indonesia

বান্দা আচে (ইন্দোনেশিয়া): মধ্যযুগীয় বর্বরতা ইন্দোনেশিয়ায়। জনসমক্ষে ভালোবাসা প্রদর্শনের জন্য অবিবাহিত যুগলদের বেত্রাঘাত করা হল ইন্দোনেশিয়ায়। পতিতাবৃত্তি করার জন্য দু’জন মহিলাকেও বেত্রাঘাত করা হয়েছে। শুক্রবার সকালে এই ঘটনা ঘটেছে ইন্দোনেশিয়ার অতিরক্ষণশীল হিসেবে পরিচিত আচে প্রদেশে।

হাজারে হাজারে উৎসাহী মানুষের মাঝেই এই বেত্রাঘাত করা হয়েছে। তবে আচে প্রদেশের সরকার জানিয়েছে, এর পর থেকে আর প্রকাশ্যে বেত্রাঘাত করা হবে না। বেত্রাঘাতকে এখন থেকে চার দেওয়ালের মধ্যে নিয়ে যাওয়া হবে।

গত বছর দু’জন সমকামী পুরুষকে একই রকম ভাবে বেত্রাঘাত করা হয়েছিল। তার পর থেকেই বিভিন্ন মহলে তীব্র নিন্দা শুরু হয়। দিন দিন আরও রক্ষণশীল হয়ে উঠে শরিয়া আইন আরও বেশি করে বলবত করছে আচে সরকার, এমনই বার্তা আসে বিভিন্ন মহল থেকে।

যে দুই মহিলা পতিতাবৃত্তি করেছিলেন তাদের এগারো বার করে বেতের বাড়ি মারা হয়েছে। এঁদের মধ্যে এক জন পঞ্চম বার বেত খাওয়ার পরে ব্যথায় কাতরাতে শুরু করেন। তাঁকে অবশ্য একটু জল খাওয়ানো হয়। তার পর আবার বেতের বাকি ছ’টি মার দেওয়া হয় তাঁকে। অন্য দিকে ভালোবাসা প্রদর্শনের জন্য বাকি ছ’জনকে ১১ থেকে ২২টি বার বেতের বাড়ি মারা হয়।

উল্লেখ্য, মুসলিম প্রধান ইন্দোনেশিয়ায় আচেই একমাত্র প্রদেশ যেখানে শরিয়া আইন চালু রয়েছে। এখানকার সাধারণ মানুষও শরিয়া আইনের সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে নিয়েছেন। তাই তো বেত্রাঘাতকে চার দেওয়ালের মধ্যে নিয়ে যাওয়ার বিরোধিতা করেছেন তাঁরা। বৃহস্পতিবার বান্দা আচের মেয়রের অফিসের সামনে বিক্ষোভ দেখান হাজারে হাজারে মানুষ। তাদের দাবি, বেত্রাঘাতকে চার দেওয়ার মধ্যে নিয়ে গেলে ‘অপরাধীদের’ কোনো শিক্ষা হবে না।

আচের এই বর্বরোচিত অত্যাচার বন্ধ করার জন্য বারবার দাবি করে এসেছে মানবাধিকার সংগঠনগুলি। কিন্তু এখনও তাদের দাবিকে বিশেষ আমল দেয়নি আচে সরকার।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here