tortured granddaughter and daughter in law

কলকাতা: পুত্রসন্তান না হওযায় পুত্রবধূকে মারধরের অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে৷ আরও অভিযোগ, ইট দিয়ে বড়ো নাতনির কপাল ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে। এর আগে তাকে বিষ খাইয়ে মারার চেষ্টাও করা হয় বলে অভিযোগ৷ শ্বশুর, শাশুড়ি ও দেওরের বিরুদ্ধে সোনারপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্তরা পলাতক।

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার সোনারপুর থানা এলাকার সুভাষগ্রাম ভবানীপুরের বটতলার বাসিন্দা সুমন দাস ও তার স্ত্রী সবিতা দাস৷ সুমন পেশায় গাড়িচালক৷ তাই বেশির ভাগ সময় তাঁকে বাড়ির বাইরে কাটাতে হয়৷ কোনো কোনো দিন আবার বাড়িতে ফিরতেও পারেন না তিনি৷ তাদের বড়ো মেয়ে এ বার উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে৷ ছোটো মেয়ের বয়স প্রায় তিন বছর৷ কোনো পুত্রসন্তান না হওযায় সবিতার উপর প্রায়ই অত্যাচার করা হত বলে অভিযোগ৷ শুধু তা-ই নয়, কাজের জন্য দাদার বাইরে থাকার সুযোগ নিয়ে বৌদিকে একাধিকবার কুপ্রস্তাব দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে দেওরের বিরুদ্ধে৷ তাতে সায় থাকত শ্বশুর ও শাশুড়ির৷ একাধিকবার অত্যাচারের বিষযটি সবিতাদেবী পুলিশকেও জানিয়েছেন৷ কয়েক বার আলাপআলোচনা করে মীমাংসাও করা হয়েছে৷ তবু অত্যাচার কমেনি বলে অভিযোগ৷

এ বার সেই অত্যাচার চরমে পৌঁছোলে আর চুপ থাকতে পারেননি সবিতাদেবী, অভিযোগ দায়ের করেন সোনারপুর থানায়। ঘটনার পর বাড়িতে তালা লাগিয়ে এলাকাছাড়া অভিযুক্ত শ্বশুর সমীরণ দাস, শাশুড়ি কল্পনা দাস ও দেওর সুজন দাস৷

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here