বর্ষায় যেমন পোশাকে নিজেকে সাজিয়ে তুলবেন

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এমন ঘনঘোর বরিষায়… গ্রীষ্মের ধুলোময় জীর্ণতাকে ধুয়ে গাঢ় সবুজের সমারোহে প্রকৃতি সেজেছে পূর্ণতায়। এক রাশ সজীবতা আর ফুলের সুবাস নিয়ে হাজির হয় বর্ষাকাল। বৃষ্টির দিনে ভিজে মাটির সোঁদা গন্ধ নাকে এলে বা ধোয়া সবুজ পাতায় চোখ পড়লে মনটা তো একটু কেমন যেন করেই ওঠে। সারা দিনই আকাশ জুড়ে ধূসর মেঘের আনাগোনা আর তার মাঝে প্রকৃতির এই যে বিচিত্র রঙের খেলা এটাই তো বর্ষাঋতুর বৈচিত্র্য। আষাঢ়ের মাঝামাঝি। শ্রাবণ এল বলে। রোদ যতই থাকুক, বৃষ্টি তো আসবেই। আর সময় যে হেতু বর্ষাকাল, আগাম কোনো জানান না দিয়েই দেখা দেবে বৃষ্টি। প্রকৃতির এই রূপ বদলের সঙ্গে সঙ্গে বদলাবে আমাদের সাজপোশাকের ধরন।

দিন দিন ফ্যাশনেবল পোশাক যেমন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে তেমনি ঋতুভেদে কাপড় ও পোশাকও বেশ সচেতনতা নিয়েই পরতে দেখা যাচ্ছে ব্যবহারকারীদের। কখন, কোন আবহাওয়ায় কোন পোশাক পরা হবে তা নিয়ে এখন কোনো লেখারই জনপ্রিয়তায় কমতি নেই। পোশাকের ধরন, স্টাইল, হালচাল, সময়ের ব্যবধান – এই বিষয়গুলো নজর রাখা এবং নিজের পোশাক নির্বাচনে সচেতন তরুণ প্রজন্ম। পোশাকের ক্ষেত্রে অনেকেই রঙকে বেশ গুরুত্ব দিয়ে থাকেন। তাই আমাদের হাল ফ্যাশনে পোশাকের ধরনের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল পোশাকের রঙ।

পোশাকের রং

যাঁরা মোটামুটি ফ্যাশন সচেতন তাঁরা পোশাকের রঙের দিকেও খেয়াল রাখেন। বর্ষায় অনেকেই নীল রঙের পোশাক পরতে পছন্দ করেন। তবে এটা আপনার রূচি আর পছন্দের ওপরেই নির্ভর কবে। তবে প্রকৃতির সঙ্গে মিল রেখে উজ্জ্বল রঙই বেশি ভালো লাগবে। এই যেমন চোখে ভালো লাগার মতো ম্যাজেন্টা, বেগুনি, গাঢ় সবুজ বা কলাপাতা সবুজ, লাল, হলুদ রঙগুলো ভালো লাগবে। বর্ষায় মেঘলা প্রকৃতির সঙ্গে উজ্জ্বল রং বেশি মানায়।

ক্যাজুয়াল লুক

ক্যাজুয়াল লুকের জন্য কেপরি, স্কার্ট, লুজ প্রিন্টেড শার্ট এবং প্যান্ট খুব ভালো। গ্ল্যামারাস লুক পেতে হলে কাফতান, টিউনিক্স, শর্ট ড্রেস খুব সুন্দর লাগবে। এ ছাড়া যাঁরা ড্রেস পরতে অভ্যস্ত নন তাঁদের জন্য রয়েছে বর্ষায় পরার মানানসই শাড়ি যা ভিজে গেলেও সহজে শুকিয়ে নেওয়া যাবে। সিন্থেটিক শাড়ি এই মরশুমে পরার জন্য ‘দ্য বেস্ট’।

Shyamsundar

সুতির পোশাক

যে কোনো আবহাওয়ার জন্য সব চেয়ে উপযুক্ত হল সুতি। বর্ষাকালে মেঘলা আকাশে গুমোট গরমে সুতির পোশাক পরলে যেমন গরম লাগে না, তেমনই ভিজে গেলে তাড়াতাড়ি শুকিয়েও যায়। হাওয়া চলাচল করার কারণে সুতির পোশাক খুবই আরামদায়ক। সুতির পোশাক অফিসে পরার জন্যও বেশ ভালো।

Women's Regular Fashion
কুর্তি সেট । অ্যামাজম এর দাম ৫৯৯ টাকা

ডেনিমের পোশাক

বৃষ্টির সময় ডেনিম অনেক বেশি সুবিধাজনক। গুটিয়ে যেমন নেওয়া যায়, কাদার দাগও বিশেষ বোঝা যায় না। ডেনিম টাফ মেটিরিয়াল হওয়ার কারণে সহজে নষ্টও হয় না।

সিল্কের পোশাক

বর্ষার স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় উপযোগী উজ্জ্বল সিল্ক। ক্রেপ সিল্ক, আর্ট সিল্ক, সেমি-তসর সিল্ক বা কটন মিক্স সিল্ক পরতে পারেন। এই সব ব্লেন্ডেড মেটিরিয়াল খুবই আরামদায়ক। শাড়ি, কুর্তি, টপ,সালোয়ার-কামিজ পাওয়া যায় এই সব কাপড়ের উপর। সিল্কের কাপড় বাতাসে তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়।

যাঁরা শাড়ি পরতে চান, তাঁরা শাড়ির সঙ্গে হাতাকাটা অথবা শর্ট হাতার ব্লাউজ পরতে পারেন। সেটা এই গরমে অনেকটাই আরামদায়ক হবে। রুবিয়া ভয়েল, ক্রেপের কাপড় দিয়ে ব্লাউজ বানাতে পারেন। প্রিন্টের ফুলের নকশা, জ্যামিতিক নকশা, হালকা এবং গাঢ় কয়েক রঙের মিশেলে তৈরি পোশাক পোষাক পরে দেখতে পারেন, আরাম পাবেন।

সিফনের পোশাক

সিফন বা নাইলন বর্ষার দিনে পরার জন্য সব চেয়ে ভালো। ভিজে গেলে এই সব কাপড় সব চেয়ে তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যায়। সিফন টপ, স্কার্ট, শাড়ি, সালোয়ার, কামিজ সব কিছুই পরতে পারেন। যে কোনো অনুষ্ঠানে পুরুষরাও আজকাল সিফন শার্ট পরছেন। বর্ষার দিনে যে কোনো অনুষ্ঠানের জন্যও এই শার্টগুলো খুবই সুবিধাজনক।

বর্ষায় কোন পোশাক এড়িয়ে চলবেন

স্কিন টাইট যে কোনো ধরনের পোশাক এড়িয়ে চলাই ভালো। কারণ বর্ষায় এগুলো ভিজে গেলে তা সেই মুহূর্তে আপনার শারীরিক অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। বর্ষায় কোনো রকম লঙ্ ড্রেস বা সালোয়ার কামিজ না পরাই ভালো। কারণ এই সময় রাস্তাঘাটে ভিজে কাদা হয়ে থাকে, ফলে এই সমস্ত পোশাকে কাদা লাগায় আশঙ্কা অনেকটাই। বৃষ্টির দিনে সব সময় ছাতা ও রেনকোট সঙ্গে রাখুন। এগুলি রাস্তাঘাটে হঠাৎ বৃষ্টির হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে।

অ্যামাজনে কটন কুর্তি সেট দেখতে হলে এখানে ক্লিক করুন

আরও পড়ুন: বর্ষায় পোশাকে ফাঙ্গাস? দূর করতে রইল ৮টি পদ্ধতি

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন