kashmir terrorist

অনন্তনাগ: অনেক আবেদন, অনেক কাকুতি-মিনতির পরে অবশেষে সাড়া দিল সে। জঙ্গি জগৎ থেকে ফিরে এল মূল স্রোতে। আপাতত সে পুলিসের হেফাজতে।

গত ১০ নভেম্বরে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে জঙ্গি শিবিরে নাম লেখানোর খবর জানিয়ে দেয় তরুণ কাশ্মীরি ফুটবলার মজিদ আর্শাদ খান। হাতে একে-৪৭ বন্দুক ধরা ওই তরুণকে চিনতে বেশি বেগ পেতে হয়নি তার পরিবার পরিজনদের। ফুটবলার হিসেবে তার বেশ নামডাক হয়েছে। সেই সঙ্গে একটি এনজিওর সঙ্গেও যুক্ত ছিল মজিদ।

কিন্তু কেন জঙ্গি শিবিরের দিকে পা বাড়িয়েছিল মজিদ?

মজিদের পরিজনদের মতে, আগস্টের প্রথম সপ্তাহে নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে খুন হয় মজিদের খুব ঘনিষ্ঠ বন্ধু। এই ঘটনাই পালটে দেয় দ্বিতীয় বর্ষের এই ছাত্রকে। এক জনের কথায়, “বন্ধুর শেষ যাত্রায় সব সময় তার পাশেই ছিল মজিদ। এর পরেই মজিদ সম্পূর্ণ বদলে যায়।”

মজিদের জঙ্গি শিবিরে যোগ দেওয়ার খবরে স্তম্ভিত হয়ে যায় তার মা-বাবা। বারবার আবেদন করা হয় মজিদকে মূল স্রোতে ফিরে আসার জন্য। ফিরে আসার জন্য অনেক বন্ধুই মজিদের ফেসবুকের টাইমলাইনে আবেদন করে। দিন দুয়েক আগেই মজিদের মায়ের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে যায়, যেখানে দেখা যায় মজিদকে ফিরে আসার জন্য আবেদন করে চলেছেন তিনি।

অবশেষে সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে দিরে এল মজিদ। কাশ্মীর পুলিসের এক আধিকারিক টুইট করে জানান, “আমরা তাকে ফিরে পেলাম। এটা খুব আনন্দের ব্যাপারে। ভগবান তার মায়ের আবেদনে সাড়া দিয়েছে। যে তরুণ-যুবকরা হাতে অস্ত্র তুলে নিচ্ছে, সবার কাছে আবেদন করছি, সবাই দয়া করে নিজের মায়ের কাছে ফিরে যাও।”

উল্লেখ্য, বুধবারই কাশ্মীরের আইজি মুনের খান জানিয়েছেন, তরুণ-যুবকরা যদি জঙ্গি শিবির ছেড়ে মূলস্রোতে ফিরে আসতে চায়, তা হলে তাদের দেখভালের সব দায়িত্ব নেবে পুলিশ প্রশাসন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here