kite

ওয়েবডেস্ক: মকর সংক্রান্তি মানে শুধুই কিন্তু সূর্য দেবতার পুজো নয়। এই উপলক্ষ্যে দেশময় ঘুড়ির উৎসবও পালন করা হয়। সূর্যের উত্তরায়ণকে ঘিরে দেশের বিভিন্ন এলাকায় উৎসব আর পুজোঅর্চনা করা হয়। সঙ্গে থাকে শস্যের উৎসবও। প্রতি বছর মোটামুটি ১৪, ১৫ তারিখ নাগাদ আসে এই দিনটি।

মূলত দক্ষিণায়ণ শেষ করে উত্তরায়ণের শুরু। সেই শুরু আর শেষের দিন হল মকর সংক্রান্তি। সঙ্গে সংক্রান্তি মানে মাসের শেষ সেই উপলক্ষ্যে পৌষ সনহক্রান্তিও বটে।

এই সংক্রান্তি উপলক্ষ্যে দেশের বিভিন্ন এলাকার মানুষ গঙ্গার পবিত্র জলে স্নান করে সূর্যপূজো করে। সঙ্গে প্রচুর ঘুড়ি ওড়ানোর রীতিও রয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। তাই একে ঘুড়ির উৎসবও বলা হয়। রংবেরঙের ঘুড়ি ওড়ে আকাশে।

আরও পড়ুন – প্রসবের সময় সদ্যোজাতর শরীর দু’খণ্ড করে গ্রেফতার পুরুষ নার্স

পাশাপাশি এই দিন নতুন শস্যের উৎসবও করা হয়। একে বলে নবান্ন। সঙ্গে সঙ্গে রবি শস্যের রোপন নিয়েও উৎসব পালন করে গোটা দেশ। পিঠে পুলি, নবান্ন, নতুন গুড় ইত্যাদি খাওয়া খাওয়ানোর মধ্যে দিয়ে কাটে এই উৎসবের দিন।

এই উৎসব দেশের বিভিন্ন অংশে বিভিন্ন ভাবে পালন করা হয়। বিভিন্ন নামে বিভিন্ন জায়গায় পরিচিতি পায় এই উৎসব। যেমন, কর্ণাটকে মকরসংক্রান্তি, তামিলনাড়ুতে পোঙ্গল, অন্ধ্রপ্রদেশে পেড্ডা পান্ডুগা, উত্তর আর মধ্য ভারতে মাঘমেলা, আসমে বিহু, পশ্চিম বঙ্গে পৌষসংক্রান্তি নামে পরিচিত।

তা ছাড়াও প্রতি ১২ বছর অন্তর এই দিনেই আসে পূর্ণ কুম্ভ মেলা। আর এই বছর মকর সংক্রান্তির সঙ্গে পালিত হচ্ছে অর্ধ কুম্ভ মেলা। প্রয়াগে এই কুম্ভমেলা পালিত হয়। সেখানে গঙ্গা, যমুনা, সরস্বতী নদীর ত্রিবেণী সঙ্গমে এই কুম্ভ মেলা হয়। সেখানে পুণ্য স্নান করেন বহু মানুষ। এই মেলা চলে ১৪ জানুয়ারি থেকে ৩ মার্চ পর্যন্ত।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here