repairing work is going on
লকগেট মেরামতির কাজ চলছে।

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: দুর্গাপুর ব্যারেজের এক নম্বর লকগেট ভেঙে যাওয়ার ফলে বন্যার কোনো আশঙ্কা নেই। পূর্ব বর্ধমান ও পশ্চিম বর্ধমানের প্রশাসনের তরফে এই আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। তবে দুর্গাপুর শহরে পানীয় জলের সমস্যা দেখা দিতে পারে।  সেই সঙ্গে জলবিদ্যুৎ সরবরাহ, এবং বাঁকুড়া জেলার সেচ ব্যবস্থায় এর প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ইতিমধ্যে ভাঙা লকগেট থেকে জল বেরোনো আটকাতে ভাঙা লকগেটের সামনে বালির বস্তা ফেলা হচ্ছে। ও দিকে দুর্গাপুর ব্যারেজের ওপর চাপ কমাতে ডিভিসি মাইথন থেকে জল ছাড়া বন্ধ রেখেছে।

দুর্গাপুর ব্যারেজে বিপত্তি ঘটে শুক্রবার ভোর ৫টা নাগাদ। জলের তোড়ে বেঁকে যায় এক নম্বর লকগেট। খবর পেয়ে পৌঁছে যান ডিভিসি ও সেচ দফতরের অফিসারেরা। কলকাতা থেকে সেচ দফতরের বিশেষজ্ঞরা এসেছেন। মেরামতির কাজ শুরু হয়। কিন্তু সারা দিনে পরিস্থিতির খুব একটা উন্নতি হয়নি।

damaged lockgate
ভাঙা লকগেট।

ব্যারেজ থেকে হু হু করে জল বেরিয়ে যাওয়ার ফলে অনেকেই বন্যার আশঙ্কা করছেন। তবে পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক জানিয়েছেন তাঁর জেলায় বন্যার কোনো আশঙ্কা নেই। জলের তেমন চাপও নেই।

ও দিকে দুর্গাপুরের মহকুমা শাসক শঙ্খ সাঁতরা জানান, কলকাতা থেকে বিশেষজ্ঞদল এসেছে। এসেছেন ইঞ্জিনিয়াররাও। মেরামতির কাজ চলছে। প্রাথমিক ভাবে বালির বস্তা দিয়ে জল আটকানো হচ্ছে। কিছুটা সময় লাগবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে।

উল্লেখ্য, দুর্গাপুর ব্যারাজ থেকে দুর্গাপুর শহরে পানীয় জল সরবরাহ করা হয়। এই অঞ্চলের কলকারখানায় যে জল লাগে তা-ও আসে দুর্গাপুর ব্যারাজ। লকগেট ভেঙে হু হু করে জল বেরিয়ে যাওয়ায় ব্যারাজে জলস্তর অনেকটাই নেমে গিয়েছে। এখন বৃষ্টিরও কোনো সম্ভাবনা নেই। ফলে আগামী কয়েক দিন দুর্গাপুর শহরে পানীয় জলের ঘাটতি দেখা দিতে পারে বলে অনেকে মনে করছেন।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here