষচন্দ্র বসুর নেতৃত্বে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গড়ে ওঠে। সেখান থেকেই সদস্য সংগ্রহ করে তৈরি হয় হেমচন্দ্র ঘোষের এই বিভি দল।  ওই বছরেই বিভি দলে যোগ দেন বিনয়কৃষ্ণ।

ঢাকায় মিডফোর্ড মেডিক্যাল স্কুলের ছাত্র বিনয়কৃষ্ণ বসুর সঙ্গে যোগাযোগ ছিল হেমচন্দ্র ঘোষের। সেই সূত্র ধরেই বিনয়কৃষ্ণ হেমচন্দ্রের গুপ্ত দল মুক্তি সংঘে যুক্ত হয়ে পড়েন। ওই সংঘের মুখপাত্র বেণু গ্রুপের সঙ্গেও তাঁর পরিচয় ছিল। 

বিভি দলে যোগ দিয়ে সংগঠনকে মজবুত করার যজ্ঞে সরাসরি অংশ নেন বিনয়কৃষ্ণ। তাঁর নেতৃত্বে ক্রমাগত শক্তিশালী হতে শুরু করে বিভি দল। ছাত্রাবস্থাতেই বিনয়কৃষ্ণ ঢাকার কুখ্যাত পুলিশ অফিসার লোম্যানকে হত্যা করেন। ওই ঘটনার পর তিনি আত্মগোপন করে থাকেন বেশ কিছু দিন। তার পরেই তাঁর উপর দায়িত্ব বর্তায় কারাধ্যক্ষ সিম্পসন এবং স্বরাষ্ট্রসচিব মার-কে হত্যা করার। 

দলনেতার নির্দেশ মতোই বিনয় তাঁর দুই সঙ্গী বাদল ও দীনেশকে নিয়ে রাইটার্স বিল্ডিং অভিযান করেন। সেখানে সিম্পসনকে হত্যা করে তাঁদের মিশন সম্পূর্ণ হয়। বাকি গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস (অলিন্দ) কম-বেশি সকলেরই জানা। কিন্তু বর্তমান প্রজন্মের কাছে যেন অজানা হয়ে উঠছে, বিভি দলের কার্যকলাপ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন