পুড়ে ছাই হয়ে গেল জলপাইগুড়ির সন্ন্যাসী ঠাকুরের মন্দির

0

নিজস্ব সংবাদদাতা, জলপাইগুড়ি: বিধ্বংসী আগুনে ভস্মীভূত হয়ে গেল জলপাইগুড়ির সন্ন্যাসী ঠাকুরের মন্দির। শুক্রবার রাত ৯টা নাগাদ হঠাৎ করেই এই মন্দিরে আগুনে লাগে। দমকল পৌঁছোনোর আগেই পুড়ে যায় কাঠের তৈরি এই মন্দিরটি। জলপাইগুড়ি থেকে দমকলের দু’টি ইঞ্জিন গিয়ে আগুন নেভায়। যায় রাজগঞ্জ থানার পুলিশও। তবে আগুন লাগার কারণ নিয়ে তৈরি হয়েছে ধোঁয়াশা। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, সন্ধ্যাপ্রদীপ থেকে আগুন লেগে থাকতে পারে। আবার অনেকে ইলেকট্রিক শর্ট সার্কিটকেও দায়ী করছেন। তবে কারণ যাই হোক না কেন, প্রায় তিনশো বছরের ইতিহাসের সাক্ষী এই ভাবে পুড়ে যাওয়ায় দুঃখপ্রকাশ করেছেন বিদ্বজনেরা।

temple as it was before
মন্দির আগে যা ছিল।

জলপাইগুড়ি শহর থেকে বেশ খানিকটা দূরে শিকারপুর চা বাগান। এই চা বাগানের মধ্যেই রয়েছে সন্ন্যাসী ঠাকুরের মন্দির, যা অনেকের কাছে ভবানী পাঠকের মন্দির বলেই পরিচিত। ঐতিহাসিকদের দাবি, এই মন্দিরের সাথে দেবী চৌধুরানী এবং ভবানীপাঠকের সম্পর্ক ছিল। এই মন্দিরে নারী এবং পুরুষের যে দু’টি বিগ্রহ পুজো করা হত সেই দু’টি তাদেরই, দাবি স্থানীয় বাসিন্দাদের। এর আগেও কাঠের তৈরি এই মন্দির এবং বিগ্রহ পুড়ে গিয়েছিল। তবে তা ছিল আংশিক। এ বারে পুরো মন্দিরটিই ভস্মীভূত হয়ে যাওয়ায় মন্দিরে ইতিহাসও ছাই হয়ে গেল, বলছেন ঐতিহাসিকরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন