Connect with us

প্রচ্ছদ খবর

২১ ফেব্রুয়ারি কী করে পেল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি

pankaj chattapadhyay

পঙ্কজ চট্টোপাধ্যায়

ওঁরা রফিক-সালাম। এঁরাও রফিক-সালাম। ওঁরা প্রাণ দিয়েছিলেন মাতৃভাষার মর্যাদারক্ষায় আর এঁদের কৃতিত্ব সেই দিনটিকে আন্তর্জাতিক স্তরে স্মরণীয় করে রাখার জন্য। এঁরা কানাডার ভ্যানকুভার শহরের রফিকুল ইসলাম আর আবদুস সালাম।

মানুষ যাতে নিজেদের মাতৃভাষার গুরুত্ব বোঝে, মাতৃভাষা সম্পর্কে সচেতন হয়, তার সম্মানরক্ষায় সক্রিয় হয়, তার জন্য কাজ করে চলেছে ‘আ গ্রুপ অফ মাদার ল্যাঙ্গুয়েজ অফ দ্য ওয়ার্ল্ড’ তথা ‘বিশ্ব মাতৃভাষাপ্রেমী সংস্থা’। এদেরই উদ্যোগে ১৯৯৬ সালে রাষ্ট্রপুঞ্জের বার্সেলোনা অধিবেশনে ভাষার অধিকারকে ‘বিশ্বজনীন অধিকার’ হিসাবে ঘোষণা করা হয়। এই সংস্থারই অন্যতম সদস্য রফিকুল ইসলাম। মাতৃভাষার মর্যাদার দাবিতে ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে কী ঘটেছিল, কী ভাবে রফিক-সালাম-বরকতরা নিজেদের জীবন দিয়েছিলেন, তার ইতিহাস বিধৃত করে রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব কোফি আন্নানকে ১৯৯৮ সালের ৯ জানুয়ারি একটি প্রস্তাব পাঠান রফিকুল। ওই প্রস্তাবে ২১ ফেব্রুয়ারিকে ‘মাতৃভাষা দিবস’ হিসাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। প্রস্তাবটিতে পৃথিবীর সাতটি দেশের দশ জন ভাষাপ্রেমিকও সই করেন। এঁদের মধ্যে এক জন হলেন আবদুস সালাম। সেই সময়ে সাহিত্যিক হাসান ফিরদৌস রাষ্ট্রপুঞ্জের চিফ ইনফরমেশন সেক্রেটারি ছিলেন। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর নজরে আসে প্রস্তাবের আকারে ওই চিঠি। রাষ্ট্রপুঞ্জের অন্য কোনো সদস্যরাষ্ট্রের কাছ থেকে যাতে একই ধরনের প্রস্তাব আসে তার জন্য উদ্যোগী হতে হাসান ফিরদৌস ১৯৯৮ সালের ২০ জানুয়ারি ওই ভাষাপ্রেমিকদের অনুরোধ করেন। সেই সময় ‘বিশ্ব মাতৃভাষাপ্রেমী সংস্থা’ থেকে এক জন জার্মানভাষী, এক জন ইংরেজিভাষী, এক জন স্প্যানিশভাষী এবং এক জন ক্যান্টোনিজভাষী ওই একই প্রস্তাব চিঠি আকারে কোফি আন্নানের কাছে পাঠান। ওই চিঠির একটি কপি পাঠানো হয় রাষ্ট্রপুঞ্জে কানাডার রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফাওলারের কাছেও।

হাসান ফিরদৌস পরের বছর রফিক-সালামদের বলেন, তাঁরা যেন ইউনেস্কোর ভাষা বিভাগের জোসেফ পড-এর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তিনি ইউনেস্কোর অ্যানা মারিয়ার সঙ্গেও যোগাযোগ করতে বলেন। সেইমতো মারিয়ার সঙ্গে দেখা করেন রফিক-সালামরা। রফিক-সালামদের বক্তব্য আগ্রহের সঙ্গে শোনেন মারিয়া, প্রস্তাবটি পড়েন এবং এই প্রস্তাব কানাডা, ভারত, বাংলাদেশ, হাঙ্গেরি, স্পেন ও ফিনল্যান্ডের মাধ্যমে পেশ করার পরামর্শ দেন। বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন জনের কাছে ওই প্রস্তাবটি পেশ করা হল ‘বিশ্ব মাতৃভাষাপ্রেমী সংস্থা’র তরফে। ফলে আরও অনেকে যুক্ত হন সেই কর্মকাণ্ডে। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশের তদানীন্তন শিক্ষামন্ত্রী এম এ সাদেক, শিক্ষাসচিব কাজী রফিকুদ্দিন, অধ্যাপক কফিলউদ্দিন আহমেদ, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সচিবালয়ের তৎকালীন অধিকর্তা মশিউর রহমান, ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সৈয়দ মোজাম্মেল আলি, ইউনেস্কোর সেক্রেটারি জেনারেলের প্রধান উপদেষ্টা তোজাম্মেল হক প্রমুখ। তাঁরা তাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রমে পৃথিবীর আরও ৩০টি দেশকে রাজি করালেন প্রস্তাবটি সমর্থন করার জন্য। ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক স্তরে নিয়ে যাওয়ার জন্য কয়েক জন দৃঢ়চেতা বাঙালি নিরলস পরিশ্রম করে গিয়েছেন। ১৯৯৯ সালের ৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর স্বাক্ষর সম্বলিত প্রস্তাবটি অন্যান্য ৩০টি দেশের সমর্থন নিয়ে রাষ্ট্রপুঞ্জে পাঠানো হল।

এ বার অপেক্ষা ১৯৯৯-এর ১৬ নভেম্বরের জন্য। সেই দিন ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে প্রস্তাবটি পেশ হওয়ার কথা। দীর্ঘ অতন্দ্র অপেক্ষার পর এল সেই দিন। কিন্তু হায়, এক অজানা অবোধ্য কারণে সে দিন পেশ হল না প্রস্তাবটি। তবে পরের দিনই প্রস্তাব পেশ হল। এবং অধিবেশনে উপস্থিত ১৮৮টি দেশ সমর্থন করল প্রস্তাবটি। ২১ ফেব্রুয়ারি স্বীকৃতি পেল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের। ২০০০ সাল থেকে পৃথিবীর প্রতিটি দেশ ফেব্রুয়ারির ২১ তারিখে মাতৃভাষা দিবস পালন করে আসছে। ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপুঞ্জ সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে পালন করার প্রস্তাব সর্বসম্মত ভাবে পাশ হয়।

ভৌগোলিক-রাজনৈতিক-সাম্প্রদায়িক সীমানা পেরিয়ে আমাদের ভাষা, আমাদের সাহিত্য-সংস্কৃতি, আমাদের ঐতিহ্য আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এখন প্রতিষ্ঠিত, সম্মানিত, সমাদৃত। আমাদের এ বুকে অনির্বাপিত আলোকবর্তিকার নাম ‘একুশে’; আমাদের বর্ণমালার প্রথম পাঠ ‘একুশে’; আমাদের মায়ের হাতের সাঁঝের বাতি, রক্তাক্ত ভায়ের স্মৃতি ‘অমর একুশে’; আমাদের গুমরে ওঠা বুকের ব্যথা – কাব্যকথা – নকশিকাঁথার মাঠ, তার নাম ‘অমর একুশে’; আমাদের ভাদু-ভাওয়াইয়া-ভাটিয়ালি, আউল-বাউল-লালন-সিরাজ-হাসন রাজায় সুর তোলে ‘অমর একুশে’। ২১ ফেব্রুয়ারি আমাদের পথ দেখায়। বুকের রক্তনদী ঢেলে যাঁরা ২১-কে আগামীর কাছে রেখে গেলেন, বাংলা ভাষাকে পীঠস্থানে পরিণত করে বিশ্বপ্রাঙ্গণে প্রতিষ্ঠা দিয়ে গেলেন, তাঁদের কাছে বাঙালির তো ঋণের শেষ নেই। বাংলা ও বাঙালির সারা শরীরে ২১ ফেব্রুয়ারি রোদ্দুরের মতো মাখামাখি হোক, বাঙালি একুশের বর্ষণে স্নাত হোক, শৈত্য শিথিলতায় হারিয়ে যাওয়া উত্তাপকে বাঙালি খুঁজে পাক একুশের মধ্যে। বাঙালির রক্তের বর্ণ একুশের চেতনায় আরও গাঢ় হোক।

 

প্রচ্ছদ খবর

আরএসএস-কংগ্রেস যোগ নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ মমতার

Mamata-banerjee

ওয়েবডেস্ক: লোকসভা ভোটের হাইভোল্টেজ প্রচারে বেরিয়ে উত্তরবঙ্গের সভা থেকে কংগ্রেসকে নজিরবিহীন আক্রমণ করলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ দিন তিনি চোপড়ার সভা থেকে আরএসএসের সঙ্গে কংগ্রেসের যোগ নিয়ে বেনজির অভিযোগ করেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, বাংলায় জয়ী হবে না, এ কথা বুঝতে পেরে নাকি ভয় পেয়ে গিয়েছে বিজেপি-কংগ্রেস৷ তাই ভোটে জেতার জন্য আরএসএসের সঙ্গে জোট বেঁধেছে কংগ্রেস৷ এই ইস্যুতে নাম না করে মুর্শিদাবাদের বহরমপুর এবং জঙ্গিপুরের কংগ্রেস প্রার্থী অধীররঞ্জন চৌধুরি এবং অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়কে তোপ দাগেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী৷

মমতা কথায়, “ভোটে জিততে টাকা ছড়াচ্ছে আরএসএস। কংগ্রেস ভোটে জিততে আরএসএসের সাহায্য নিচ্ছে। বহরমপুরের কংগ্রেস প্রার্থীকে সাহায্য করছে ওই সংগঠন। এমনকী প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র, এ বারের ভোটে জঙ্গিপুরের কংগ্রেস প্রার্থী অভিজিত মুখোপাধ্যায়কেও সাহায্য করছে আরএসএস। এ ভাবেই দেশের সংগঠনগুলি বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছে”।

Continue Reading

প্রচ্ছদ খবর

উত্তরবঙ্গের হাইভোল্টেজ প্রচারসভা থেকে মোদীকে স্ট্রাইকের হুঁশিয়ারি মমতার

Mamata-Banerjee

ওয়েবডেস্ক: বুধবার উত্তর দিনাজপুরের চোপড়ার জনসভা থেকে প্রথামাফিক প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তীব্র কটাক্ষে আক্রমণ করলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে বরাবরের মতো মোদীকে আক্রমণের নিশানা হিসাবে ‘বেকারত্ব’, ‘ধর্মীয় বিভেদ’, ‘যুদ্ধের’ মতো উপকরণগুলিকে তুলে নেওয়ার পাশাপাশি তিনি এ দিন বলেন, “তৃণমূল-ই পারবে কেন্দ্র থেকে বিজেপিকে হঠাতে। মোদীবাবুকে সরাতে গেলে দরকার জোড়াফুল”।

মমতা বলেন, “চৌকিদার মিথ্যাবাদী, চৌকিদার দাঙ্গাবাজ।  মোদীবাবু পাঁচ বছর আগে ছিলেন চা-ওয়ালা। এখন হয়েছেন চৌকিদার। লোকে বলছে চৌকিদার চোর হ্যায়। আমি বলছি এই চৌকিদার ঝুটা হ্যায়। এই চৌকিদার লুঠেরাদের চৌকিদার। সাড়ে চার বছর বিদেশে ঘুরে বেড়িয়েছেন। আর সেই সময়েই দেশে বেকার বেড়েছে সর্বাধিক”।

সম্প্রতি পুলওয়ামা হামলা এবং বালাকোটে বায়ুসেনার এয়ারস্ট্রাইক প্রসঙ্গে জওয়ানদের কথা তুলে ধরে নির্বাচন কমিশনের নজরে পড়েন মোদী। সেই ঘটনার সূত্র ধরেই মমতা বলেন, “আগাম সতর্কতা থাকা সত্ত্বেও কেন পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলা হল। জওয়ানদের নিয়ে রাজনীতি করছেন মোদী। জওয়ানরা কারো নয়, দেশের। প্রধানমন্ত্রী শুধু যুদ্ধের কথা বলেন। এ বার ভোটারদের স্ট্রাইক দেখবেন মোদী”।

এ দিন বিজেপির পাশাপাশি সিপিএম-কংগ্রেসকে ভোট না দেওয়ার আর্জি জানান মমতা। তিনি বলেন, “সিপিএমের কাউকে দেখতে পেয়েছেন, কংগ্রেসের কাউকে দেখতে পেয়েছেন। সিপিএম-কংগ্রেস-বিজেপি এরা এক। সকালে করে সিপিএম, দুপুরে করে কংগ্রেস, রাতে করে বিজেপি। এরা তিন দিল জগাই-মাধাই-গদাই। একটাও ভোট দেবেন না।”।

ক’দিন আগেই রাজ্যে এসে নাগরিকপঞ্জি নিয়ে সরব হয়েছিলেন মোদী। তাঁর উদ্দেশে মমতা বলেন, “বাংলায় নাগরিকপঞ্জি হতে দেব না। নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলও আনতে দেব না”।

[ আরও পড়ুন: আরএসএস-কংগ্রেস যোগ নিয়ে বিস্ফোরক অভিযোগ মমতার ]

ভোটের মুখে পুলিশ আধিকারিকদের বদলি প্রসঙ্গে মমতার দাবি, “অফিসাররা ভোট দেন না, ভোট দেবেন জনগণ। ফলে তৃণমূলের ভোট কেউ আটকাতে পারবে না। রাজ্যের ৪২টার মধ্যে ৪২টাই দখলে এলে দিল্লিও দখলে আসবে”।

Continue Reading

প্রচ্ছদ খবর

মিছিলে হামলা, আক্রান্ত সিপিএম প্রার্থী গুরুতর আহত হয়ে ভরতি হাসপাতালে

cpm's campaign

আসানসোল: প্রচারে বেরিয়ে আক্রান্ত হলেন আসানসোলের সিপিএম প্রার্থী গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় ভরতি হাসপাতালে।

ঘটনাটি ঘটেছে বারাবনির মদনপুরে। এ দিন সকালে প্রচারে বেরিয়েছিলেন গৌরাঙ্গবাবু। মদনপুরে পৌঁছোতেই তাঁর মিছিলে হামলা চালানো হয়। তাঁকে মাটিতে ফেলে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। গোটা ঘটনায় শাসক তৃণমূলের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ তুলেছে সিপিএম। যদিও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

gouranga chatterjee

আহত গৌরাঙ্গবাবু।

বর্ষীয়ান বাম প্রার্থীর আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে আসানসোলের পরিস্থিতি। দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারের দাবিতে অণ্ডাল থানায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছে সিপিএম।

আরও পড়ুন এখনও গৃহীত হয়নি মুকুটমণি অধিকারীর ইস্তফাপত্র, রানাঘাট কেন্দ্রের প্রার্থী নিয়ে বিকল্প ব্যবস্থা বিজেপির

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর রাজ্য বিধানসভার মধ্যে আক্রান্ত হয়েছিলেন তৎকালীন বিধায়ক গৌরাঙ্গবাবু। সেই ঘটনায় আহত হয়েছিলেন দেবলীনা হেমব্রমও। গোটা ঘটনায় তৃণমূলের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছিল সিপিএম।

এর আগেও গত বৃহস্পতিবার রাতে বাঁকুড়ার রানিবাঁধ এলাকায় প্রচার সেরে সিঁদুরপুর গ্রামের বাড়িতে ফিরতেই কয়েক জন দুষ্কৃতী সিপিএম নেতা মধুসূদন মাহাতোকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে আখখুটা মোড় এলাকায় তাঁকে ব্যাপক মারধর করে। দুষ্কৃতীরা সবাই তৃণমূলের আশ্রিত বলে অভিযোগ।

Continue Reading
Advertisement
বাংলাদেশ2 hours ago

বাবা-মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় প্লে-ব্যাক সম্রাট এন্ড্রু কিশোর

রাজ্য3 hours ago

প্রকাশিত হয়েছে মাধ্যমিকের ফলাফল, ভরতি কবে এবং কী ভাবে?

প্রযুক্তি4 hours ago

রিলায়েন্সের নতুন ‘জিও গ্লাস’, চশমাটি কী কাজে লাগবে?

রাজ্য5 hours ago

কলকাতার পাশাপাশি চিন্তা বাড়াচ্ছে উত্তরবঙ্গের দুই জেলার করোনা-পরিস্থিতি

Amit Shah
দেশ6 hours ago

মোদী সরকারের অগ্রাধিকারের তালিকায় নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা: অমিত শাহ

গান-বাজনা6 hours ago

১২ বছরের পথচলায় ‘মুক্তধারা’র মুকুটে আরও একটি পালক, চালু হল ইউটিউব চ্যানেল

laptop
কেনাকাটা6 hours ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

বিদেশ7 hours ago

আইসোলেশনে থাকাকালীন বিশালাকার পাখির কামড় খেলেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

কেনাকাটা

laptop laptop
কেনাকাটা6 hours ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা3 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা6 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা1 week ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে