কতটা প্রস্তুত শারীরিক সম্পর্কের জন্য আপনি?

ওয়েবডেস্ক: প্রথমে মনের মধ্যে ভালোলাগা তৈরি হওয়া, এই পর্ব তো বেশ কিছুদিন চলতে থাকে। তার পরে দু’জনের মধ্যে চলতে থাকে কে আগে কাকে বলবে ভালোলাগার কথা। ভালোলাগা তো হল, কিন্তু ভালোলাগার পরে যে সেটা কখন ভালোবাসায় পরিণত হয়ে যায় তা হয়তো অনেকের পক্ষে অনেক সময় বুঝে ওঠা সম্ভব হয় না।

ভালোবাসা মানেই ঘনিষ্ঠতার মাত্রা বেশি, আকর্ষণের টান আরও তীব্র! এ ভাবে চলতে চলতে এক সময় শরীরে ঢেউ ওঠাই স্বাভাবিক। আর এই প্রথম শারীরিক ঘনিষ্ঠতা নিয়ে অনেক মেয়ে দ্বিধা-দ্বন্দে ভুগতে থাকেন।

প্রেমিকের সঙ্গে সম্পর্কটা বিছানা পর্যন্ত টেনে নিয়ে যাওয়া উচিত হবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় যেমন থাকেই, উলটো দিকে মনের মধ্যে সব সময় চলতে থাকে প্রতারিত হওয়ার ভয়।

১। সঙ্গীকে বিশ্বাস করেন তো ?

যে কোনো সম্পর্কেই পারস্পরিক বিশ্বাসের ব্যাপারটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। যদি শুধু ফোন বা ম্যাসেজে আপনাদের কথাবার্তা বা প্রেম হয়ে থাকে, তা হলে সেটাই কিন্তু সব নয়। এখন সাইবার অপরাধের বাড়বাড়ন্তের যুগে বারবার শিরোনামে উঠে আসছে ব্ল্যাকমেলিং বা রিভেঞ্জ পর্নের মতো ঘটনা। তাই আপনার প্রেমিকের সঙ্গে যদি অনলাইনে আলাপ হয়ে থাকে, তা হলে চেষ্টা করুন তাঁর সঙ্গে অন্তত ১টা বছর মিশে তাঁকে আগে চিনতে। কিংবা আপনার পরিচিত এমন কাউকে খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন, যিনি ওঁকেও সাক্ষাতে চেনেন। তাই অন্ধের মতো বিশ্বাস করা একেবারেই ঠিক হবে না। আর বিশ্বাস না থাকলে বিছানায় যাওয়ার কথা ভুলেও ভাববেন না।

২। সময় ও স্থান নির্বাচন ঠিক করে বাছুন

শরীরী চাহিদা মেটানোর জন্য সব সময় এমন জায়গা বেছে নিন, যা আপনার পরিচিত জায়গা, যেখান থেকে আপনি নিরাপদে চট করে বেরিয়ে আসতে পারবেন। কখনোই নির্জন পার্কিং লট বা কোনো অচেনা ফ্ল্যাট অথবা কোনো হোটেলের রুমে শরীরী খেলায় মেতে উঠবেন না, এতে কিন্তু বিপদ অনিবার্য।  

৩। আপনি নিজে সুরক্ষিত তো?

অসুরক্ষিত যৌনতা কিন্তু আপনাকে বিপদে ফেলতে পারে। শারীরিক ঘনিষ্ঠতায় লিপ্ত হওয়ার আগে সঙ্গীকে কন্ডোম ব্যবহার করতে বলুন। অসুরক্ষিত সম্পর্কের কারণে শুধু অপরিকল্পিত গর্ভসঞ্চারই নয়, নানা যৌন রোগেরও সংক্রমণ ঘটতে পারে।

আরও পড়ুন: ব্রেকআপের পরে সোশাল মিডিয়ায় নাই বা করলেন এই ৫টি কাজ

৪। মেনে নিতে পারবেন তো সম্পর্ক না টিকলে ?

শারীরিক সম্পর্ক হওয়ার পরেও সম্পর্ক ভেঙে যেতে পারে এ আর নতুন কিছুই নয়!

তাই নিজেকে বারবার জিজ্ঞেস করুন, সম্পর্ক না টিকলে আপনি মেনে নিতে পারবেন তো? উত্তর যদি ‘না’ হয়, তা হলে সময় নিন।

৫। অপরাধবোধে ভুগবেন না তো?

দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছেন মানে যা ঘটছে তা দু’জনের সম্মতিসাপেক্ষেই ঘটছে। যদি মনে হয়, আপনার দুর্বলতাকে হাতিয়ার করে আপনার সঙ্গী আপনাকে বিছানায় টেনে নিয়ে যেতে চাইছেন, বা প্রাকবৈবাহিক শারীরিক সম্পর্ককে আপনি যদি অপরাধ বা অনৈতিক মনে করেন, তা হলে ভুলেও পুরুষটির ধারেকাছে ঘেঁষার চেষ্টা করবেন না।

 

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here