শীতকালে কী ভাবে শুষ্ক ত্বকে প্রাণ ফিরিয়ে আনবেন জেনে নিন

ওয়েবডেস্ক: শীতকাল নিয়ে আমাদের আগ্রহের শেষ নেই। তবে এই ঋতু-ই, আমাদেরকে সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বনায় ফেলে। ভাবছেন কেন? কেন আবার, ত্বকের অনুজ্জ্বলতা থেকে গা, হাত-পা ফাটা, সবই ঘটে এই ঋতুতে।

তাই কী ভাবে শীতকালে নিজের ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনবেন কিংবা ত্বকের যত্ন নেবেন বরং জেনে নেওয়া যাক সেই ৪টি ফেসপ্যাক সম্পর্কে।

১। ত্বকের উজ্জ্বলতায় কাঁচা দুধ

সুন্দর এবং স্বাস্থ্যোজ্জ্বল ত্বক পেতে কাঁচা দুধের কোনো বিকল্প নেই। কাঁচা দুধে আছে প্রচুর পরিমাণে ময়েশ্চারাইজার যা আমাদের ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে।

উপকরণ

১. কাঁচা দুধ ১ চামচ

২. বেসন ১ চামচ

৩. চালের গুঁড়ো ১ চামচ

৪. মধু ১ চামচ

ব্যবহার-

১. একটি কাচের বাটিতে ১ চামচ কাঁচা দুধ, বেসন, চালের গুঁড়ো এবং মধু নিয়ে ভালোভাবে ফেটিয়ে নিন অর্থাৎ পেস্ট তৈরি করুন।

২. এবার পেস্ট-টিকে, মুখে খুব ভালোভাবে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন।

৩. ১৫ মিনিট পরে, মিশ্রণটি লাগানো অবস্থায়, হাতের আঙুল দিয়ে ক্লকওয়াইজ এবং অ্যান্টি-ক্লকওয়াইজ ভাবে হালকা করে ম্যাসাজ করুন।

৪. এ বারে হালকা গরম জলে মুখটি ভালোভাবে ধুয়ে নিন এবং দেখুন কাঁচা দুধের জাদু।

২। বলি রেখায় গাজর

গাজরে বিটা-ক্যারোটিনের উপস্থিতিই মুখের বলিরেখা দূর করতে সাহায্য করে। চলুন জেনে নিই গাজরের এই ফেসপ্যাকটি সম্পর্কে।

উপকরণ

১.অর্ধেক পরিমাণ গাজর

২. মধু ১ চামচ

৩.টকদই ১ চামচ

ব্যবহার-

১. প্রথমেই অর্ধেক পরিমাণ গাজরকে ভালো করে পেস্ট করে নিন।

২. এ বার, একটি কাচের বাটিতে ওই পেস্ট থেকে এক চামচ নিয়ে, মধু এবং টক দই খুব ভালোভাবে মেশান।

৩. মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে, খুব যত্ন সহকারে মুখে লাগান।

৪. ৮ -১০ মিনিট পরে মুখটি হালকা গরম জলে ধুয়ে নিন।

৫.সপ্তাহে ৩ দিন এই প্যাকটি ব্যবহার করুন এবং নিজের মুখের পরিবর্তন নিজেই লক্ষ্য করুন।

আরও পড়ুন: কনুইয়ে কালো দাগ? এই ৫টি ঘরোয়া পদ্ধতিতে চটজলদি দূর করুন

৩। রুক্ষ ত্বকে পাকা পেঁপে

ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা কেবলমাত্র পাকা পেঁপেতেই থাকে। তা ছাড়া পেঁপেতে আছে প্যাপাইন নামক এক ধরনের এনজাইম, যা মুখের লোমকূপে-এ জমে থাকা ময়লা দূর করতে সাহায্য করে।

উপকরণ

১.পাকা পেঁপে পরিমাণ মতন

২. ১ চামচ কাঁচা দুধ

৩. ১ চামচ অলিভ অয়েল

৪. ১ চামচ আমন্ড অয়েল

ব্যবহার-

১. ভালো করে পাকা পেঁপেটিকে প্রথমে পেস্ট করে নিন।

২. এ বার, একটি কাচের বাটিতে ওই পেস্ট থেকে ৩ চামচ নিয়ে, সঙ্গে কাঁচা দুধ, অলিভ অয়েল এবং আমন্ড অয়েল  পরিমাণমতো মেশান।

৩. মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে, খুব যত্ন নিয়ে হাতের আঙ্গুলের সাহায্যে, প্রলেপ আকারে মুখে লাগান।

৪. ঠিক ১০ মিনিট পরে মুখটিতে, ক্লকওয়াইজ এবং অ্যান্টি-ক্লকওয়াইজ ভাবে হালকা করে ম্যাসেজ করুন। হালকা গরম জলে ধুয়ে ফেলুন।

৫. সপ্তাহে ২ দিন নিয়ম করে এই প্যাকটি ব্যবহার করুন এবং দেখুন পাকা পেপের কামাল।

৪। তৈলাক্ত ত্বকে কমলালেবুর খোসা

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কমলালেবু হল প্রাকৃতিক ব্লিচ। কিন্তু আপনি জানেন কি, এই লেবুর খোসার ব্যবহার কী ভাবে আপনার তৈলাক্ত ত্বককে সুন্দর এবং সতেজ রাখে?

উপকরণ

১. কমলালেবুর খোসা পরিমাণমতো

২. নিম পাতা পরিমাণমতো

৩. মধু ১ চামচ

৪. মুলতানি মাটির গুঁড়ো ১ চামচ

৫.  হাফ চামচ হলুদের গুঁড়ো

ব্যবহার-

১. প্রথমে পরিমাণ মতো কমলালেবুর খোসা নিয়ে, রোদ্দুরে ভালো করে শুকিয়ে নিন।

২. তার পরে শুকনো খোসাগুলিকে মিক্সার ব্লেন্ডার-এর মাধ্যমে গুঁড়ো করে নিন।

৩. এ বারে, পরিমাণ মতো নিম পাতা নিয়ে যত্ন সহকারে পেস্ট করে নিন।

৪. এখন, কমলালেবুর খোসার গুঁড়ো ২ চামচ, নিম পাতা পেস্ট ১  চামচ, মধু ১ চামচ এবং মুলতানি মাটির গুঁড়ো ও হলুদের গুঁড়ো উপরিক্ত পরিমাণ, একটি কাচের বাটিতে ভালো করে মিশিয়ে নিন। ব্যস, আপনার প্যাক তৈরি।

৫. এ বারে আপনার মুখ ভালো করে হালকা গরম জলে ধুয়ে, কাচের বাটির প্যাকটি, প্রলেপ আকারে লাগিয়ে নিন।

৬. ঠিক ১০ মিনিট অপেক্ষা করুন।

৭. ১০ মিনিট পরে আপনার মুখ, ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিন। দেখুন তো, মুখের কোনও পরিবর্তন আপনি লক্ষ্য করছেন কি না ?

৮. সপ্তাহে ২ দিন, অবশ্যই এই প্যাকটি ব্যবহার করুন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here