chelameshwar

ওয়েবডেস্ক: চার বিদ্রোহী বিচারপতিদের মধ্যে তিনি অন্যতম। সেই বিচারপতি জাস্তি চেলামেশ্বর বললেন, সংবিধান সুপ্রিম কোর্টকে কখনোই ‘সুপারিনটেন্ডেন্ট’ বা নির্ণায়ক হওয়ার বিধান দেয়নি। কিন্তু আচার আচরণে শীর্ষ আদালত এখন নির্ণায়কই হয়ে গিয়েছে।

জর্জ এইচ গাডবৈসের বই ‘দ্য সুপ্রিম কোর্ট অফ ইন্ডিয়া-দ্য বিগিনিংস’ বইটির আত্মপ্রকাশ মঞ্চে এই কথাগুলি বলেন চেলামেশ্বর। সেখানে তিনি বলেন, উদারনৈতিক গণতন্ত্রের স্বার্থে বিচারব্যবস্থাকে নিরপেক্ষ এবং স্বাধীন হতে হবে।

চেলামেশ্বর বলেন, “সুপ্রিম কোর্ট কখনোই নির্ণায়ক আদালত হতে পারে না। অন্তত সংবিধান সুপ্রিম কোর্টকে এই ক্ষমতা দেয়নি। কিন্তু এখন সুপ্রিম কোর্ট নির্ণায়কের মতোই আচরণ করে। বিচারপতি নিয়োগ এবং বদলির ব্যাপারে এটা বেশি করে দেখা যায়। হাইকোর্ট এবং আরও নিম্ন আদালতের প্রশাসনের ব্যপারেও সুপ্রিম কোর্টের এই নির্ণায়ক হওয়ার ব্যাপারটা চোখে পড়ে।”

চেলামেশ্বরের কথায়, সুপ্রিম কোর্টে এখন প্রচুর মামলা বিচারাধীন রয়েছে। তাঁর কথায়, “এত বকেয়া মামলা রয়েছে যে সবগুলোর নিষ্পত্তি প্রায় অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।” এই সমস্যার সমাধানের পথ খুব দ্রুত খুঁজে বের করতে হবে বলে জানান চেলামেশ্বর।

সুপ্রিম কোর্টের কাজকর্ম ঠিকঠাক চলছে না, এই অভিযোগ তুলেই ১২ জানুয়ারি নজিরবিহীন সাংবাদিক বৈঠকের ডাক দেন চেলামেশ্বর-সহ আরও চার বিচারপতি। এর পরেই দেশের বিচারব্যবস্থার নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন