বন্ধু অথবা সহকর্মী টাকা ধার নিয়ে ফেরত দিচ্ছে না? কী করবেন

0
Money lending
'ফির হেরাফেরি' চলচ্চিত্র থেকে প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: একে অপরের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়ানোই দস্তুর। কিন্তু টাকা-পয়সা খুব নিকটজনকে ধার দিয়ে তা ফেরত পাওয়া অনেক সময় কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। সে ক্ষেত্রে কী করা যেতে পারে? সম্পর্কে যাতে কোনো রকমের আঁচ না লাগে, সে ব্যাপারটা মাথায় রেখেই অবলম্বন করা যেতে পারে এই চারটি কৌশল!

অপেক্ষা দীর্ঘায়িত করবেন না

পরবর্তী স্যালারি পাওয়া পর্যন্ত তাঁকে সময় দেওয়া যেতে পারে। তবে ধার দেওয়ার সময় যদি কোনো সময় বেঁধে দেওয়া না-হয় তা হলে বেতনের টাকা হাতে পাওয়ার আগে তাঁকে অন্তত স্মরণ করিয়ে দেওয়া যেতে পারে টাকা শোধের বিষয়টি। কারণ, এমনও ঘটে থাকে, টাকা ফেরত পাওয়ার আশায় নীরবে যত বেশি অপেক্ষা করা হয়, ততই সম্ভাবনা কমতে থাকতে ধার দেওয়া টাকা ফেরত পাওয়ার। এতে সহকর্মীর সঙ্গে যেমন সম্পর্ক খাপার হতে পারে, তেমনই নিজের কাজের উপরও প্রভাব পড়তে পারে।

সংক্ষিপ্তাকার এবং সরাসরি

একটি বিস্তৃত অনুরোধ তৈরি করবেন না। যেমন একটি দীর্ঘাকার ই-মেল ​​টাইপ করবেন না বা একটি বড়োসড়ো হোয়াটসঅ্যাপ-ফেসবুক বার্তাও পাঠাতে যাবেন না। একটি সহজ, কার্যকর উপায় হল, টাকা ধার নেওয়া বন্ধু /সহকর্মীকে সংক্ষেপে নির্দিষ্ট বার্তা দেওয়া। তাঁকে ধীরে ধীরে মনে করিয়ে দিন, “আমি জানতে চাইছিলাম যে তুমি ঠিক কবে নাগাদ আমার টাকাটা ফেরত দেওয়ার কথা ভেবেছ”? মাথায় রাখবেন, এ ব্যাপারে তাঁর কাছ থেকে ২ বা ৩ মাসের সময়সীমা মোটেই নেবেন না। নির্দিষ্ট দিন-তারিখ জেনে নিন। সেই তারিখ অতিক্রান্ত হলে পরবর্তী তারিখ নির্দিষ্ট করতে বলুন। কিন্তু মাসখানেক বা মাসদুয়েকের গল্পে যাওয়া যাবে না।

সরলীকরণ

ব্যাপারটা এমনও হতে পারে টাকা ধার নেওয়া বন্ধু / সহকর্মী সত্যিই সমস্যায় পড়েছেন। আপনার কাছ থেকে ধার নেওয়া টাকা এক সঙ্গে ফেরত দিতে তাঁর অসুবিধা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে মাসের স্যালারি পাওয়ার পর নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা ধাপে ধাপে শোধ করার সুযোগ তাঁকে দেওয়া যেতে পারে। এ ব্যাপারে ভিন্ন পথও ধরা যেতে পারে। তাঁর আগ্রহ বাড়াতে আপনি মোবাইল ওয়ালেট বা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা ট্রান্সফারের কথা তাঁকে বলে দেখতে পারেন। যা পুরো বিষয়টাকে একটি নির্দিষ্ট নিয়মের মধ্যে নিয়ে আসতে সাহায্য করবে।

নিজের জরুরি অবস্থা

নিজের আর্থিক টানাটানির কথা ধার দেওয়া বন্ধু / সহকর্মীকে জানানোর চেষ্টা করুন। সেটা যে কোনো কারণকে সামনে রেখে আর্থিক সংকট হতে পারে। হতে পারে চিকিৎসার খরচ, হতে পারে পারিবারিক কোনো বড়োসড়ো দায়বদ্ধতার কারণ। তবে হ্যাঁ, এই ক্ষেত্রে আপনাকে নিতে হবে একটি বিশেষ কৌশল। নিজের সংকটের কথা আলাদা ভাবে ধার নেওয়া বন্ধু বা সহকর্মীকে নয়, সবার সামনেই বলতে হবে। প্রয়োজনে অন্য কারও কাছ থেকে ধার নেওয়ার কথাও তুলতে হবে।

এটাও মানতে হবে- বাংলায় ‘কানকাটা’ বলে একটা কথাও রয়েছে!

আরও পড়ুন: টাকা দিয়ে কি সুখ কেনা যায়? যাচাই করে নিন এই ৫টি পদ্ধতিতে

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here