police car

ওয়েবডেস্ক: এ কথা ঠিক, এ দেশের রাজ্য পুলিশের কাছে তেমন কোনো শৌখিন গাড়ি নেই, যা রয়েছে দুবাই পুলিশের কাছে। কিন্তু এখানে এমন কিছু গাড়ি পুলিশের হাতে রয়েছে, যেগুলিকে সচরাচর সাধারণ মানুষকে ব্যবহার করতে দেখা যায় না। সব রকমের ভূপৃষ্টে মানানসই এই গাড়িগুলিকে বলা হয় অল-টেরেইন ভেহিকলস। দেখে নেওয়া যাক তেমনই পাঁচটি পুলিশ-যান।

পোলারিস ক্রিউ ৮০০

polaris

পোলারিস একটি আমেরিকার সংস্থা। যারা এ ধরনের অল-টেরেইন ভেহিকলস তৈরি করে থাকে। কেরল পুলিশের হাতে রয়েছে এমনই চারটি পোলারিস ক্রিউ ৮০০। এই গাড়িগুলি মূলত ব্যবহৃত হয়ে আসছে মাওবাদী মোকাবিলায়। সমুদ্র সৈকতেও খুব দ্রুত দৌড়তে পারে এই গাড়ি। ছয় আসনের এই কার- বিল্ড আপ পোলারিসের দাম প্রায় ১৮ লক্ষ টাকা।

এটিভি’স

atvs

তামিলনাড়ু পুলিশের কোলস্টাল সিকিউরিটি গ্রুপের হাতে রয়েছে এই গাড়ি। মূলত পুলিশের ব্যবহারের জন্যই এই গাড়ি তৈরি হয়। তামিলনাড়ু পুলিশ জাপান থেকে আমদানি করেছে এটিভি’স। ৫০০ সিসির এই গাড়ি বালির উপর দিয়েও ২০ কিমি প্রতি ঘণ্টা গতিবেগে ছুটতে পারে মসৃণ ভাবে।

মাহিন্দ্রা মার্কসম্যান

mahindra

এক নয়, একাধিক রাজ্য পুলিশ এই গাড়ি। মূলত দাঙ্গা-বিধ্ব্স্ত এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রমে নিয়ে আসতে মার্কসম্যান ব্যবহার করা হয়। এই গাড়ি কিয়দংশে বুলেটপ্রুফ। আবার গ্রেনেডের আঘাতও সহ্য করতে সক্ষম। ঘণ্টায় ১২০ কিমি দৌড়নোর ক্ষমতাধারী এই গাড়ি রাজ্য পুলিশ-সহ প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রেও ব্যবহৃত হয়।

সিলেজ বোট

sealege-boat

জলে বা মাটিতে-সর্বত্রই সমান ভাবে ছুটতে পারে সিলেজ বোট। মুম্বই পুলিশের হাতে রয়েছে এমন বোট। সমুদ্র সৈকত বা সংলগ্ন এলাকায় নজরদারি চালানোর কাজে এই ধরনের বোট ব্যবহার করে থাকে মুম্বই পুলিশ।

সিলেজ কার

car

মুম্বই পুলিশের ব্যবহৃত এই সিলেজ কার গঠন এবং কাজে অনেকটাই আলাদ সিলেজ বোটের থেকে। এর আটটি চাকা। সওয়ার হতে পারেন চার জন। এই গাড়ির গতি সিলেজ বোটের থেকে অনেক বেশি।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন