পা ফাটছে? কোমল গোড়ালি পেতে ট্রাই করতে পারেন সহজ এই ৫টি পদ্ধতি

0
foot
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: আসব আসব করেও শীত আসছে না, ঠিকই। কিন্তু তা হলে কী হবে। শীতের মরশুম এলে যে টান ভাব, হাত-পায়ের ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়া এই সমস্তই কিন্তু কম-বেশি সকলেরই হতে শুরু করেছে। এই সমস্যাগুলির মধ্যে অন্যতম সমস্যা হল গোড়ালির ত্বক শুষ্ক খসখসে হয়ে যাওয়া বা পা ফেটে একাকার হওয়া। এই সমস্যা খুবই বিরক্তিকর পরিস্থিতি তৈরি করে। এক তো লোকজনের সামনে পা বের করা যায় না, তার সঙ্গে অন্যান্য সমস্যা তো আছেই। অনেকের আবার পা ফেটে রক্তও বের হয়। তার থেকে ব্যথা, জ্বালা ইত্যাদি তো হয়ই। আবার অনেকের এই সমস্যা বছরভর চলতে থাকে।

এর আগের পর্বে গোড়ালি ফাটা আটকাতে কী কী করা উচিত তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

তবে পায়ের ত্বকের এমন হাল হওয়ার একটি কারণ যেমন শুষ্ক-রুক্ষ্ম আবহাওয়া, ঠিক তেমনই আর একটি কারণ হল সঠিক যত্নের অভাব। পা নোংড়া করে রাখলে, পরিষ্কার না করলেও সারা বছর পা ফাটে। তাই এই মরশুমেও যদি ঠিক ভাবে যত্ন ও পরিচর্যা করা যায় তা হলে কিন্তু এমন সমস্যায় পড়তে হয় না।

সে যাই হোক, এই পর্বে দেখে নেওয়া যাক এই সমস্যা হলে তার থেকে বেরিয়ে আসতে কী কী সহজ পদ্ধতি অবলম্বন করা যায়?

১। লেবুর রস – প্রথমেই যেটা করা যেতে পারে তা হল, একটি গামলায় গরম জল নিয়ে তাতে বডি ওয়াশ বা শ্যাম্পু মিশিয়ে নিতে হবে। তার মধ্যে একটা গোটা লেবুর রস মিশিয়ে দিতে হবে। তার পর এই জলে ১০ থেকে ১৫ মিনিট পা ডুবিয়ে রাখতে হবে। তার পর গোড়ালি ঘষার পাথর দিয়ে ভালো করে গোড়ালি ঘষে নিয়ে গরম জলে পা ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এর পর যে কোনো একটি ময়শ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে।

২। বেকিং সোডা – বেকিং সোডাও পায়ের ফাটা দূর করতে সহায়ক। এতে পায়ের দুর্গন্ধও দূর হয়ে যায়। প্রথমে হালকা গরম জলে তিন চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে নিতে হবে। সেই জলে পা ডুবিয়ে ১৫ মিনিট রাখতে হবে। এর পর পা ঘষার পাথর দিয়ে ঘষে পা পরিষ্কার করে নিতে হবে। এর পর পা ভালো করে ধুয়ে তোয়ালে দিয়ে পা মুছে শুকিয়ে নিতে হবে। 

৩। পেট্রোলিয়াম জেলি বা ভ্যাসলিন –  পেট্রোলিয়াম জেলি বা ভ্যাসলিন যে কোনো রকম রুক্ষ্মতা আর ফাটা দূর করতে খুবই পরিচিত নাম। তাই এটি গোড়ালি ফাটাতেও ভালো কাজ দেয়। প্রথমে গরম জলে ১৫ থেকে ২০ মিনিট পা ভিজিয়ে রেখে পায়ের শক্ত রুক্ষ ত্বক নরম করে নিতে হবে। এর পর পা ঘষা পাথর দিয়ে পা ঘষে ধুয়ে নিয়ে ভালো করে মুছে নিতে হবে। এর পর কিছুটা ভ্যাসলিন বা পেট্রোলিয়াম জেলির সঙ্গে কয়েক ফোঁটা পাতি লেবুর রস মিশিয়ে নিতে হবে। এর পর তা পরিষ্কার পায়ে মেখে নিতে হবে। এর পর পায়ে মোজা পরে শুয়ে পড়তে হবে। সকালে উঠে গরম জলে পা ধুয়ে দিন শুরু করতে হবে।  

৪। কলা – কলার ক্রিমও পা ফাটায় ভাল কাজ দেয়। পাকা কলাতে থাকে ভিটামিন এ, বি কমপ্লেক্স। প্রথমে পা ভালো করে ঘষে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এর পর দু’টি পাকা কলা চটকে একটি পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। পাকা কলার এই পেস্ট পায়ের তলায় ভালো করে মাখিয়ে নিতে হবে। পেস্ট লাগানো অবস্থায় ২০ মিনিট রেখে দিতে হবে। তার পর হালকা গরম জলে ভালো করে পা ধুয়ে নিতে হবে। এই পদ্ধতি রোজই অনুসরণ করা যেতে পারে।

৫। অ্যালোভেরা – অ্যালোভেরাও গোড়ালি ফাটা রুখতে ভালো উপকরণ। এতে থাকে ভিটামিন এ, সি এবং ই। গোড়ালি হালকা গরম জল ও সাবান দিয়ে ঘষে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এর পর গোড়ালি ঘষার পাথর দিয়ে গোড়ালি ঘষতে হবে। তার পর বেশি করে অ্যালোভেরার জেল পায়ে লাগিয়ে নিতে হবে। এর পর পায়ে মোজা পরে নিতে পারলে ভালো হয়। তাই রাতে শোওয়ার আগে যদি পুরো পদ্ধতিটি করা যায় তা হলে ভালো। এর পর সকালে উঠে হালকা গরম জলে পা ভালো করে ধুয়ে তার পর দিন শুরু করতে হবে।

পড়তে পারেন – ভিটামিন ই তেল এইভাবে ব্যবহার করলে বয়স দশ বছর কম দেখায়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.