calcutta highcourt
কলকাতা হাইকোর্ট

কলকাতা: ডেঙ্গি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের রিপোর্টকে ‘ভুয়ো’ আখ্যা দিল কলকাতা হাইকোর্ট। এ ব্যাপারে রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে ভর্ৎসনার মুখে পড়তে হয়। ডেঙ্গিতে মৃত্যুর সাম্প্রতিকতম সংখ্যা দিয়ে অবিলম্বে নতুন রিপোর্ট পেশ করার জন্য এ দিন নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

ডেঙ্গি প্রতিরোধে রাজ্য সরকারের ভূমিকা সম্পর্কে জানতে চেয়ে হাইকোর্টে দায়ের  হয়েছিল একটি জনস্বার্থের মামলা। মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি রাকেশ তিওয়ারি এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চে ওই মামলার শুনানি ছিল। সেখানেই রাজ্যের পেশ করা রিপোর্ট নিয়ে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন বিচারপতি বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি ওই রিপোর্টকে ‘ভুয়ো’ আখ্যা দিয়ে বলেন, রিপোর্ট ধোঁয়াশায় ভরা। রিপোর্টে সাম্প্রতিকতম তথ্য নেই। এক একটা অনুচ্ছেদে পরস্পরবিরোধী তথ্য দেওয়া হয়েছে।

বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গিতে মৃত্যুর কোনো হিসেব কেন নেই তা সরকারি আইনজীবীর কাছে জানতে চান বিচারপতি। তাঁর প্রশ্ন, কী ভাবে শুধুমাত্র সরকারি হাসপাতালে মৃত্যুর সংখ্যাকেই সম্পূর্ণ তথ্য বলে দাবি করেন হেলথ্‌ ডিরেক্টর। এই মামলার পরবর্তী শুনানি বৃহস্পতিবার।

পথে ডাক্তাররা

doctors' protest marchএ দিকে বারাসত হাসপাতালের প্রবীণ চিকিৎসক ডাঃ অরুণাচল দত্ত চৌধুরীর সাসপেনশনের প্রতিবাদে এবং সেই নির্দেশ প্রত্যাহারের দাবিতে আজ পথে নামেন রাজ্যের ডাক্তাররা। এক মাত্র তৃণমূল কংগ্রেস প্রভাবিত ডাক্তার সংগঠনটি ছাড়া বাদ বাকি সব সংগঠনই মঙ্গলবারের প্রতিবাদ-বিক্ষোভে শামিল হন। ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টর্স ফোরামের নেতৃত্বে সংগঠিত ওই বিক্ষোভে ডাক্তাররা ছাড়াও সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ যোগ দেন।

ডাক্তারদের তরফ থেকে তাঁদের বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে স্বাস্থ্যভবনে ডেপুটেশন দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু স্বাস্থ্যভবনের এক কিলোমিটার আগে থেকেই তাঁদের গতি রোধ করা হয়। এবং কেউই ডেপুটেশন গ্রহণ করেননি বলে ডাক্তারদের তরফ থেকে অভিযোগ করা হয়। তাঁদের দাবির মধ্যে আছে অবিলম্বে ডাঃ অরুণাচল দত্ত চৌধুরীর সাসপেনশন প্রত্যাহার, ডেঙ্গু-সহ বিভিন্ন জীবাণুবাহিত রোগ নিয়ে ভণ্ডামি বন্ধ করা ও বিজ্ঞানসম্মত প্রতিষেধক ও সংশোধনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা, মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে মর্যাদা দেওয়া, স্বাস্থ্যকে মৌলিক অধিকার হিসাবে মেনে নেওয়া এবং কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বিরুদ্ধে হিংসা বন্ধ করা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here