kashmiri separatist leaders

শ্রীনগর: কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতিনিধির সঙ্গে কোনো রকম আলোচনায় বসবেন না কাশ্মীরের বিচ্ছিনতাবাদী নেতারা। জম্মু-কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করার জন্য বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা চালাতে কেন্দ্রীয় সরকার যাঁকে মনোনীত করেছেন, তাঁর মনোনয়নকে নয়াদিল্লির ‘নতুন কৌশল’ বলে বর্ণনা করেছেন তাঁরা।

আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে আলোচনা চালানোর জন্য কেন্দ্রের প্রতিনিধি হলেন প্রাক্তন আইবি প্রধান

এক বিবৃতি জারি করে গোয়েন্দা ব্যুরোর প্রাক্তন প্রধান দীনেশ্বর শর্মার সঙ্গে কোনো রকম আলাপ আলোচনা চালানোর সম্ভাবনা খারিজ করে দিয়েছে প্রবীণ বিচ্ছিনতাবাদী নেতাদের যৌথ সংগঠন ‘জয়েন্ট রেজিসট্যান্স লিডারশিপ’ (জেআরএল)। বিবৃতিতে সই করেছেন সৈয়দ আলি গিলানি, মিরওয়াইজ উমর ফারুক এবং মহম্মদ ইয়াসিন মালিক।

বিবৃতিতে তাঁরা বলেছেন, “সামরিক পীড়নের মাধ্যমে কাশ্মীরের স্বাধীনতাকামী মানুষের আশাআকাঙ্ক্ষা দমন করতে ব্যর্থ হয়ে ভারত সরকার এই নতুন কৌশল নিয়েছে। এই তথাকথিত আলোচনা প্রক্রিয়ার অঙ্গ হওয়া যে কোনো কাশ্মীরির কাছে একটা নিরর্থক অনুশীলন।”

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “নীতিগত ভাবে জম্মু-কাশ্মীরের বিরোধ মেটাতে আমরা সব সময়েই আন্তরিক ও ফলদায়ক আলোচনা চালানোর কথা বলে এসেছি এবং তা সমর্থন করে এসেছি। আলোচনার ব্যাপারে আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি হল, কাশ্মীর নিয়ে যে একটা বিরোধ আছে এবং তা যে মেটাতে হবে, সেটা মেনে নেওয়া। এই মূল যুক্তি এবং বাস্তব পরিস্থিতি মেনে নিতে বরাবর অস্বীকার করে আসছে ভারত সরকার।”

জম্মু-কাশ্মীরকে আর একটা সিরিয়া হওয়ার হাত থেকে বাঁচাতে হবে বলে দীনেশ্বর শর্মা যে মন্তব্য করেছেন, তাতে প্রবল আপত্তি জানিয়েছেন বিচ্ছিনতাবাদী নেতারা। তাঁরা বলেছেন, “কাশ্মীরের বিষয়টি হল ৭০ বছরের পুরোনো আন্তর্জাতিক ভাবে স্বীকৃত একটি রাজনৈতিক ও মানবতাবাদী বিষয়। এর সঙ্গে সিরিয়ার মতো গোষ্ঠীতান্ত্রিক ক্ষমতার লড়াইয়ের তুলনা টানাটা একটা প্রবঞ্চনা এবং প্রচার। দু’ জায়গার পরিস্থিতির মধ্যে কোনো সম্পর্কই নেই।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here