siddhivinayak idol
সিদ্ধি বিনায়কের মূর্তি। ছবি সৌজন্যে মুম্বই লাইভ।

ওয়েবডেস্ক: সারা দেশ জুড়েই ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে বহু গণেশ মন্দির। তবু তারই মধ্যে কিছু মন্দির বেশ বিখ্যাত। দেখে নেওয়া যাক সেই মন্দিরগুলি কোথায় –

মুম্বই
puja at siddhi vinayak temple
সিদ্ধিবিনায়ক মন্দিরে পূজা। ছবি সৌজন্যে সিদ্ধিবিনায়ক.ওর্গ।

মন্দির সর্বাধিক জনপ্রিয় ও ভক্ত সমাগমপূর্ণ মন্দির। ১৮০১ সালে লক্ষ্মণ ভিতু ও দেওবাই পাটিল প্রতিষ্ঠা করেন এটি।

পুনে
dagdusheth ganapati
দগদুশেঠ হালওয়াই গণপতি। ছবি সৌজন্যে দগদুশেঠহালওয়াই.কম।

দ্বিতীয় জনপ্রিয় মন্দির হল দগদুশেঠ হালওয়াই গণপতি মন্দির। মন্দিরে গণপতি রয়েছেন স্বর্ণমূর্তিতে। ১৮৯৩ সালে মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রপ্তিষ্ঠা করেন দগদুশেঠ হালওয়াই নামের এক ময়রা।

চিত্তুর
kanipakam ganapati
কানিপকম বিনায়ক মন্দির। ছবি সৌজন্যে গোতিরুপতি.কম।

কানিপকম বিনায়ক মন্দির। শ্রীবরসিদ্ধি বিনায়ক স্বামী মন্দির নামেও প্রসিদ্ধ। অবস্থিত অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তুর জেলার কানিপকমে। ঐতিহাসিক মন্দিরগুলির অন্যতম। প্রতিষ্ঠা হয় খ্রিস্টাব্দের ১১ শতকে। মন্দিরটি প্রতিষ্ঠা করেন চোল রাজবংশের কুলোতুঙ্গ চোল। এর পর ১৩৩৬ খ্রিস্টাব্দে বিজয়নগর রাজবংশের হাতে এটি আরও সমৃদ্ধি লাভ করে।

বেঙ্গালুরু
dodda ganapathy
ডোড্ডা গণপতি মন্দির। ছবু সৌজন্যে প্রেইজ.কম।

ডোড্ডা গণপতি। বাসাবানাগুড়ির বুল টেম্পল রোডে অবস্থিত এই মন্দির। এই মন্দিরের মূর্তি ১৮ ফুট লম্বা আর ১৬ ফুট চওড়া।

রনথম্ভোর
ganesha temple in ramthambore fort
ত্রিনেত্র গণেশ মন্দির। ছবি সৌজন্যে রনথম্ভোরন্যাশনালপার্ক.ইন।

রাজস্থানের রণথম্ভোর ফোর্টে রয়েছে ত্রিনেত্র গণেশ মন্দির। এখানে গণেশ সপরিবার উপস্থিত। অর্থাৎ এখানে রয়েছেন তাঁর দুই স্ত্রী ঋদ্ধি ও সিদ্ধি, রয়েছেন দুই পুত্র (শুভ লাভ) এবং তাঁর বাহ্ন ইঁদুর। ১৩০০ খ্রিস্টাব্দে রাজা হামির এই মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।

তিরুচিরাপল্লি
ucchi pillayar koil
উচি পিল্লাইয়ার কয়েল। ছবি সৌজন্যে ট্রিপঅ্যাডভাইসর।

উচি পিল্লাইয়ার কয়েল অর্থাৎ মন্দির ভগবান গণেশকে নুবেদিত। এটি অবস্থিত তামিলনাড়ুর তিরুচিরাপল্লিতে। ঐতিহাসিক মন্দিরের মধ্যে এটিও একটি। খ্রিস্টপূর্ব ৭ শতকে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। তিরুচিরাপল্লির ঐতিহাসিক রকফোর্টের শীর্ষে অবস্থিত এই মন্দিরটি। মন্দিরে আছে রঙ্গনাথের মূর্তিও। কথিত আছে রাবণবধের পর শ্রী রাম বিভীষণকে এই রঙ্গনাথের মূর্তি উপহার দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটি লঙ্কায় নিয়ে যেতে চেয়েছিলেন বিভীষণ। কিন্তু অবশেষে গণেশের দৈবিক ছলনায় মূর্তিটি এখানেই রয়ে যায়।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন