ওয়েবডেস্ক : গাড়ি কেনার প্ল্যান করছেন? কয়েকদিন অপেক্ষা করে যান। দুম করে পেট্রোল বা ডিজেল গাড়ি কিনে ফেলবেন না। পরিবহণ নীতিতে বড়সড় পরিবর্তন আনতে চলছে সরকার। যত দ্রুত সম্ভব রাস্তা থেকে জীবাশ্ব জ্বালানি চালিত যান তুলে নিতে চাইছে কেন্দ্র। বদলে রাস্তায় চলবে বিদ্যুতচালিত যান।

ইতিমধ্যেই গাড়ি কোম্পানিগুলিকে পেট্রোল-ডিজেল চালিত গাড়ি উৎপাদন কমিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্র। সেই মতো গাড়ি নির্মাতা সংস্থাগুলিও তৈরি হচ্ছে। আগামী বছরের গোড়া থেকেই বাজারে আসতে আরম্ভ করবে বিদ্যুতচালিত গাড়ি। তাই গাড়ি কেনার প্ল্যান থাকলে নজর রাখুন বিদ্যুত চালিত গাড়ির দিকেই।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্র বেশ কয়েকটি বেসরকারি গাড়ি নির্মাতা সংস্থাকে ১০হাজার গাড়ি অর্ডার দিচ্ছে। এর প্রথম ধাপে টাটা সরবরাহ করবে ২৫০ বিদ্যুত চালিত গাড়ি এবং মহিন্দ্রা এবং মহিন্দ্রা সরবরাহ করবে ১৫০ বিদ্যুত চালিত গাড়ি। এই ভাবে ধাপে ধাপে কেন্দ্র সমস্ত সরকারি গাড়িকে বিদ্যুতচালিতে গাড়িতে বদলে ফেলা হবে।

কেন্দ্রের পরিকল্পনা আগামী ২০৩০-এর মধ্যে ভারতের রাস্তায় চলবে শুধু বিদ্যুতচালিত গাড়ি। কিন্তু সেই পরিকল্পনাকে বাস্তবায়িত করতে গেলে পরিকাঠামো গত সমস্যাও রয়েছে। বাড়াতে হবে চার্জিং স্টেশনের সংখ্যা। এই মুহূর্তে ভারতের রয়েছে প্রায় ৫৬হাজার পেট্রোল পাম্প আর সেখানে চার্জিং সেন্টারের সংখ্যা মাত্র ২০০। ফলে ব্যাপক হারে চার্জি স্টেশনের সংখ্যা না বাড়লে মুখ থুবড়ে পড়বে সরকারের এই ‘স্বপ্ন’। ফলে চার্জিং সেন্টারের সংখ্যা বাড়ানোর প্রক্রিয়াও শুরু করেছে তেল বিক্রেতা সংস্থাগুলি। ইতিমধ্যে ইন্ডিয়ান ওয়েল কর্পোরেশন নাগাপুরে একটি চার্জিং সেন্টার তৈরি করেছে। মনে করা হচ্ছে আগামী বছরে এই রকম চার্জিং স্টেশনের সংখ্যা আরও বাড়বে।

এই দৌড়ে ইতিমধ্যেই সামিল হতে শুরু করেছে প্রথম সারির গাড়ি নির্মাতা সংস্থাগুলোও। সুজুকি মোটর, মারুতি মোটর আগামী ৩ বছরের মধ্যে বিদ্যুতচালিত গাড়ি উৎপাদন এবং বিক্রি বাড়বে বলে জানিয়েছে। এই ধরনের সংস্থাগুলি যদি বিদ্যুতচালিত গাড়ি উৎপাদন এবং বিক্রিতে জোর দেয়, তবে খুব স্বাভাবিকভাবে এই ধরনের গাড়ির যোগানে খুব দ্রুত জোয়ার আসবে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী নীতীন গডকড়ি গাড়ি নিমার্তা সংস্থাগুলিকে সর্তক করে দিয়ে বলেছেন, ‘‘আমরা বিকল্প জ্বালানির দিকে যাচ্ছি। আপনাদের পছন্দ হোক বা না হোক আমি এটা করব।’’ সড়ক পরিবহণ মন্ত্রী কথা থেকেই স্পষ্ট ২০৩০-এর মধ্যে সরকার রাস্তা থেকে জীবাশ্ব জ্বালানি চালিত গাড়ি তুলে নিতে বদ্ধপরিকর।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here