খবর অনলাইন: পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে তার আয়তনের আরও পাঁচ ভাগের এক ভাগ যোগ করলে যা দাঁড়ায়, এই দেশটার আয়তন তাই। অর্থাৎ আয়তনে পশ্চিমবঙ্গের থেকে বেশ বড়ো। আর জনসংখ্যা ? পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যার ৩০০ ভাগের ১ ভাগ। এ বার দেশটার আয়তন ও জনসংখ্যার অনুপাতটা ভাবুন। অর্থাৎ বিশ্বের জনবিরলতম দেশগুলোর একটা। এই দেশে লোক থাকে মাত্র ৩ লক্ষের কিছু বেশি। তার মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই রাজধানী ও তার আশেপাশে। অদ্ভুত আবহাওয়ার দেশ এটি, গ্রীষ্মে তাপমাত্রা ওঠে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত, আবার শীতে নেমে মাইনাস ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। তবে এই দেশটিই ইউরো কাপে অংশগ্রহণকারী দেশগুলির মধ্যে ক্ষুদ্রতম।

এ হেন বিচিত্র দেশটি প্রথম বার ইউরো কাপ খেলতে নেমে চলে গেল শেষ ষোলোয়। পর্তুগালের সঙ্গে ড্র করার পর বিশ্বখ্যাত ফুটবলার রোনাল্ডো  আইসল্যান্ডের ‘ক্ষুদ্র মানসিকতার’ কথা বলে নিজের নিচু মনের পরিচয় দিয়েছিলেন। সেই ‘ক্ষুদ্র মানসিকতার’ আইসল্যান্ড বুধবার প্রচুর সাহস আর দৃঢ় প্রত্যয়ের পরিচয় দিয়ে একের পর এক অস্ট্রীয় আক্রমণ রুখে খেলার একেবারে শেষ মুহূর্তে জয়সূচক গোল দিয়ে বাজিমাত করল।

খেলা শুরুর ১৮ মিনিটের মাথায় প্রথম গোল করে এগিয়ে যায় আইসল্যান্ডই। ৩৬ মিনিটে পেনাল্টি মিস করেন অস্ট্রিয়ার দ্রাগোভিচ। হাফটাইমের পর ৫৯ মিনিটে গোল শোধ করে অস্ট্রিয়া। গোটা ম্যাচে ৭০ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে অস্ট্রিয়া যখন প্রায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে, ঠিক তখনই তিন মিনিট ইনজুরি টাইমের একেবারে শেষ মুহূর্তে গোল করে বসে আইসল্যান্ড।

ও দিকে গ্রুপ ‘এফ’-এর পর্তুগাল-হাঙ্গেরি ম্যাচ আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে জমে ওঠে। দু’টি দলই গোটা মাঠ জুড়ে খেলে দর্শকদের মাতিয়ে দেয়। ম্যাচে মোট গোল হয় ৬টি। দু’টি দলই তিনটি করে গোল করে। বুধবার স্বমহিমায় ছিলেন রোনাল্ডো। গোল করেন দু’টি।

আইসল্যান্ডের পাশাপাশি গ্রুপ শীর্ষে থেকে হাঙ্গেরিও গেল শেষ ষোলোয়। এই গ্রুপে পর্তুগাল তৃতীয় স্থানে শেষ করলেও তারাও গেল নকআউটে। কোয়ালিফাইং স্টেজে ১০টি ম্যাচের মধ্যে ৯টিতে জিতে ইউরো কাপের ফাইনাল পর্যায়ে খেলতে এসেছিল অস্ট্রিয়া। কিন্তু গ্রুপে মাত্র ১ পয়েন্ট পেয়ে বিদায় নিতে হল তাদের।

ছবি: সৌজন্যে দ্য গার্ডিয়ান

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here