Hero and Honda Motorcycle

অটোডেস্ক: গাঁটছড়া কেটে ফেলার পর ভারতে হিরো মটোকর্পের থেকে অনেক বেশি সমস্যায় পড়তে হয়েছিল হোন্ডা মোটর সাইকের অ্যান্ড স্কুটার ইন্ডিয়াকে। কিন্তু সঙ্গীবিহীন একা পথ চলার রাস্তাকেও কী ভাবে মসৃণ করে নেওয়া যায়, তা ভালোমতোই জানে এই বহুজাতিক সংস্থাটি। স্বাভাবিক ভাবেই সংস্থার উৎপাদন এবং বাজারে জোগান দেওয়ার ব্যাপারে অতিতৎপরতা সেই শূন্যস্থান পূরণ করে খুব দ্রুত গতিতে এগোতে শুরু করে হোন্ডা।

গত বছর তো এমনটাও ধারণা করা হচ্ছিল, এই বুঝি দেশীয় বাজার এবং বিদেশে রফতানিতে হিরোকে না পিছনে ফেলে দেয় হোন্ডা। গত বছর  ভারতের ১৫টি অঙ্গরাজ্য ও দু’টি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে বাইক ও স্কুটার বিক্রিতে হিরো গ্রুপকে অনেকটাই পিছনে ফেলে দিয়েছিল জাপানের হোন্ডা মোটর সাইকেল অ্যান্ড স্কুটার ইন্ডিয়া। এই বিস্তৃত অঞ্চলের মোট বাজারের প্রায় ৫২ শতাংশ দখল করে নিয়েছে হোন্ডা। তবে সর্বশেষ প্রাপ্ত পরিংসখ্যান থেকে জানা গিয়েছে, কাছাকাছি হলেও বাইক বিক্রির সংখ্যায় হিরোর থেকে কিছুটা পিছিয়ে রয়েছে তারা।

আরও পড়ুন: হোন্ডার কাছে হেরে গেল হিরো

একটি পরিসংখ্যান বলছে, এক অর্থবর্ষে দেশ-বিদেশ মিলেয়ে হিরো মোট বাইক বিক্রি করেছে ৬৯৪,০২২টি। যেখানে শুধু ভারতে বিক্রি হয়েছে ৫৯৫,৭০৬টি। অন্য দিকে হোন্ডার দেশ-বিদেশ মিলিয়ে বিক্রীত বাইকের সংখ্যা ৬৩৫,৮১১টি, এর মধ্যে ভারতে বিক্রি হয়েছে ৫৫১,৭৩২টি। অর্থাৎ, দেশীয় বাজারে দুই সংস্থার বাইক বিক্রির ফারাক ৪৩,৯৭৪টি। আবার শতাংশ হারের বিচারে হিরো এবং হোন্ডার বিক্রয় বৃদ্ধির হার যথাক্রমে ১৬.৫ এবং ১৫ শতাংশ।

ওয়াকিবহল মহলের মতে, হিরোকে বাড়তি অক্সিজেন জোগাচ্ছে সংস্থার বাংলাদেশের প্রকল্প। যে কারণে আগামী দিনে বিদেশে রফতানির পরিমাণ কমলে ভারতের বাজারে আরও বেশি করে প্রসারিত হবে হিরোর ব্যবসা। গত বছরই বাংলাদেশে প্রকল্পের অপারেশন শুরু হয়ে গিয়েছে। ফলে বাংলাদেশে বাইকের বাজারে হিরোর চাহিদা পূরণে যথেষ্ঠ সহায়ক ওই প্রকল্প।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here