barun-bhujel-death

কলকাতা ও নয়াদিল্লি: ফের উত্তাপ বাড়ল পাহাড়ে। পাহাড় থেকে কেন্দ্রীয় বাহিনী সরানোর ব্যাপারে কলকাতা হাইকোর্ট যে স্থগিতাদেশ দিয়েছিল, তার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হল কেন্দ্রীয় সরকার। তীব্র হল কেন্দ্র-রাজ্য দ্বন্দ্ব। সর্বোচ্চ আদালতে কেন্দ্রের আইনজীবী বলেন, বাহিনী কোথায় পাঠানো হবে সেই সিদ্ধান্ত নেয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। যে সময় বাহিনী পাঠানো হয়েছিল তার তুলনায় এখন দার্জিলিঙের পরিস্থিতির অনেক উন্নতি হয়েছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে অন্যত্র, বিশেষত যেসব রাজ্যে নির্বাচন রয়েছে সেখানে মোতায়েন করার প্রয়োজন রয়েছে। মামলার শুনানি হবে আগামী শুক্রবার।

বরুণ ভুজেল

অন্যদিকে পুলিশি হেফাজতে এক মোর্চা নেতার মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তাল হল কালিম্পং। হিলটপ টুরিস্ট লজে আগুন ধরানোর অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছিল কালিম্পং পুরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বরুণ ভুজেলকে। পুলিশি হেফাজতে থাকার সময় থেকেই তিনি প্যানক্রিয়াসের সমস্যায় ভুগছিলেন। চিকিৎসার জন্য তাঁকে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়। তারপর সেখান থেকে তাঁকে কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হয়। কলকাতার এসএসকেএম হাসপাতালে বুধবার সকালে মৃত্যু হয় বরুণের।

মোর্চা নেতার স্ত্রীর অভিযোগ, ‘‘পুলিশের গাফিলতি ওশিলিগুড়ি হাসপাতালের গাফিলতিতেই মৃত্যু হয়েছে বরুণ ভুজেলের।’’

কালিম্পঙে মোর্চা সমর্থকদের বিক্ষোভ

বরুণের মৃত্যুর খবর আসার পরই কার্যত বন্‌ধের চেহারা নেয় কালিম্পং। পথে বেরিয়ে পড়েন মোর্চার কর্মী-সমর্থকরা। প্রয়াত মোর্চা নেতার পরিবারের তরফে দাবি করা হয় পুলিশি হেফাজতে অত্যাচারের ফলেই মৃত্যু হয়েছে বরুণের। এক অডিও বার্তায় মোর্চা সুপ্রিমো বিমল গুরুং-এ একই দাবি করেন। মৃত্যুর প্রতিবাদে মোর্চা কর্মীদের আন্দোলনের ডাক দেন বিমল। ব্যবহার করতে বলেন সোশাল মিডিয়াকেও।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here