জুতো, খাবার, পুষ্পবৃষ্টি, লাল সমুদ্রকে অভিনন্দন-শুভেচ্ছায় ভরিয়ে দিল মুম্বই

0

মুম্বই: রাস্তায় নেমে কোনো বিক্ষোভ, আন্দোলন হলেও পরিচিত ছবি হয় সাধারণ নিত্যযাত্রীদের হয়রানি, বিক্ষোভের প্রতি সাধারণ মানুষের ক্ষোভ ইত্যাদি। কিন্তু সোমবার মুম্বই যে ভাবে আন্দোলনরত কৃষকদের পাশে দাঁড়াল সেটা এক কথায় অভাবনীয়। এক দিকে যেমন একটা ভাইরাল টুইটের সৌজন্যে জুতো উপহার দেওয়া হল কৃষকদের, তেমনই তাঁদের খাবার পৌঁছে দিলেন ডাব্বাওয়ালা থেকে সাধারণ মুম্বইকর।

১৮০ কিমি পথ পাড়ি দিয়ে রবিবার রাত থেকে মুম্বইয়ে ঢুকতে শুরু করে কৃষকদের লং মার্চ। সোমবার মুম্বইয়ে পরীক্ষা থাকায় সাধারণ মানুষের অসুবিধা হতে পারে, তাই রবিবার রাত থেকে মুম্বইয়ের আজাদ ময়দানে ঘাঁটি গাড়েন কৃষকরা। কৃষকদের শৃঙ্খলাবদ্ধ মিছিল দেখে এমনিতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পাশে দাঁড়িয়েছিল মুম্বই। সোমবার দেখা গেল আরও অভিনব ছবি।

অতিরিক্ত গরমে পিচের ওপর দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে নষ্ট হয়ে গিয়েছে অনেকের চটি-জুতো। মাথায় লাল টুপি এবং হাতে লাল ঝান্ডা থাকলেও, কৃষকরা যখন মুম্বইয়ে ঢোকেন অধিকাংশেরই খালি পা। সেই পায়ে আবার ক্ষতচিহ্ন। এই সব দেখেই নিজেকে সামলে রাখতে পারেননি ‘ইন্ডিয়া স্পেন্ড’-এর সঙ্গে যুক্ত সাংবাদিক প্রাচী সালভে। প্রাচীর কথায়, “আজাদ ময়দানে গিয়ে কৃষকদের অবস্থা দেখে খুব দুঃখ লেগেছিল। অধিকাংশ কৃষকের পা খালি। এই গরমের মধ্যে গরম পিচের ওপর দিয়ে হেঁটে তাঁদের পা জখম।” তখনই একটি পরিকল্পনা করেন প্রাচী।

এর পরেই সহকর্মীদের নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কৃষকদের জুতো দানের আবেদন করেন প্রাচী। সঙ্গে সঙ্গে ফল মিলতে শুরু করে। অনেকেই আজাদ ময়দানে গিয়ে কৃষকদের জুতো দান করেন। অনেকে আবার জুতোর বদলে টাকা দেওয়ার ইচ্ছেও প্রকাশ করেছিলেন, তবে প্রাচীদের আবেদন, কৃষকদের এখন টাকা নয়, দরকার জুতোর।

শুধু জুতোদান নয়, খাবার-জল দিয়েও পাশে দাঁড়িয়েছে মুম্বই। ছাত্র থেকে শুরু করে সাধারণ অফিসযাত্রী কৃষকদের খাবার দিতে দেখা গিয়েছে সবাইকে। ভিখরোলিতে কৃষকদের হাতে খাবার তুলে দিতে দেখা গিয়েছে ছাত্রছাত্রীদের। আবার ইস্টার্ন এক্সপ্রেস হাইওয়ের ধারে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে কৃষকদের হাতে ‘পোহা’ (চিড়ের পোলাও) তুলে দিয়েছেন আশেপাশের বাসিন্দারা। মুলুন্দের পাস দিয়ে লং মার্চ যখন এগিয়ে যাচ্ছিল বাসিন্দারা তাঁদের উদ্দেশে পুষ্পবৃষ্টিও করেন।

কৃষকদের পাশে দাঁড়িয়েছে মুম্বইয়ের ডাব্বাওয়ালা সংগঠনও। ডাব্বাওয়ালা সংগঠনের মুখপাত্র সুভাষ তালেকার বলেন, “কৃষকরা আমাদের মুখে খাবার তুলে দেন, তাই তাঁদের মুখে খাবার তুলে দেওয়া আমাদের কর্তব্য বলে মনে করি।”

এ ভাবেই গেরুয়া-তেরঙ্গার সঙ্গে পরিচিত মুম্বই এই প্রথম লালের সমাগম দেখল আর ভরিয়ে দিল অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছায়।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন