ওয়েবডেস্ক: কোঁকড়ানো চুল বা সমান চুল যেটাই হয়ে থাকুক সবই ঈশ্বরের সৃষ্টি। অনেকেই আছেন কোঁকড়ানো চুল একেবারেই পছন্দ করেন না। সে নাই করতে পারেন। প্রায় বেশিরভাগ মানুষেরই আকর্ষণ থাকে সমান চুলের ওপরে।

কেউ যদি মনে করেন, কোঁকড়ানো চুল না রেখে চুল সমান করিয়ে নেবেন তা করাতেই পারেন। সে ঘরে বসেও করতে পারেন আবার পার্লারে গিয়েও করতে পারেন।

কিন্তু আজকের আলোচনার বিষয়টা একটু আলাদা। কোঁকড়ানো চুল মানেই যে সমস্যা তা কিন্তু নয়, সমান চুলের সমস্যা কোঁকড়ানো চুলের থেকে কোনো অংশে কম নয়।

তবে অনেক সময়, ঠিকমত যত্ন না নেওয়ার জন্য কোঁকড়ানো চুলের মধ্যে একটা জট পড়ার সম্ভাবনা থাকে। এ ছাড়া চুলের মধ্যে রুক্ষ ও শুষ্ক ভাব দেখা যায়। যত্নের অভাবে চুল আঠালো অথবা চটচটে হয়।

আবার অনেক সময় খুব বেশি পরিমাণে চুল উঠতে থাকে।

ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানিয়ে ফেলুন কোঁকড়ানো চুলের কন্ডিশনার। ব্যবহার করেই দেখুন। সব সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন।

তা হলে জেনে নেওয়া যাক চারটি পদ্ধতি সম্পর্কে-

১। ডিম ও অলিভ অয়েল 

উপকরণ 

১টি ডিম, ২ চামচ অলিভ অয়েল

পদ্ধতি 

একটি বাটির মধ্যে ডিম এবং অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে কন্ডিশনার বানিয়ে নিন। এর পরে মাথার স্ক্যাল্প ও চুলে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন। ২০-২৫ মিনিট রেখে শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু করে নিন।

২। লেবুর রস ও নারকেল দুধ 

উপকরণ 

২-৩ চামচ লেবুর রস, ৩-৪ চামচ নারকেল দুধ, ১ চামচ অলিভ অয়েল।

পদ্ধতি 

একটি কাচের বাটির মধ্যে লেবুর রস, নারকেলের দুধ ও অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে নিন। এর পরে মাথার স্ক্যাল্পে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন। ১০ মিনিট রাখলেই যথেষ্ট। শুকিয়ে গেলে হালকা উষ্ণ জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

৩। মধু ও নারকেল দুধ 

উপকরণ 

৩-৪ চামচ মধু, ৬-৭ চামচ নারকেল দুধ।

পদ্ধতি

 মধুর সঙ্গে নারকেলের দুধটা মিশিয়ে কন্ডিশনার বানিয়ে নিন। চুলে ও মাথার স্ক্যাল্পে ১০-১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে শ্যাম্পু করে নিন।

আরও পড়ুন: চারটি ঘরোয়া পদ্ধতিতে পেয়ে যান খুসকি থেকে মুক্তি

৪। কলা ও মধু 

উপকরণ 

১-২টি কলা, ২ চামচ মধু

পদ্ধতি 

প্রথমে কলাটা একটু চটকে নিন। তার পরে কলার সঙ্গে মধু মিশিয়ে কন্ডিশনার বানিয়ে নিন। ১৫-২০ মিনিট চুলে ও স্ক্যাল্পে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে হালকা উষ্ণ জলে ধুয়ে নিন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here