বাঙালিকে ধুতি পাঞ্জাবি পরতে হবে এমন কোনও কথা নেই। অনেকে পরেন পুজোয় বা উৎসবে। তবে সেটা কিছু অ্যাপিলিং ব্যাপার নয়। জিনস ভালো, খাদি ভালো, চপ্পল ভালো, বড়জোর ফ্যাব ইন্ডিয়া। আর চশমার ফ্যান্টাসি তো আছেই আমরা যারা নব্বই-তে বড় হয়েছি। চোখেই সব, বাঙালির বুদ্ধি ফেটিস। বাঙালি মানে মাছ-ভাত হতেই হবে সে রকম মানে নেই, মাখন, ডিমের পোচ হলেও হবে। তবে মনটা হতে হবে খাঁটি বাঙালির। ফুটবল, রাজনীতি, কবিতা, দেবব্রত বিশ্বাস, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা সব চাই। চাই মানিকের মতো গদ্য আর মৃদুলের মতো পদ্য। নীললোহিতের বিশ্বাস, আর শীর্ষেন্দুর আলো, অমিয়ভূষণ মজুমদারের আসল ম্যাজিক রিয়েলিজম। আর বাঙালির তো পায়ের তলায় সর্ষে যদি থাকে রেস্ত, সে আর কে না জানে? রবিবারে মাংস না-ও হতে পারে, কিন্তু লং প্লেয়িং-এ শাপমোচনের স্মৃতি ভালো, বেগম আখতারের জোছনা ভালো, এস ডি-র মাতাল মহুয়া ভালো। মানে ব্লাডি বাঙালিয়ানাটা চাই পুরোদস্তুর। আর মীরাক্কেল বাদ দিলে তো হবে না, হাসিতেই মিরাকেল… উপস্থাপনায় অরিজিনাল, নিজস্বীতে স্মার্ট। আমার বাঙালি। এগিয়ে থাকে, এগিয়ে রাখে দাদাগিরিতে…. আর চা ? নদীর পাড়ে সূর্যাস্তের আলোর রঙে চা-ও ভাল, কফি নয়।

সুঅঙ্গনা বসু

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here