নিজস্ব সংবাদদাতা, কলকাতা : ফের এক নাবালিকা ধর্ষণের অভিযোগ উঠল। ওই নাবালিকা দশম শ্রেণির ছাত্রী। মহেশতলার ওই ঘটনায় অভিযুক্ত তিন জন৷ এর মধ্যে দু’ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ বাকি একজনের খোঁজে তল্লাশি চলছে৷ বৃহস্পতিবার অভিযুক্তদের আলিপুরে বিশেষ পক্সো আদালতে তোলা হলে দু’দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক৷ এই ঘটনায় অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ৷

সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় মহেশতলার বাসিন্দা ওই ছাত্রীকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়৷ তার নাক ও মুখ জোর করে রুমাল দিয়ে চাপা দেওয়া হয়৷ এই ঘটনায় বেহুঁশ হয়ে যায় সে৷ তার পর তাকে একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে গিয়ে জোর করে ধর্ষণ করা হয়৷ শুধু তা-ই নয় ধর্ষণের দৄশ্য মোবাইলে তুলে রাখা হয়৷ নির্যাতিতার জ্ঞান ফিরলে সে দেখে পরিত্যক্ত ঘরে পড়ে রয়েছে সে, পরণে কোনো পোশাক নেই। সেই অবস্থায় অভিযুক্তরা তার ছবি তুলছে৷ সঙ্গে সঙ্গেই চিৎকার করে ওঠে সে৷ তখনই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্তরা৷

সেপ্টেম্বর মাসে এই ঘটনা ঘটে৷ তার নিরাবরণ অবস্থার ছবি সোশ্যাল মিডিযায় আপলোড করে দেওয়া হবে বলে নির্যাতিতাকে ভয় দেখানো হয়৷ পুলিশে যাতে কোনো অভিযোগ না করা হয় তার জন্য হুমকিও দেওয়া হয় তাকে৷ শেষ পর্যন্ত নির্যাতিতা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করলে শেখ ওয়াকিল ওরফে জামির ও শেখ সেলিম নামে দুই যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ এই ঘটনায় পলাতক পিকে নামে আরও এক ব্যাক্তি ৷

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here