g d birla accused

কলকাতা: জিডি বিড়লাকাণ্ডে সনাক্তকরণ প্রক্রিয়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন নির্যাতিতার বাবা ও মা৷ সোমবার আলিপুর সেন্ট্রাল জেলে সনাক্তকরণ প্রক্রিয়া চলে৷ অভিযোগ, নির্যাতিতার বাবা-মাকে ক্যামেরার মাধ্যমে অভিযুক্তদের ছবি দেখানো হয়৷ যে ছবি দেখানো হয়েছিল তা পরিষ্কার নয়৷ ফলে তাঁরা সনাক্ত করতে পারেননি বলে জানিয়েছেন৷ ফের টিআই প্যারেডের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা৷ আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলে এই বিষয়ে ফের তাঁরা যথাযোগ্য জায়গায় আবেদন জানাবেন বলে জানিয়েছেন ৷

অভিযুক্তদের দোষী সাব্যস্ত করার ক্ষেত্রে এই সনাক্তকরণ প্রক্রিয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা৷ কিন্তু তাঁদের সনাক্ত করতে না পারলে আইনি সুবিধা পেয়ে যাবেন অভিযুক্তরা৷ এমনকি জামিনও মিলতে পারে তাঁদের৷

এ দিন আলিপুর সেন্ট্রাল জেলে সনাক্তকরণ প্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়৷ নির্যাতিতা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন তার মা৷ ছিলেন ১০ নম্বর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কেয়া বালা৷ তবে এ বিষয়ে বিচারপতি কী রিপোর্ট দেন তার উপরেও নির্ভর করছে অনেক কিছু৷

সনাক্তকরণ প্রক্রিযায় সাধারণত বেশ কয়েক জনকে অভিযোগকারীর সামনে হাজির করানো হয়৷ তাঁদের মধ্যে অভিযুক্তদের সনাক্ত করতে হয়৷ পুরো প্রক্রিয়ার সময় উপস্থিত থাকেন একজন বিচারপতি৷ তবে সাধারণ ক্ষেত্রে মুখোমুখি এই প্রক্রিয়া হলেও এই মামলায় বিশেষ নির্দেশ দেন বিচারপতি৷ আলিপুর বিশেষ পকসো আদালতের বিচারপতির নির্দেশেই ক্যামেরার মাধ্যমে এই প্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়৷ শিশুটির বয়স, তার নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই এই বিশেষ অনুমতি দেওয়া হয়৷

তদন্তকারী সংস্থার পক্ষ থেকেই সনাক্তকরণ প্রক্রিয়ার আবেদন জানানো হয় আদালতে৷ এ ক্ষেত্রে নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে ফের পুলিশের পক্ষ থেকে আদালতে সনাক্তকরণ প্রক্রিয়ার আবেদন জানালে তখন বিচারক অনুমতি দিলেই তবেই এই প্রক্রিয়া ফের হতে পারে৷ তা না হলে নির্যাতিতার বাবা ও মা যে অভিযোগ তুলেছেন তা সত্যি হলে আইনি সুবিধা পেয়ে যাবেন অভিযুক্তরা৷ নির্যাতিতার বাবা ও মায়ের অভিযোগ ক্যামেরার ছবি পরিষ্কার ছিল না৷ শিশুটি চিনতে তো পারেইনি এমনকি তার মা-ও চিনতে পারেননি বলে জানিয়েছেন৷

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন