Connect with us

মকর-সংক্রান্তির খবর

সাগরমেলা নয়, মকরের সময় প্রাকৃতিক কারণেই রাজ্য জুড়ে প্রবল শীত

Published

on

শ্রয়ণ সেন[/caption] সকালে একটু হাঁটতে বেরিয়েছি। বাইরে প্রবল উত্তুরে হাওয়া। বাড়ির কেয়ারটেকার বলে উঠলেন, “ক’দিন ধরেই তো মেলার হাওয়া ছেড়েছে। তাই খুব ঠান্ডা। মেলা যত আসবে, ঠান্ডা আরও বাড়বে।” অফিস আসছি। বাসে দুই যাত্রীর কথোপকথন, -“দেখেছেন কী রকম ঠান্ডা পড়েছে?” -“ঠান্ডা পড়বে না! সাগরমেলা তো চলে এল।” অন্য বারের থেকে এ বার অনেক বেশি ঠান্ডা পড়েছে। হিমালয় থেকে প্রবল উত্তুরে হাওয়ার হাত ধরে তাপমাত্রা ক্রমশ নিম্নমুখী। কলকাতার তাপমাত্রা থাকছে দশের কোঠায়। পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে তাপমাত্রা নেমে গিয়েছে দশের নীচে। তবে সাধারণ মানুষ মনে করেন গঙ্গাসাগর মেলার জন্যই শীত এসেছে। এটা আজ বলে নয়, সব সময় পৌষ সংক্রান্তিতে ঠান্ডা পড়লেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে সাগরমেলা। মানুষের স্মৃতি বড়োই দুর্বল! বেশি দূর নয়, ২০১৬ সালের তাপমাত্রার পরিসংখ্যান দেখলেই জানা যাবে পৌষসংক্রান্তির দিন তাপমাত্রা ছিল ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। এ বার যখন পৌষ সংক্রান্তি এল এবং ঠান্ডা পড়ল, ঘুরে ফিরে সেই সাগরমেলার প্রসঙ্গই টেনে আনা হল। কিন্তু আদৌ কি শীতের সঙ্গে সাগরমেলা বা ‘সাগরের হাওয়ার’ সম্পর্ক রয়েছে? না, একেবারেই না। শীত পড়েছে প্রাকৃতিক কারণে। এর সঙ্গে সাগরমেলার কোনো সম্পর্ক নেই। আর সাগরের হাওয়ার সঙ্গে তো আরওই কোনো সম্পর্ক নেই। কারণ প্রকৃত অর্থে সাগরের হাওয়া বইতে শুরু করলে শীতের দফারফা হয়ে যেত। সাগর থেকে যে হাওয়া বয় সেটা জলীয় বাষ্পে ভরা উষ্ণ দখিনা বাতাস। শীত পড়ে কনেকনে উত্তুরে হাওয়ার দৌলতে। এই উত্তুরে হাওয়াকে সরিয়ে দখিনা হাওয়া বইতে শুরু করলে তাপমাত্রা বাড়ত বই কমত না। তবে সাগরমেলা যত এগিয়ে আসছে তাপমাত্রা কিছুটা ঊর্ধ্বমুখীই হচ্ছে। গত কয়েক দিনের তুলনায় বৃহস্পতিবার কলকাতার তাপমাত্রা কিছুটা বেড়ে হয়েছে ১১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যদিও এই তাপমাত্রাও স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি কম, এবং গত কয়েক বছরের রেকর্ড ধরলে, এটাও খুব ঠান্ডার তকমাই পাবে। তবে গত কয়েক দিন যা খেল দেখাচ্ছিল তাপমাত্রা, তার থেকে কিছুটা বেশিই। তবে দমদমের তাপমাত্রা বৃহস্পতিবারও ছিল ন’ডিগ্রির নীচে। সেখানে পারদ এ দিন ছিল ৮.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দিঘা এবং ডায়মন্ড হারবারে তাপমাত্রা কিছুটা বেড়ে দশ ডিগ্রির ঘরে ঢুকেছে। শ্রীনিকেতন এবং পানাগড়ে এ দিন তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৬.৭ এবং ৬.৮ ডিগ্রি। বহরমপুর, বাঁকুড়া এবং কৃষ্ণনগরেও তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করছে ৭ থেকে ৯ ডিগ্রির মধ্যে। উত্তরবঙ্গে কিছুটা বেড়েছে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। শিলিগুড়ি এবং জলপাইগুড়িতে এ দিন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল যথাক্রমে ৯ এবং ৮.৮ ডিগ্রি। তুলনায় অনেক বেশি ঠান্ডা ছিল কোচবিহার। সেখানে এ দিন তাপমাত্রা ছিল ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আপাতত যা পূর্বাভাস, তাতে কলকাতা-তথা সমগ্র দক্ষিণবঙ্গে আগামী অন্তত দশ দিন শীতের প্রকোপ বজায় থাকছে। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যদিও এক’দু ডিগ্রি বাড়তে পারে। অন্য দিকে উত্তরবঙ্গেও দশ ডিগ্রির আশেপাশেই ঘোরাফেরা করবে তাপমাত্রা। অতএব শীত আপাতত থাকছে। রবিবার মকর সংক্রান্তির দিন শীতের মিঠে রোদে পিঠ দিয়ে পিঠেপুলি উৎসবে মেতে উঠুন রাজ্যবাসী।]]>

মকর-সংক্রান্তির খবর

টুসু বিসর্জনের পর বাঁকুড়া জেলার বহু জায়গায় মকরের মেলার ধুম

বাঁকুড়া:চোখের জলে টুসুকে বিদায় দিল জেলাবাসী। মকর সংক্রান্তির আগের দিন সারা রাত জেগে টুসু জাগরণ পুণ্যস্নান শেষ। এখন জেলার বিভিন্ন জায়গা মেতে উঠেছে নানা মেলায়। টুসু উৎসব মূলত বাঁকুড়া জেলার লোকসংস্কৃতির এক অঙ্গ। এখানে টুসু ঘরের মেয়ে। মূলত এটি মেয়েদের একটি ব্রত। অগ্রহায়ণ সংক্রান্তি থেকে পয়লা মাঘ পর্যন্ত চলে এই ব্রত পালন। অগ্রহায়ণ সংক্রান্তিতে টুসু ঘট […]

Published

on

pirbaba mela, akui
indrani sen

ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া:চোখের জলে টুসুকে বিদায় দিল জেলাবাসী। মকর সংক্রান্তির আগের দিন সারা রাত জেগে টুসু জাগরণ পুণ্যস্নান শেষ। এখন জেলার বিভিন্ন জায়গা মেতে উঠেছে নানা মেলায়।

Loading videos...

টুসু উৎসব মূলত বাঁকুড়া জেলার লোকসংস্কৃতির এক অঙ্গ। এখানে টুসু ঘরের মেয়ে। মূলত এটি মেয়েদের একটি ব্রত। অগ্রহায়ণ সংক্রান্তি থেকে পয়লা মাঘ পর্যন্ত চলে এই ব্রত পালন। অগ্রহায়ণ সংক্রান্তিতে টুসু ঘট বা মূর্তি স্থাপন করা হয়। এর পর এক মাস চলে সন্ধ্যারতি ও গান। মেয়েরাই এই কাজ করে সম্মিলিত ভাবে। পৌষ সংক্রান্তির আগের দিন হল জাগরণ। পৌষ সংক্রান্তি বা মকর সংক্রান্তিতে টুসুর ভাসান বা বিসর্জন। এ দিন দলবেঁধে টুসুর বিসর্জন দেওয়া হয় জলাশয় বা নদীতে। তার পর মূর্তি ও চৌডল বিসর্জন দিয়ে নতুন জামা কাপড় পরে পিঠে-পুলি খেয়ে মকর পরবের সমাপ্তি ঘটে। এর সঙ্গে সঙ্গেই জেলা জুড়ে সূচনা হয় মেলা আর পৌষ পার্বণের। নতুন জামাকাপড়, নতুন চাল আর খেজুর গুড়ের গন্ধ জানান দেয় পিঠে সংক্রান্তির।

আরও পড়ুন গরামপুজো দিয়েই শুরু হল কুড়মি ও মূলবাসী সম্প্রদায়ের নববর্ষ

টুসু নিয়ে বিভিন্ন জনশ্রুতি রয়েছে। বিশিষ্ট গবেষক ও শিক্ষক সৌমেন রক্ষিত বলেন, “টুসু নিয়ে একাধিক কাহিনি প্রচলিত রয়েছে। পরকুলে বা দক্ষিণ বাঁকুড়ায় টুসু নিয়ে প্রচলিত লোকগাথা হল রাজনন্দিনী টুসু নতুন বৌ হয়ে পালকি চড়ে পতিগৃহে যাচ্ছিলেন পথে মুসলমান সেনারা তাঁর স্বামীকে হত্যা করে তাঁকে অধিকার করতে চেয়েছিল। টুসু আপন সতীত্ব রক্ষার্থে নিকটবর্তী নদীতে ঝাঁপ দেয়। টুসুর এই আত্মবিসর্জনের দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে পৌষ সংক্রান্তির দিন পরকুলের রাজা সেখানে টুসুমেলার আয়োজন করেন।” সৌমেনবাবু  আরও বলেন, অনেকেই টুসুকে শস্যের দেবী বলে মনে করেন। তাই শীতকালীন শস্য বাড়িতে উঠে এলে কৃষকেরা আনন্দে এই দেবীর পুজো করেন। আবার টুসু শব্দের অর্থ পুতুল (মুন্ডারী ভাষায়)। আদতে টুসু হল সাধারণ মানুষের উৎসব। টুসু রাজনন্দিনীই হোন, কিংবা শস্যের দেবী, তাঁর আগমন যে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষগুলোর ঘরে ঘরে আনন্দ নিয়ে আসে, তাতে সন্দেহ নেই।

parkul mela

পরকুল মেলা।

অন্য দিকে মকর সংক্রান্তি উপলক্ষ্যে জেলা জুড়ে বিভিন্ন মেলার সূচনা হয়, যার মধ্য অন্যতম হল ইন্দাসের আকুই গ্রামে রানার জাত বা পীরবাবার মেলা। শতাব্দী প্রাচীন এই মেলা শুরুর ইতিহাস আজও অজানা বর্তমান প্রজন্মের কাছে। রানার পুকুরে টুসু ভাসিয়ে মকর চান করে বুড়ো পীরের কাছে পুজো দেন ভক্তরা। সত্যপীরের পুজোর জন্য স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বাতাসা, পাটালি, ধূপ, মাটির ঘোড়ার পসরা নিয়ে বসে থাকেন। একে শিন্নি বলে। সত্যপীরের কাছে ঘোড়া দেওয়ার নিয়ম। সাথে করে বাড়ির ঠাকুরের জন্য ও অনেক মানুষ জোড়া মাটির ঘোড়া কিনে আনেন।

indas mela

ইন্দাস মেলা।

পাশাপাশি ইন্দাসেও চলছে বাঁকুড়ারায়ের কুড়চি মেলা। ইন্দাস পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ফরিদা খাতুন বলেন, সংক্রান্তির দিন থেকে ছয় দিন ধরে চলবে এই মেলা। মেলা উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হবে। জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সমস্ত সম্প্রদায়ের মানুষ এই মেলাতে অংশ নেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

Continue Reading

মকর-সংক্রান্তির খবর

সাগরমেলা উপলক্ষ্যে বিশেষ ট্রেন পূর্ব রেলের, জানুন বিস্তারিত

ওয়েবডেস্ক: গঙ্গাসাগর মেলা উপলক্ষ্যে একাধিক বিশেষ ট্রেন ঘোষণা করেছে পূর্ব রেল। শনিবার থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত এই শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় এই বিশেষ ট্রেনগুলি চলবে। পূর্ব রেল সূত্রে খবর, এই দিনগুলিতে ১২টা মেলা স্পেশাল গ্যালোপিং লোকাল ট্রেন চালানো হবে। এর মধ্যে কিছু ট্রেন ছাড়বে কলকাতা স্টেশন থেকে, বাকিগুলি শিয়ালদহ থেকে। কলকাতা থেকে ছাড়া ট্রেনগুলি প্রিন্সেপ ঘাটেও দাঁড়াবে। […]

Published

on

Bandel Local

ওয়েবডেস্ক: গঙ্গাসাগর মেলা উপলক্ষ্যে একাধিক বিশেষ ট্রেন ঘোষণা করেছে পূর্ব রেল। শনিবার থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত এই শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায় এই বিশেষ ট্রেনগুলি চলবে।

পূর্ব রেল সূত্রে খবর, এই দিনগুলিতে ১২টা মেলা স্পেশাল গ্যালোপিং লোকাল ট্রেন চালানো হবে। এর মধ্যে কিছু ট্রেন ছাড়বে কলকাতা স্টেশন থেকে, বাকিগুলি শিয়ালদহ থেকে। কলকাতা থেকে ছাড়া ট্রেনগুলি প্রিন্সেপ ঘাটেও দাঁড়াবে। অন্য দিকে শিয়ালদহ থেকে ছাড়া ট্রেনগুলি দাঁড়াবে বালিগঞ্জ, সোনারপুর, বারুইপুর, লক্ষ্মীকান্তপুর, নিশ্চিন্দাপুর এবং কাকদ্বীপে। পাশাপাশি শিয়ালদহ-বালিয়া এক্সপ্রেস এবং শিয়ালদহ-দ্বারভাঙ্গা এক্সপ্রেসে একটি করে বাড়তি সাধারণ দ্বিতীয় শ্রেণির বগি জুড়ে দেওয়া হবে।

Loading videos...
আরও পড়ুন শীতের দাপট অব্যাহত থাকলেও মকর নিয়ে সংশয়

মেলার দিনগুলোয় নামখানা এবং কাকদ্বীপ স্টেশনে ২৪ ঘণ্টা পানীয় জল পরিষেবারও ব্যবস্থা করা হচ্ছে। যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের  জন্য কাকদ্বীপে পাঁচটা এবং নামখানার চারটে বাড়তি টিকিট কাউন্টার তৈরি করা হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে এই দু’টি স্টেশনে প্রচুর সিসিটিভির ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়াও ‘মে আই হেল্প ইউ’ বুথেরও ব্যবস্থা করছে রেল।

এ ছাড়াও শিয়ালদহ, কাকদ্বীপ এবং নামখানা স্টেশনে বিশেষ অ্যাম্বুল্যান্স পরিষেবারও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Continue Reading

মকর-সংক্রান্তি

গঙ্গাসাগরের আমূল পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, গঙ্গাসাগর: সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর এক বার। এখন সে কথা অতীত। গঙ্গাসাগরের আমূল পরিবর্তনে এখন চেনাই যাচ্ছে না কয়েক বছর আগের গঙ্গাসাগরকে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য্যের হাত ধরে এখানে গঠন করা হয়েছে, গঙ্গাসাগর-বকখালি উন্নয়ন পর্ষদ। এই পর্ষদের তত্ত্বাবধানেই উন্নয়নের কাজ চলছে জোরকদমে। গত বছর গঙ্গাসাগর পরিদর্শনে এসে সাগর সঙ্গমে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন, গঙ্গাসাগরকে […]

Published

on

GangaSagar

উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়, গঙ্গাসাগর: সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর এক বার। এখন সে কথা অতীত। গঙ্গাসাগরের আমূল পরিবর্তনে এখন চেনাই যাচ্ছে না কয়েক বছর আগের গঙ্গাসাগরকে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য্যের হাত ধরে এখানে গঠন করা হয়েছে, গঙ্গাসাগর-বকখালি উন্নয়ন পর্ষদ। এই পর্ষদের তত্ত্বাবধানেই উন্নয়নের কাজ চলছে জোরকদমে।

গত বছর গঙ্গাসাগর পরিদর্শনে এসে সাগর সঙ্গমে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন, গঙ্গাসাগরকে পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত করার পরিকল্পনা আছে তাঁর। সমুদ্রতটে ২৭ কিলোমিটার বিস্তৃত এলাকায় সৌন্দর্যায়ণের নির্দেশও দিয়েছিলেন। তার পর জেলাশাসকের তৎপরতায় আমূল বদলে দিয়েছে গঙ্গাসাগর। পালটে যাচ্ছে গঙ্গাসাগরের অর্থনীতি, জনজীবনও।

Loading videos...

আরও পড়ুন : মকর সংক্রান্তি মানে পৌষ পার্বণ, তাই শিখে নিন নবান্ন তৈরির পদ্ধতি

প্রাক্তন বিদ্যুৎমন্ত্রী মনীষ গুপ্তের হাত ধরে সাগরের রুদ্রনগরে বিদ্যুতের সাব স্টেশন তৈরি হয়েছে। সাগরবাসী এখন ২৪ ঘণ্টাই বিদ্যুৎ পরিষেবা পাচ্ছে। বর্তমানে এই পরিষেবার আরও অগ্রগতি হয়েছে।

তৈরি হয়েছে বেশ কিছু স্থায়ী আবাসন। মুখ্যমন্ত্রীর চোখ দিয়ে গঙ্গাসাগর এখন বিশ্বমাঝে একটি পর্যটনকেন্দ্রে রূপান্তরিত হয়েছে। কচুবেড়িয়া থেকে সাগরদ্বীপ পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার রাস্তাকে (দু’লেনের) ঝাঁ চকচকে করে চওড়া পিচের রাস্তা করা হয়েছে। প্রচুর গাড়ি চলাচল করছে। রাস্তার দু’পাশে বসানো হয়েছে ত্রিফলা বাতিস্তম্ভ।

কপিলমুনির আশ্রম আলোকসজ্জায় সেজে উঠেছে। লক্ষ লক্ষ মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন এখানে। মেলাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে বসানো হয়েছে ড্রাম, ড্রাম্পিং গ্রাউন্ড। নদী তীরবর্তী এলাকায় বসানো হয়েছে ওয়াচটাওয়ার।

আরও পড়ুন : মকরসংক্রান্তি তে বানান ক্ষীর নারকেলের পাটি সাপটা

কপিলমুনির মন্দিরে জ্ঞানদাস মহান্ত জানালেন, এ বছর মকর সংক্রান্তির পূণ্যস্নান ১৪ জানুয়ারি সকাল ৯টা ১৫ থেকে পরের দিন ১৫ জানুয়ারি সকাল ১০ পর্যন্ত করা যাবে। গত ৭ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক ভাবে মেলার উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। মেলা চলাকালীন বেশ কয়েক জন মন্ত্রী গঙ্গাসাগরে থাকছেন।

GangaSagar

এ বছর তীর্থসাথী নামে মেগাকন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। বাবুঘাট থেকে শুরু করে গঙ্গাসাগর অবধি ১০০টি সিসি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। যার গতিবিধি ৪৪টি প্যানেলের মাধ্যমে তীর্থসাথী মেগাকন্ট্রোল রুমের মনিটরে ফুটে উঠবে। এবং তার ফুটেজ সরাসরি নবান্নে চলে যাবে বলে জানালেন, তীর্থসাথীর কাজের সঙ্গে যুক্ত অভিষেক মাইতি। এ বছর থেকে মেলায় আসা তীর্থযাত্রীদের বিমার ব্যবস্থা করেছে সরকার। এ বছর বাজেট ১০০ কোটি টাকা।

সব মিলিয়ে বার বার যেতে ইচ্ছা করবে গঙ্গাসাগরে।

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ3 hours ago

Bangladesh Covid Situation: স্বাস্থ্যবিধি না মেনে বেপরোয়া চলাচল সুইসাইডের শামিল, মনে করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশ3 hours ago

Bangladesh-China relation: বিরোধী জোটে যুক্ত হলে সম্পর্কের অবনতি হবে, বাংলাদেশকে হুঁশিয়ারি চিনের

Coronavirus west bengal
রাজ্য7 hours ago

Bengal Corona Update: রাজ্যের সংক্রমণচিত্রে স্থিতাবস্থা অব্যাহত, সুস্থতার হারে বৃদ্ধি, ৮ জেলায় কমল সক্রিয় রোগী

দেশ8 hours ago

Coronavirus Second Wave: টিকা নেওয়ার পরেও কি কোভিড হতে পারে? ব্যাখ্যা দিল সরকার

রাজ্য9 hours ago

Coronavirus Second Wave: সংসদের বিশেষ অধিবেশন ডাকতে রাষ্ট্রপতিকে চিঠি দিলেন অধীররঞ্জন চৌধুরী

দেশ9 hours ago

CWC Meet: “দলকে নতুন শৃঙ্খলায় সঙ্ঘবদ্ধ করতে হবে”, ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে বললেন সনিয়া গান্ধী

প্রোনিং
শরীরস্বাস্থ্য10 hours ago

বাড়িতে কোভিড রোগীর হঠাৎ শ্বাসকষ্ট হলে কেন প্রোনিং করাবেন?

রাজ্য10 hours ago

‘গঠনমূলক কাজে সহযোগিতা করব সরকারকে’, বিরোধী দলনেতা হয়েই বললেন শুভেন্দু অধিকারী

ক্রিকেট3 days ago

IPL 2021: বাকি ম্যাচগুলি আয়োজন করতে চেয়ে বিসিসিআইকে আবেদন জানাল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড

রাজ্য3 days ago

Bengal Corona Update: রাজ্যের ১৫ জেলায় মৃত্যুহার ১ শতাংশের কম

দেশ3 days ago

Corona Update: দৈনিক সংক্রমণ কিছুটা কমলেও মৃতের সংখ্যায় রেকর্ড, তবুও মৃত্যুহার নিম্নমুখী

দেশ2 days ago

Covid Crisis: জলে গুলে খেতে হবে, করোনারোধী ওষুধে ছাড়পত্র দিল ডিজিসিআই

রাজ্য2 days ago

Bengal Corona Update: সংক্রমণের হার ফের ৩০ শতাংশ পার, বাড়ল মৃতের সংখ্যাও, তবে কলকাতা-সহ ৯ জেলায় কমল সক্রিয় রোগী

রাজ্য1 day ago

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃতীয় মন্ত্রীসভায় একাধিক নতুন মুখ

দেশ1 day ago

ভ্যাকসিন এবং কোভিডের চিকিৎসা সরঞ্জামে ট্যাক্স কেন? মমতার চিঠির পর ১৬টা টুইট কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

রাজ্য1 day ago

Bengal Corona Update: নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতা

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে