ঘরের বায়ুদূষণ আটকাতে লাগান এই গাছগুলি

0

খবর অনলাইন ডেস্ক : ক্রমশ চারপাশের বায়ুদূষণ বাড়ছে। শুধু বাইরে নয় নানা কারণে ঘরের বায়ুও দূষিত হচ্ছে প্রতি মুহূর্তে। তাই এখন সময় এসেছে সচেতন হওয়ার। সে ক্ষেত্রে ঘরের বারান্দা বা জানলায় রাখা যায় কিছু গাছ। যেগুলি অক্সিজেন তো দেবেই, পাশাপশি ঘরের দূষিত বায়ু শোষণ করবে। অবশ্যই ঘরের সৌন্দর্যও বাড়াবে।

তেমনই ৫টি গাছের খবর রইল এখানে

Loading videos...

১। স্পাইডার প্ল্যান্ট

দু’পাশ সাদা, মাঝখানে সবুজ পাতা, ঘাসের মতো দেখতে। খুব ছোটো ছোটো সাদা ফুল। সরাসরি সূর্যের আলো লাগে না, খুব বেশি পরিচর্যার প্রয়োজন হয় না। মাটি শুকিয়ে গেলে তবেই জল দিতে হয়। টব বা ঝুড়িতে লাগিয়ে মেঝেতে, বা ঝুলিয়ে রাখা যায়। ওয়াল কার্পেটিংও করা যায়। কার্বন মনোক্সাইড, ফর্মালডিহাইড, বেনজিন-সহ বেশ কিছু ক্ষতিকর গ্যাস শোষণ করে। বায়ুদূষণ মুক্ত করে গাছটি।

২। চন্দ্রমল্লিকা

শীতের গাছ। বিভিন্ন রঙের চমৎকার ফুল হয়। জায়গা, দেওয়াল ও মেঝের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ফুলের রং বাছাই করা যায়। চন্দ্রমল্লিকা গাছের যত্ন একটু বেশি নিতে হয়। জল বেরোনোর ভালো ব্যবস্থা, পর্যাপ্ত রোদের ব্যবস্থা থাকতে হবে। তবে সারাদিন সূর্যের আলো ক্ষতি করে। গাছটি রাতের বেলাও অক্সিজেন দেয়, কার্বন ডাই-অক্সাইড শুষে নেয়। গুঁড়ো সাবান, আঠা, রং বা প্লাস্টিক থেকে বেরোনো দূষিত গ্যাস শুষে নেয়।

৩। গোল্ডেন পথোস বা মানিপ্ল্যান্ট

যে কোনো পরিবেশে বেঁচে থাকে গোল্ডেন পথোস বা মানিপ্ল্যান্ট। আলো ছাড়াই বাঁচতে পারে, বেশি যত্নও লাগে না। ঝুড়ি বা ছোটো টবে লাগানো যায়, ঝুলিয়ে রাখা যায়। মাটি ছাড়া জলের মধ্যেও রাখা যায়। ঘরের ভেতরও রাখা যায়। লতানো গাছটি বাতাস থেকে ট্রাইক্লোরোইথিলিন, ফর্মালডিহাইড, বেনজিন, জায়লিন প্রভৃতি দূষিত গ্যাস শোষণ করে, ঘরকে দূষণ মুক্ত করে।

৪। মাদাগাস্কার পেরি উইংকেল বা নয়নতারা

সারা বছরই সুন্দর ফুল দেয় মাদাগাস্কার পেরি উইংকেল বা নয়নতারা। অনেকগুলো রঙের ফুল হয়। ছায়াযুক্ত জায়গায় রাখাই ভালো। জল বেরোনোর ব্যবস্থা ভালো দরকার। ঘরের শোভা বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে  অক্সিজেন সরবরাহ তো করেই, ফলে ঘরের কার্বন ডাই অক্সাইড শুষে নেয়। তা ছাড়া ডায়াবেটিস ও ক্যানসারের ওষুধ বানাতে কাজে লাগে নয়নতারা।

৫। পিস লিলি

বায়ু পরিশোধক আরও একটি গাছ পিস লিলি। সুন্দর সাদা ফুল হয়। অল্প আলোতে ভালো হয়। গাছের পাতায় হলুদ রং ধরলেই বুঝতে হবে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি রোদ পাচ্ছে। নিয়মিত জল দিলেই হবে। পিস লিলি ঘরের বাতাস থেকে ফর্মালডিহাইড, বেনজিন, জায়লিন, ট্রাইক্লোরোইথিলিন, কার্বন ডাই অক্সাইড শুষে নেয়। তবে গাছটি শিশু ও পোষ্য কুকুর, বিড়ালের থেকে নিরাপদ দূরত্বে রাখা উচিত। কারণ কচুগাছের মতো এটি গলায় বা পেটে গেলে চুলকায়।

আরও – বাড়ির টবে শীতের ফুল গাছ? দেখে নিন কার কী যত্ন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.