Connect with us

রূপচর্চা

দীর্ঘ সময় মাস্ক পরে ত্বকের ক্ষতি হচ্ছে না তো?

face

খবরঅনলাইন ডেস্ক : প্রতি দিন ঘড়ি পরতে পরতে ত্বকের ওই জায়গার রঙে তফাত হয়ে যায়। ঠিক একই সমস্যা হতে পারে একটানা মাস্ক পরলেও। মাস্ক পরার ফলে ত্বকে কী কী ধরনের সমস্যা হতে পারে, আর তার থেকে বাঁচার উপায়ই বা কী?

ঘামের সমস্যা

মাস্কে নাকমুখ ঢাকা থাকলে গরমকালে ঘাম তো হবেই। সুতির কাপড়ের তৈরি একাধিক স্তরবিশিষ্ট মাস্ক পরতে পারেন। সংক্রমণের উপসর্গ না থাকলে আপাতত বাড়ির ভিতরে মাস্ক পরার দরকার নেই। বাইরে যাওয়ার সময় মনে করে ব্যাগে ওয়েট টিস্যু রাখুন। মুখ ঘেমে গেলেই ফাঁকা জায়গায় হাত স্যানিটাইজ করে টিস্যু দিয়ে ঘাম মুছে নিন।

লালচে ত্বক

সেনসিটিভ ত্বকে মাস্ক পরলে ত্বক লাল হবেই, বা র‍্যাশ বেরোনোর আশঙ্কাও থাকে। অনেক সময় জায়গাটা চুলকোয়, পাতলা সাদা চামড়া উঠতে থাকে। বাড়ি এসে মুখ ফেসওয়াশে ধোয়ার পর ঠান্ডা জল দিন। শেষে অ্যালোভেরা জেল লাগাতে পারেন তাতে ধীরে ধীরে লালচে ভাব কেটে যাবে।

ব্রণর উৎপাত

নাক-মুখ একটানা মাস্ক দিয়ে চেপে ঢেকে রাখার ফলে ওই অংশে খুব ঘাম হয়। যাঁদের ব্রণর ধাত, তাঁদের সমস্যা বেশি। গোটা অংশ ব্রণয় ভরে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে খুব ভালো ফল পাবেন স্পট ট্রিটমেন্টে। ব্রণ নিরাময়ের যে সব ক্রিম ওষুধের দোকানে পাওয়া যায়, তা ব্যবহার করতে পারেন। ঘরোয়া পদ্ধতির মধ্যে  চন্দন বেটে ব্রণর ওপরে লাগান। বাইরে থেকে ফিরে অয়েল-ফ্রি ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে হালকা ধরনের ময়শ্চারাইজার লাগান।

অ্যালার্জি হচ্ছে

মুখে মাস্ক পরলেই যদি জ্বালা করে, চুলকোয়, দানা দানা বেরোয় তা হলে বুঝতে হবে মাস্কের উপাদানটি ত্বকে সহ্য হচ্ছে না। তাই অ্যালার্জি হচ্ছে। মাস্কের ধরন বদলে দেখুন। সব থেকে ভালো সুতির কাপড়ের তৈরি একাধিক স্তর বিশিষ্ট মাস্ক।

ত্বকের রঙ বদল

একটানা কোনো জায়গা চাপা থাকলে সে অংশে রঙের তফাত হবেই। সেটি ঘড়ি বা চটি ইত্যাদি ব্যবহারের সময় বার বারই আমরা দেখেছি। ঠিক তেমনি একটানা মাস্ক পরলে মুখেও একই অবস্থা হবে। মাস্কে ঢাকা থাকা অংশটুকুর রং বাকি অংশের চেয়ে হালকা দেখাবে। কিন্তু মাস্ক পরতেই হবে, এ ক্ষেত্রে উপায় হল পুরো মুখ ঢেকে ফেলা। বাইরে বেরোলে সুতির নরম স্কার্ফ বা ওড়না দিয়ে পুরো মুখ আর মাথা ঢেকে নিন, চোখে পরুন রোদচশমা। কোভিড থেকেও বাঁচবেন, আবার ত্বককেও ক্ষতি হবে না।

বিশেষ টিপস –

১। ভেজা মাস্ক পরবেন না। সংক্রমণ হতে পারে। হতে পারে ত্বকের সমস্যাও। তাই সঙ্গে দু’ তিনটি বাড়তি মাস্ক রাখুন। ভিজে গেলেই বদলে নিন।

২। মাস্ক পরার আগে মুখে শিয়া বাটার, কোকো বাটার, জোজোবা অয়েল – এ রকম কোনো ক্রিম বা ময়শ্চারাইজার মেখে নিন। ত্বক ভালো থাকবে।

৩। মেকআপ না করাই ভালো। এতে ভাইরাস আটকে থাকে। সঙ্গে মুখও খুব ঘামে।

৪। ত্বকের নিয়মিত যত্ন নিতে হবে। ক্লেনজিং, টোনিং, ময়শ্চারাইজিং করতে হবে। অ্যালোভেরা বেসড টোনার আর ময়শ্চারাইজার ত্বকের জন্য খুবই ভালো।

৫। ত্বক জ্বালা করলে বা লাল হলে অই অংশগুলিতে বরফের কমপ্রেস করুন। পাতলা কাপড়ে বরফ মুড়ে নেবেন। আরাম পাবেন।

আরও পড়ুন – বিনা খরচে ত্বকের জেল্লা বাড়ানোর সহজ ৮টি পরামর্শ

জীবন যেমন

মুখের দুর্গন্ধ? দূর করার মোক্ষম ওষুধ বেকিং সোডার এই মিশ্রণ

bad-breath

খবরঅনলাইন ডেস্ক : অনেকেরই মুখে সাংঘাতিক গন্ধ থাকে। ফলে তারা হীনমন্যতায় ভোগে। লোকজনের সঙ্গে ঠিকভাবে মিশতেও ভয় পায়। এটি ভুক্তভোগীকে যেমন বিব্রত করে তেমন আত্মবিশ্বাস কমিয়ে দেওয়ার পক্ষেও যথেষ্ট। মুখে দুর্গন্ধ হয় অনেকগুলি কারণে। কোনোটি সাময়িক কোনোটি দীর্ঘস্থায়ী।

যেমন অনেকক্ষণ জল না খাওয়া, শুকনো মুখ, ভালো করে ব্রাশ না করা এবং পেঁয়াজ বা রসুন বেশি বা কাঁচা খাওয়া এই সব কারণে মুখে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। সমস্যার দ্রুত সমাধানও হয়। জল খেলে, ঠিকমতো দাঁত মাজলে এই গন্ধ চলে যায়। কিন্তু কিছু কারণ আছে যার জন্য গন্ধ যেতে চায় না। সেগুলি অভ্যন্তরীণ কারণ, যেমন মুখের ব্যাকটেরিয়া, টনসিলের সংক্রমণ, পাচনতন্ত্রের সমস্যার কারণে মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে। আবার ধূমপানের জন্যও মুখ থেকে বদ গন্ধ ছাড়ে।

মুখের দুর্গন্ধে ভুগলে কী হবে সমাধান?

এর সমাধান আছে রান্নাঘরেই। এই সমস্যায় মোক্ষম বেকিং সোডা। দুর্গন্ধের প্রধান কারণ উচ্চ অ্যাসিড স্তরকে কমিয়ে দেয় বেকিং সোডা। বেকিং সোডা হল অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, ফলে মুখের ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলে। আবার অ্যাসিড নয় বলে দাঁত, মাড়ি বা হাড়ের কোনো ক্ষতিও করে না।

কী ভাবে ব্যবহার করতে হবে?

বেকিং সোডা এবং টুথপেস্ট
টুথপেস্টের সঙ্গে আধ চা চামচ বেকিং সোডা মিশিয়ে তা ব্রাশে নিয়ে দাঁত ব্রাশ করুন। টানা এক সপ্তাহ ব্যবহার করলেই সুফল মিলবে।

বেকিং সোডা এবং জল

গরম জলে বেকিং সোডা গুলে একটি মাউথওয়াশ তৈরি করুন। জল হালকা ঠান্ডা হলে ৩০ সেকেন্ড থেকে এক মিনিট মুখে রেখে গার্গল করুন। এমন ভাবে কয়েক বার করতে পারলে ভালো হবে। টানা কয়েক দিন এই ভাবে গার্গল করলে খারাপ ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হবে।

দাঁতে হলদে ছোপ পড়ছে? দূর করতে ১০টি ঘরোয়া উপায়

বেকিং এবং নুন

বেকিং সোডার মতো উপকার নুনেও। পিএইচ মাত্রা হ্রাস করে, অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল নুন। এক গ্লাস জলে ১ চা চামচ বেকিং সোডা, ১ চামচ নুন দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিয়মিত এক থেকে দুই মিনিট গার্গল করুন। দুর্গন্ধ দূর না হওয়া পর্যন্ত এটি করে যান।

এই সমস্যা সমাধানে পরের পর্বে থাকবে আরও কিছু টিপ।

পড়ুন – ডাক্তারের চেম্বার থেকে: মুখের দুর্গন্ধের সমস্যা

Continue Reading

জীবন যেমন

বিনা খরচে ত্বকের জেল্লা বাড়ানোর সহজ ৮টি পরামর্শ

face

খবরঅনলাইন ডেস্ক : বিভিন্ন কারণে মন খারাপ হয়। তার প্রভাব পড়ে আমাদের ত্বকে। লকডাউনের কারণে তেমনই শরীর মনে কমবেশি চাপ পড়ার মতো পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি আমরা সকলেই। তার ফল যেটা হচ্ছে, সেই ছাপ পড়ছে আমাদের চেহারায় ত্বকে। উলটো দিক থেকে ত্বক ভালো থাকলে মন ভালো থাকে। আলাদা কনফিডেন্স পাওয়া যায়। তাই একটু সময় বার করে খুব সাধারণ কয়েকটি কাজ নিয়মিত করুন। দেখবেন ত্বকের জেল্লা বাড়বে, সঙ্গে মনও ভালো থাকবে।

১। সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠা –  

দেরি করে ঘুমিয়ে তাড়াতাড়ি ওঠা সম্ভব নয়, কিন্তু যদি সময়মতো শোয়া যায় তা হলে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠা সম্ভব। সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠার সুফল ত্বকের ওপর কিছু তো বর্তায় অবশ্যই।

২। লেবুর জল খাওয়া –

লেবুর রসে থাকে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি। হালকা গরম জলে লেবুর রস মিশিয়ে খাওয়ার অভ্যাস করলে তা ভিতর থেকে শরীরকে পরিষ্কার ও রোগমুক্ত রাখে। তাতে লিভার ভালো থাকে। ফল হল ত্বক দারুণ ঝকঝকে থাকে।

৩। হাঁটা ও অল্প ব্যায়াম

এখন বাইরে বেরোনোর সুযোগ কম। কাজে লাগান ছাদকে। অথবা খুব ভোরে বাড়ির সামনের রাস্তা। ভোর ভোর উঠে হাঁটার অভ্যাস খুব কাজের। সঙ্গে করতে পারেন সাধারণ কিছু ফ্রি হ্যান্ড এক্সারসাইজ।  এতে শরীর ঝরঝরে হবে। বাড়িতে থাকার ফলে হাতে পায়ে লেগে যাওয়া জং ছাড়বে। ব্যায়াম ও হাঁটায় শরীর ঘামবে ও শরীর থেকে টক্সিন বেরিয়ে যাবে। সুতরাং ত্বকের জেল্লাও বাড়বে।

৪। মুখ ধোয়ার অভ্যাস

ঘুম থেকে উঠে দেখবেন মুখমণ্ডলের নানা জায়গা – নাক, কপাল, গাল তেলতেলে হয়ে আছে। এগুলোকে ধুয়ে ফেলতে হবে ঘুম থেকে উঠেই। যে কোনো একটা কোমল ফেসওয়াশ দিয়ে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। তার পর ত্বকের ধরন ও ঋতুর সঙ্গে খাপ খাইয়ে  সিরাম বা ময়শ্চারাইজার মেখে নিন। সারা দিন ত্বক তরতাজা থাকবে।

৫। এক্সফোলিয়েট করুন

প্রত্যেক মানুষেরই ত্বকের ওপরে মৃত কোষ জমে। তাতে ত্বক বিবর্ণ অনুজ্জ্বল দেখায়। সপ্তাহে অন্তত দু’বার ঘরোয়া স্ক্রাব দিয়ে এক্সফোলিয়েট করুন।

৬। ফল ও সবজি খান

শাকসবজি, ফল ত্বক ভালো রাখে। প্রতি দিন ব্রেকফাস্টে যে কোনো একটি ফল বা সবজি খান। কলা খাওয়া যেতে পারে। যে কোনো ফল খাওয়া যায় জুস বানিয়েও। সকালে ব্রেকফাস্টের পর জুস খেলে তা শরীরের যান্ত্রপাতিগুলিকে ভিতর থেকে পরিষ্কার রাখে। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। ত্বক হয় জেল্লাদার।

৭। জল খান

প্রচুর পরিমাণে জল খেলেও শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের সঙ্গে ত্বকও পরিষ্কার থাকে। জেল্লা বাড়ে। জলের অভাবে ত্বক শুকনো লাগে।

৮। পরিমাণমতো ঘুম

অবশ্যই পরিমাণমতো ঘুম প্রত্যেক মানুষের জন্য জরুরি। তাই সাত থেকে আট ঘণ্টা অবশ্যই শরীরকে ঘুমোতে দিতে হবে। তা না হলে ক্লান্তি বোধ বাড়ে, চোখের তলায় কালি পড়ে, ত্বক জেল্লা হারায়।

Continue Reading

রূপচর্চা

মুখ ঢাকা মাস্কে, চরম মন্দা লিপস্টিক ব্যবসায়

ওয়েবডেস্ক: করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে মুখে মুখে মাস্ক। অন্য দিকে লকডাউনের জেরে আগের মতো বাইরে বেরনো অথবা উৎসব-অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ারও পাট চুকেছে। সব মিলিয়ে চরম মন্দার শিকার লিপস্টিক ব্যবসা।

শুধু লিপস্টিক নয়, যে কোনো ধরনের প্রসাধন সামগ্রীতেই এখন আর ততটা টান নেই সাধারণ মানুষের। সাবান, হ্যান্ডওয়াশ বা স্যানিটাইজারটুকু মিললেই অনেকটা স্বস্তি। লকডাউনে আয় হারিয়ে অস্বস্তি বাড়ছে পকেটেও। ফলে সাজুগুজুর দিকে ততটা গুরুত্ব দেওয়ার সময় নেই বিশ্ববাসীর। বিশেষ করে মুখ যখন ঢাকা থাকছে মাস্কে, তখন লিপস্টিক তো নিত্যদিনের তালিকা থেকে অনায়াসেই বাদ পড়েছে।

বাইরে বেরোলেই মাস্ক এখন বাধ্যতামূলক। লকডাউনের নিয়মকানুন আলগা হতেই বিভিন্ন সংস্থা কাজ শুরু করেছে। সেখানেও মাস্ক পরতেই হবে। স্বাভাবিক ভাবেই ন্যূনতম প্রসাধনীতেই কাজ চালিয়ে নিতে হচ্ছে। তবে লিপস্টিকের কদর না থাকলেও আদর বাড়ছে আই-মেকআপের। মাস্কে ঠোঁট ঢাকা থাকলেও চক্ষুসজ্জায় জোর দিচ্ছেন অনেকেই।

প্রসাধন প্রস্ততকারী সংস্থাগুলিও সে দিকেই জোর দিচ্ছে। করোনাভাইরাসে সংক্রমণের যা মতিগতি, তাতে স্পষ্ট ভাবেই বোঝা যাচ্ছে, ভাইরাস যদি নিয়ন্ত্রণেও আসে, মাস্ক এখনই সরবে না মুখ থেকে।

ক্রেতার চাহিদার কথা ভেবে প্রসাধন প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলিও জোর দিচ্ছে আই-লাইনার, মাসকারা অথবা আই-শ্যাডোয়। বর্তমান পরিস্থিতি মেনে নিয়ে ল’অরিয়েল, নাইকার মতো আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলি সেই উদ্যোগই নিচ্ছে।

তবে প্রসাধন শিল্পের সঙ্গে জড়িতদের কথায়, ভারতে আই-মেকআপের কদর বরাবরই বেশি। তাই বলে লিপস্টিকও যথেষ্ট বিকোয়। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, প্রসাধনীর ৩৬ শতাংশ দখল করে রয়েছে আই-মেকআপ, অন্য দিকে ভারতীয় প্রসাধনী বাজারে লিপস্টিকের অংশীদারিত্ব প্রায় ৩২ শতাংশ।

তাঁদের মতে, খুব শীঘ্রই লিপস্টিকের বাজার ফিরে আসবে। আমরা সমাজবদ্ধ জীব। সামাজিকতা কখনই শেষ হওয়ার নয়। কোনো সংকট এলে বিকল্প পথের সন্ধান করে নিতে পারে মানুষ। স্বাভাবিক ভাবেই লিপস্টিক ফিরে আসবেই!

লকডাউনের কারণে বিভিন্ন ব্যবসাতেই নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। তবে ত্বক অথবা চুলের যত্ন নিতে ব্যবহার করা সামগ্রীগুলির বিক্রিবাট্টা অনলাইনে বা খুচরো বাজারে মন্দ নয়। ফলে চলতি বছরের মধ্যেই প্রসাধন ব্যবসা পূর্ণ মহিমায় ফিরে আসবে বলে প্রত্যাশা করছে সংশ্লিষ্ট মহল।

Continue Reading
Advertisement
কলকাতা23 mins ago

শর্ট সার্কিট থেকে আগুন, বেহালায় পুড়ে মৃত্যু মা-মেয়ের

দেশ49 mins ago

করোনা মহামারিতে ‘ফুচকা’র জন্য গলা শুকোচ্ছে? এসে গেল ‘এটিএম’

দেশ1 hour ago

‘আত্মনির্ভর ভারত অ্যাপ ইনোভেশন চ্যালেঞ্জ’ চালু করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

রাজ্য2 hours ago

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড রাজ্যে, সুস্থতাতেও রেকর্ড

দেশ2 hours ago

১৫ আগস্ট? করোনা ভ্যাকসিনের দিনক্ষণ বেঁধে দেওয়া নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করল আইসিএমআর

ক্রিকেট3 hours ago

করোনা পিছু ছাড়ছে না মাশরাফি বিন মুর্তজার

দেশ3 hours ago

পাশের আসনে বসা নেতা করোনা আক্রান্ত! বিহারের মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে উদ্বেগ

LPG
প্রযুক্তি4 hours ago

রান্নার গ্যাসের ভরতুকির টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে কি না, কী ভাবে দেখবেন?

দেশ12 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২২,৭৭১, সুস্থ ১৪,৩৩৫

দেশ1 day ago

দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যায় নতুন রেকর্ড, সুস্থতাতেও রেকর্ড

ক্রিকেট3 days ago

চলে গেলেন ‘থ্রি ডব্লু’-এর শেষ জন স্যার এভার্টন উইকস, শেষ হল একটা অধ্যায়

ক্রিকেট3 days ago

২০১১ বিশ্বকাপ কাণ্ড: জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হল কুমার সঙ্গকারা, মাহেলা জয়বর্ধনকে

কলকাতা10 hours ago

কলকাতায় অতিসংক্রমিত ১৬টি অঞ্চলকে পুরোপুরি সিল করে দেওয়ার প্রস্তুতি

SBI ATM
শিল্প-বাণিজ্য2 days ago

এসবিআই এটিএমে টাকা তোলার নিয়ম বদলে গেল

দেশ2 days ago

‘সবার টিকা লাগবে না, আর পাঁচটা রোগের মতোই চলে যাবে করোনা’, আশ্বাস অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীর

কলকাতা3 days ago

ডাক্তার দিবসে করোনা যোদ্ধাদের সম্মান জানাল সেনকো গোল্ড অ্যান্ড ডায়মন্ডস, পাশে আইএমএ, এনআরএস

নজরে