hair-with-kamegh

ওয়েবডেস্ক: চুল নিয়ে সমস্যা? চুল নিয়ে সমস্যা এখন প্রায় প্রতিটি মানুষের। নয় চুল উঠে যাচ্ছে না হলে বারো মাস চুলে খুশকি, চুলের উজ্জ্বলতা হারিয়ে যাওয়া ইত্যাদি নানা সমস্যা নিয়ে মানুষ জর্জরিত।

 অনেকেই আছেন সময় বাঁচবে আর খাটুনি কমানোর জন্য সেই কথা ভেবে বাজারচলতি বিভিন্ন প্রোডাক্ট ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু সেই সব প্রোডাক্ট ব্যবহার করে আদৌ কী খুব লাভ হয়?

বাজারচলতি বিভিন্ন প্রোডাক্টের ব্যবহার কমিয়ে করে কালমেঘ পাতা দিয়ে চুলের যত্ন নিয়ে একবার দেখবেন নাকি?

আসুন জেনে নেওয়া যাক কী ভাবে চুলের যত্ন নেবেন-

১। ঘন চুল

কে না চায় বলুন তো চুল একটু ঘন হবে। কিন্তু সে আর কোথায়! মাথায় যেটুকু চুল আছে তা যদি দিনের পর দিন ঝরে যায় তা হলে কী আর ঘন চুল হয়। এক্ষেত্রে কালমেঘ পাতার ভূমিকা অনবদ্য।

১০-১২টি কালমেঘ পাতা জলে ধুয়ে রস করে সেই রস মাথার স্ক্যাল্পে এবং চুলে লাগান। ২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩-৪ দিন করুন।

২। চুল পরা কমায়

যদি চুল পড়ে তাহলে একটু কালমেঘ পাতা বেটে নিন ভালো করে। তার সঙ্গে মধু মিশিয়ে প্যাক বানান। সেটি ভালো করে মাথায় লাগান। ১৫-২০ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে ফেলুন। বা কালমেঘ পাতার রস করে তাতেও মধু মিশিয়ে লাগাতে পারেন। এতে নতুন চুল গজাবে। আর চুল হবে ঝলমলে সুন্দর।

৩। নরম চুল

একটু মেথি ভিজিয়ে রাখুন। মেথি ভিজিয়ে নরম হয়ে গেলে, এতে কালমেঘ পাতা মিশিয়ে প্যাক বানান। এর সাথে মেশান ১-২ চামচ লেবুর রস আর ২ চামচ টকদই। প্রথমে চুলে তেল মেখে নিন তার ওপর এই প্যাকটি লাগান। আধঘণ্টা রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করে ফেলুন।

আরও পড়ুন: চুল ভালো রাখতে হলে মেনে চলুন এই পাঁচটি পদ্ধতি

৪। চুলের যত্ন

আধ কাপ কালমেঘ পাতার রস, ৪ চামচ আমলকীর রস, আর ২ চামচ লেবুর রস ভালো করে মেশান। পারলে একটু টকদইও  দিতে পারেন। ভালো করে প্যাকটি বানিয়ে চুলে লাগান। ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। এছাড়াও কালমেঘ পাতা ভালো করে বেটে পেস্ট বানিয়ে চুলে লাগাতে পারেন। এতে খুশকি দূর হবে। চুল হবে ঘন সুন্দর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন