ed miller

ওয়েবডেস্ক: এক দিকে তিনি ক্রিকেটভক্ত, অন্য দিকে তিনি ভ্রমণপিপাসু। তৃতীয়ত ক্যানসার নিয়ে সচতনতা প্রসারের ব্যাপারে তাঁর নিজের একটি চ্যারিটি সংস্থাও রয়েছে। এই তিনটে গুণকে মিশিয়েই তিন মাসে আগে বেরিয়ে পড়েছিলেন তিনি। তার পর ২১ দেশ ঘুরে অ্যাসেজের প্রথম দিন ব্রিসবেনে পৌঁছে গেলেন।

তিনি এড মিলার। মাস তিনেক আগে ইংল্যান্ড থেকে রওনা হয়ে বেলজিয়াম, লুক্সেমবুর্গ, জার্মানি, অস্ট্রিয়া, ইতালি, স্লোভেনিয়া, হাঙ্গারি, চেক রিপাবলিক, পোল্যান্ড, ইউক্রেন, রাশিয়া, মঙ্গোলিয়া, চিন, হংকং, ভিয়েতনাম, লাওস, কাম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ইন্দোনেশিয়া হয়ে অস্ট্রেলিয়া পৌছোন মিলার।

বৃহস্পতিবারই ব্রিসবেন পৌছে মাঠে চলে যান মিলান, ততক্ষণে টসে জিতে ব্যাটিং শুরু করে দিয়েছে তাঁর প্রিয় দল।

ভ্রমণের সঙ্গে ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসাই যে তাঁকে এই ভ্রমণে নামতে উদ্বুদ্ধ করেছে, সেই কথাই আইসিসিকে সাক্ষাৎকারে বলেছেন মিলার। তাঁর কথায়, “ক্রিকেট এবং ভ্রমণের প্রতি ভালোবাসার মিশ্রণেই এই সফরে নেমেছিলাম আমি।” গত জুলাইয়ে নিজের কর্মস্থান থেকে এক বছরের জন্য ছুটি নিয়ে নিয়েছিলেন মিলার। তার পরেই বহু দেশ ঘুরে অস্ট্রেলিয়া পৌঁছোনোর এই পরিকল্পনা আসে তাঁর মাথায়।

মিলারদের এই সফর আদৌ সহজ ছিল না। অদ্ভুত খাবার খাওয়ার সঙ্গে অদ্ভুত মানুষের সঙ্গে মেলামেশা, সবই ছিল এই সফরে। সেই সঙ্গে ছিল প্রকৃতির সঙ্গে যুদ্ধও।

অস্ট্রিয়ায় একটি ৫ ঘণ্টার ট্রেক শেষ করতে তাঁর সময়ে লেগেছিল পাক্কা একটা দিন। কারণ হঠাৎ তুমুল ঝড়বৃষ্টি। একটি নদী পেরোনোর কথা ছিল মিলারের। কিন্তু বৃষ্টি থামার পরে মিলার খেয়াল করেন নদীর ওপরে ব্রিজটি বেমালুম উধাও। কোনো উপায়ন্তর না দেখে হেঁটেই নদী পেরিয়ে যান তিনি।

ইন্দোনেশিয়ার বালি থেকে জাহাজে অস্ট্রেলিয়ার উত্তরের বন্দর ডারউইনে পৌঁছোন মিলার। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। এর পর ডারউইন থেকে সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার সড়কে পাড়ি দিয়ে বৃহস্পতিবারই ব্রিসবেনে পৌঁছে যান তিনি। তাঁর এই সফরে অনেক অপরিচিত ব্যক্তির থেকেই সাহায্য পেয়েছেন মিলার। অস্ট্রেলিয়া পৌঁছে এখন তাঁর আশা নিজের দলের অ্যাসেজ জয় দেখেই বাড়ি ফিরবেন তিনি।

এই সফর চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে বলে জানান মিলার। সেই সঙ্গে সাধারণ মানুষের প্রতি তাঁর আবেদন, “যদি মনে করেন আমার চ্যারিটি সংস্থাকে কিছু সাহায্য করা যায়, তা হলে আমার অনুদানের ওয়েবসাইটটি দেখুন এবং নিজের ইচ্ছেমতো কিছু অনুদান করুন।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here