rahul gandhi

নয়াদিল্লি: ২০১২-এর ১৬ ডিসেম্বর। রাজধানী দিল্লির সেই মর্মান্তিক ঘটনা কেউই ভুলে যাননি। সেই ঘটনার শিকার নির্ভয়া ১৩ দিন ধরে লড়াই করার পরে সিঙ্গাপুরের হাসপাতালে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েন। প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছিল দিল্লির রাজপথ। সারা দেশ সমব্যথী হয়েছিল নির্ভয়ার পরিবারের সঙ্গে। সেই নির্ভয়ার ভাই আজ পাইলট। কমার্শিয়াল পাইলটের প্রশিক্ষণ নিয়ে আজ একটি বেসরকারি বিমানসংস্থায় পাইলট তিনি। তাঁকে জীবনে দাঁড়াতে যে সাহায্য করেছেন রাহুল গান্ধী, তা আর গোপন রাখতে পারল না নির্ভয়ার পরিবার।

নির্ভয়ার বাবা বদ্রিনাথ সিং সংবাদসংস্থা আইএএনএস-কে বলেন, তাঁর ২৩ বছরের কন্যা নৃশংসভাবে ধর্ষিত হয়ে মারা যাওয়ার পর থেকে কংগ্রেস নেতা তাঁদের পরিবারকে ‘যত রকম ভাবে সম্ভব’ সাহায্য করেছেন।

“আমার ছেলে এখন এক জন পাইলট। সে সম্প্রতি তার প্রশিক্ষণ শেষ করেছে। সে ইন্ডিগো এয়ারলাইনস-এ যোগ দিয়েছে। এখন বিমান চালাচ্ছে। আর এটা সত্যি যে এটা সম্ভব হয়েছে রাহুল গান্ধীর জন্য” – বদ্রিনাথ বলেন। বদ্রিনাথ নিজে দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কর্মী।

বদ্রিনাথ জানান, তাঁর ছেলে বারো ক্লাস পাশ করার পর রায়বরেলির ইন্দিরা গান্ধী রাষ্ট্রীয় উড়ান অ্যাকাডেমিতে ভর্তি হয়। “এটা রাহুল গান্ধীর জন্যই সম্ভব হয়েছিল। ওই ঘটনার পর থেকে তিনি আমাদের দেখাশোনা করে এসেছেন। গোড়ার দিকে অনেকেই এগিয়ে এসেছিলেন আমাদের সাহায্য করার জন্য। কিন্তু একমাত্র রাহুল গান্ধীই বরাবর আমাদের পাশে থেকেছেন এবং গোটা ব্যাপারটা গোপন রাখার জন্য আমাদের স্পষ্ট বলে দিয়েছিলেন।”

“তিনি আমাদের বলেছিলেন, রাজনীতি করার জন্য তিনি এটা করছেন না। শুধুমাত্র মানবিকতার খাতিরে তিনি এটা করছেন। এ ব্যাপারটা সংবাদমাধ্যমকে না জানানোর জন্য তিনি বলে দিয়েছিলেন” – এ কথা জানিয়ে বদ্রিনাথ বলেন, গান্ধী পরিবারের রাজনীতির সঙ্গে তাঁরও কোনো সম্পর্ক নেই। “কিন্তু যা সত্যি তা তো সত্যিই। তাঁকে ধন্যবাদ দেওয়াত কোনো সীমা নেই।”

বদ্রিনাথ জানান, কংগ্রেস নেতা তাঁর ছেলের সঙ্গে বরাবর কথা বলে এসেছেন, নানা রকম পরামর্শ দিয়েছেন। জীবনে কিছু ভালো কাজ করার জন্য উৎসাহ দিয়ে এসেছেন এবং তাঁদের পরিবারকে সমর্থন জুগিয়ে এসেছেন। তিনিই তাঁকে পাইলট হিসাবে প্রশিক্ষণ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন এবং রায়বরেলির অ্যাকাডেমিতে ভর্তি করিয়ে দিয়েছেন। বদ্রিনাথের আরেক ছেলে পুনেতে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছেন।

“সে দিনের ঘটনা আমাদের পরিবারে স্থায়ী ক্ষত হিসাবে থেকে গিয়েছে। কিন্তু গান্ধী এগিয়ে এসেছিলেন দেবদূত হিসাবে। রাজনীতি যা-ই হোক, তিনি আমাদের কাছে দেবদূতই” – বলেন বদ্রিনাথ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here