মকরসংক্রান্তি তে বানান ক্ষীর নারকেলের পাটি সাপটা

patisapta
ramnarayandas
রাম নারায়ণ দাস

মকর সংক্রান্তি মানেই পিঠে পাটি সাপটার গন্ধ আর পেট ভরে খাওয়া দাওয়া। নবান্ন বা পৌষসংক্রান্তির উৎসব তো অপূর্ণ থেকে যায় যদি পাটি সাপটা খাওয়া না হয়। তাই কি না? তাই এখানে রইল পাটি সাপটা বানানোর সহজ পদ্ধতি। প্রথমে দেখে নেব উপকরণ কী কী লাগবে।

উপকরণ –

ব্যাটার বানানোর জন্য লাগবে –

চালগুঁড়ো – দু’ হাতা

ময়দা – আধ হাতা

নুন – স্বাদ মতো

জল – পরিমাণ মতো

পুর বানানোর জন্য লাগবে –

নারকেল কোড়া – আধ মালা

পাটালি গুড় – ১০০ গ্রাম

কাজু বাদাম গুঁড়ো – ২৫ গ্রাম

কিসমিস – ২৫ গ্রাম

ছোটো এলাচ গুঁড়ো – সামান্য

অল্প বেগুন থাকা একটি বেগুনের ডাঁটি

সরষের তেল – সামান্য

পদ্ধতি –

প্রথমে ব্যাটার বানিয়ে নিতে হবে। তার জন্য জলের মধ্যে চাল গুঁড়ো, স্বাদ মতো নুন আর ময়দা নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে একটি মাঝারি ঘন ব্যাটার তৈরি করে রাখতে হবে।

এ বার পুর তৈরি করতে হবে। পুর তৈরির জন্য প্রথমে কড়াইতে সামান্য পরিমাণ জল দিয়ে তাতে নারকেল কোড়া, পাটালি গুড় দিয়ে নাড়তে থাকতে হবে। কিছুক্ষণ নাড়ার পর গুড়টা গলে গেলে কাজু,  কিসমিস দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নামিয়ে নিতে হবে। এর পর এলাচ গুঁড়ো ছড়িয়ে চাপা দিয়ে রাখতে হবে পাঁচ থেকে দশ মিনিট।

এর পর একটি তাওয়া গরম করে তাতে বেগুনের ডাটির সাহায্যে সরষের তেল মাখিয়ে নিতে হবে। তার পর ব্যাটারটি হাতায় করে তুলে তাওয়ায় দিতে হবে। দিয়ে গোল আকৃতির পরটার মতো করতে হবে। তার ওপর মাঝ বরাবর নারকেলের পুড় দিয়ে দু’পাশ থেকে মুড়িয়ে নিয়ে তুলতে হবে। তবে তার আগে মোড়ানো পাটি সাপটাটি খোলা দু’ পাশ ভালো করে চেপে দিতে হবে। ব্যাস তৈরি গরম গরম পাটি সাপটা।

তবে নারকেলের বদলে ক্ষীর এবং জলের বদলে দু’ বারই দুধ ব্যবহার করা যেতে পারে। সেক্ষেত্রে পরিমাণ একই থাকবে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.