wedding skincare
আত্রেয়ী রায়

পুজো শেষে দোরগোড়ায় বিয়ের মরসুম। হবু কনে ও তাদের পরিজনরা এখন থেকেই শুরু করে দিয়েছেন তোড়জোড়। শাড়ি-গয়না কেনা, বিয়ের দিনের সাজ, মেনু থেকে শুরু করে নিমন্ত্রণপর্ব, সবই যেন ঠিকভাবে হয়- চলছে তার প্রস্তুতি। আর জানেন নিশ্চয়ই, বিয়ের দিন আকর্ষণীয় দেখানোর জন্য প্রয়োজন সুস্থ ত্বক। এত ব্যস্ততার মাঝেও নিয়ম করে ত্বকের যত্ন নিচ্ছেন তো? নাহলে, আজই রুটিন বানিয়ে ফেলুন। কাজটা সহজ হলেও, আমরা না জেনে অনেক সময় কিছু ভুল করে ফেলি। যার ফলে ত্বকের ক্ষতি হয়। তাই আগে থেকে সাবধান হতে আসুন জেনে নিই ত্বকের যত্ন নেওয়ার সহজ ও নির্ভুল উপায়গুলি-

ক্লিনজিং, টোনিং ও ময়েশ্চারাইজ়িং

ক্লিনজ়িং, টোনিং ও ময়েশ্চারাইজ়িং(CTM) ত্বকের জন্য জরুরি। প্রতিদিন দু’বার করে (একবার দিনে ও একবার রাতে) এই রুটিন মানলে ত্বক সুস্থ থাকে। ভালো করে জেনে তবেই করুন ক্লিনজ়িং, টোনিং ও ময়েশ্চারাইজ়িং। নাহলে, ক্ষতিগ্রস্ত হবে আপনার ত্বক।

হাত পরিষ্কার করা

আমাদের শরীরের সবথেকে অপরিষ্কার অংশ হল হাত। সারাদিন অনেক ধুলোময়লার সংস্পর্শে এসে হাত নোংরা হয়। সেই হাত পরিষ্কার না করেই মুখে ছোঁয়ালে হাতের জীবাণু মুখের ত্বকের ক্ষতি করে। তাই, মুখ পরিষ্কার করার আগে ভালো করে হাত পরিষ্কার করে নিন।

মেকআপ তোলা

বাইরে থেকে ফিরে মুখ থেকে সবরকম মেকআপ তুলে ফেলা উচিত। মেকআপ না পরিষ্কার করলে মুখে তার কিছু অংশ থেকে যায়। বিশেষ করে চোখের মেকআপ ঘেঁটে গিয়ে দেখতে খারাপ লাগে আর ত্বককে শুষ্ক করে তোলে। তাই, প্রথমে ভালো মেকআপ রিমুভার দিয়ে মুখ থেকে মেকআপ তুলে নিন। তারপর, ক্লিনজ়িং করুন।

ক্লিনজার বাছাই

বাজারে নানারকম ক্লিনজ়ার পাওয়া যায়। ক্লিনজ়ার কেনার আগে নিজের ত্বক শুষ্ক না তৈলাক্ত তা জানুন। ত্বকের ধরন বুঝেই ক্লিনজার কিনুন। ত্বকের ধরন জানা না থাকলে সব ধরনের ত্বকের জন্য যে ক্লিনজ়ার পাবেন সেটাই নিন। চেষ্টা করুন সালফেট ও সোপ ফ্রি ক্লিনজ়ার ব্যবহার করতে। প্রাকৃতিক উপাদান থেকে তৈরি ক্লিনজ়ার ত্বকের জন্য ভালো।

এক্সফোলিয়েটিং

এক্সফোলিয়েটর ত্বকের মৃত ও শুষ্ক কোশগুলি পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। ফলে, ত্বক হয়ে ওঠে সতেজ ও মসৃণ। রক্ত চলাচল স্বাভাবিক থাকে। বেছে নিন মৃদু এক্সফোলিয়েটর। সপ্তাহে এক থেকে দু’বার ব্যবহার করুন। আর মাথায় রাখবেন, আলতো হাতে মুখে লাগাতে হয় এক্সফোলিয়েটর। জোরে জোরে ঘষলে উলটো ফল হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি।

প্রোডাক্ট ব্যবহারের সময়কাল

প্রতিটি প্রোডাক্টেরই ত্বকে কাজ করার জন্য কিছুক্ষণ সময় প্রয়োজন হয়। তাই, প্রতিটি প্রোডাক্ট ব্যবহারের পর অন্তত ৬০ সেকেন্ড সময় নিন। তারপর ব্যবহার করুন দ্বিতীয় প্রোডাক্টটি। বিউটি প্রোডাক্টগুলি ঠিকভাবে কাজ করলে ত্বক দেখাবে প্রাণবন্ত। ক্ষতির সম্ভাবনাও অনেক কম হবে।

ময়েশ্চারাইজ়ারের ব্যবহার

মুখ ধোয়ার পর বেশ কিছুক্ষণ ত্বকে ভেজা ভাব থাকে। এই সময় ময়েশ্চারাইজ়ার ব্যবহার করা উচিত। নাহলে ত্বক শুষ্ক হয়ে ওঠে। মুখের জলীয়ভাব শুকিয়ে যাওয়ার পর ময়েশ্চারাইজ়ার ব্যবহার করলে তার কাজ অনেক কঠিন হয়ে যায়।

এছাড়াও অন্য যে বিষয়গুলি মাথায় রাখবেন

  • হালকা গরম বা স্বাভাবিক তাপমাত্রার জল দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন। কারণ,অতিরিক্ত গরম বা অতিরিক্ত ঠান্ডা জল ত্বক সহ্য করতে পারে না। জলের তাপমাত্রা ঠিক না হলে ত্বক শুকিয়ে যায়। ত্বকে নানারকম সমস্যা দেখা যায়।
  • তোয়ালে হালকা করে চেপে চেপে মুখের জল মুছে নিন। অনেকেই তোয়ালে বা গামছা দিয়ে ঘষে ঘষে মুখ মোছেন। যার ফলে মুখে কোঁচকানো ভাব, জ্বালা বা লালচে ছোপের মতো সমস্যা দেখা দেয়।
  • মুখ পরিষ্কার করার সময় অনেকে ভেজা বা নোংরা কাপড় বা স্পঞ্জ ব্যবহার করেন। যাতে অসংখ্য জীবাণু থাকে। তার প্রভাব পড়ে ত্বকে। বিশেষত, যদি ত্বকে কোনও ক্ষত থাকে, তার ফল হয় আরও মারাত্মক। তাই, সবসময় পরিষ্কার কাপড় ব্যবহার করুন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here