বস্তার ও রাষ্ট্রযন্ত্র / ৪

0
257

sayantani-adhikariসায়ন্তনী অধিকারী

অপারেশন গ্রিন হান্ট। এই নামের সঙ্গে অনেকেই পরিচিত। কারও কাছে তা তথাকথিত প্রগতির দ্যোতক, আবার কারও কাছে তা ভারতের মানুষের প্রতি ভারত রাষ্ট্রের যুদ্ধ ঘোষণার নামান্তর। ২০০৮ সালে এই অপারেশনের সূচনা, আর তারই রেশ ধরে এখনও বস্তার অঞ্চল পৃথিবীর অন্যতম ‘মিলিটারাইজড’ অঞ্চল, যেখানে এই মুহুর্তে ৫৯০০০ প্যারামিলিটারি ক্যাম্প রয়েছে। এই গ্রিন হান্টের সঙ্গেই জড়িয়ে আছে বস্তারের অধুনা ‘ফোর্সড লিভ’ নেওয়া তথা বাধ্যতামূলক ভাবে ছুটিতে যাওয়া আইজি এস আর পি কাল্লুরি। ২০১১ সালে সালওয়া জুড়ুম নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়, আর এই ২০১১ সালেই কাল্লুরির নাম জড়িয়ে যায় একটি কুখ্যাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যা সংঘটিত হয়েছিল তাড়মেটলা অঞ্চলে। এস আর পি কাল্লুরি তখন দান্তেওয়াড়ার স্পেশাল সাব ইনস্পেকটর। তাড়মেটলা ও সংলগ্ন অঞ্চলে একাধিক মানুষকে হত্যা করা হয় এবং  অনেক মহিলা ধর্ষিতা হন বলে অভিযোগ ওঠে। কিন্তু ২০১৩ সালে তিনি আরেক মানবাধিকার লঙ্ঘনের অপরাধে অভিযুক্ত অঙ্কিত গর্গের মতোই প্রেসিডেন্ট’স পুলিস পদক লাভ করেন। ২০১৪ সালে তাঁকে বস্তারের আইজি নিযুক্ত করা হয়। শোনা যায় যে তাঁকে এই সময় আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল যে, মাওবাদী দমনে তাঁকে সম্পুর্ণ স্বাধীনতা দেওয়া হবে। কাল্লুরিও একই সঙ্গে সরকারকে আশ্বস্ত করেন এই বলে যে তিনি দু’ বছরের মধ্যে ওই এলাকা মাওবাদী মুক্ত করবেন।

আরও পড়ুন: বস্তার ও রাষ্ট্রযন্ত্র / ৩

kalluri
আইজিপি এস আর পি কাল্লুরি।

এই কাজে কাল্লুরির হাতিয়ার মূলত একটি পাঁচমুখী নীতি — আত্মসমর্পণ, গ্রেফতার, এনকাউন্টার, প্রগতি এবং স্থানীয় মানুষের শক্তি বৃদ্ধি। কিন্তু এই নীতিগুলি নানা ভাবে সমালোচনার শিকার হয়েছে। কাল্লুরি আত্মসমর্পণের নীতির উপর জোর দিয়েছেন, কিন্তু এই নীতি ঘরে-বাইরে বিভিন্ন সংগঠন এবং ব্যক্তির দ্বারা নিন্দিত হয়েছে। কারণ, এই নীতির আড়ালে বিভিন্ন ধরনের অনৈতিক এবং নিপীড়নমূলক প্রক্রিয়া চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ। এর মধ্যে বিভিন্ন যৌন অত্যাচারের বিষয়টি বিশেষ ভাবে গুরুত্ব বহন করছে। সর্বজননিন্দিত নকশাল পরীক্ষা এর অগ্রগণ্য, যেখানে মহিলাদের স্তন টিপে তাঁরা বিবাহিত না অবিবাহিত পরীক্ষা করা হয়, যুক্তি থাকে যে নকশাল নারীরা সন্তানের জননী হবেন না। এ ছাড়াও, ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে পুলিশ বা আধাসামরিক বাহিনী দ্বারা ধর্ষণের অন্তত ৪০টি ঘটনা সামনে এসেছে। যদিও পুলিশের দাবি, কাল্লুরি ক্ষমতাসীন হওয়ার পর মাওবাদীদের মধ্যে আত্মসমর্পণের হার অনেকটাই বৃদ্ধি পেয়েছে, কিন্তু এই ধরনের যৌন নিগ্রহ বা মানবাধিকার ক্ষুণ্ণ হওয়ার বিষয়গুলি কোনো রাষ্ট্রের পক্ষে সম্মানজনক হতে পারে না। একই সঙ্গে নন্দিনী সুন্দরের মতো বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করেছেন যে স্থানীয় বাসিন্দাদের শক্তি বৃদ্ধির নামে আসলে সালওয়া জুড়ুমের মতো সংগঠন তৈরি হবে। এরই মধ্যে, সামাজিক একতা মঞ্চ, যা অনেকের কাছেই নতুন নামে সালওয়া জুড়ুম, তা ২০১৬ সালে অবৈধ বলে ঘোষিত হয়েছে। 

২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে, জাতীয় মানবাধিকার কমিশন কাল্লুরিকে মানবাধিকার কর্মীদের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহারের জন্য সমন পাঠায়। অধ্যাপিকা নন্দিনী সুন্দরের বিরুদ্ধে এফআইআর জারি করার ঘটনায় কাল্লুরির উপর স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দাখিল করা হয়। এর পরেও বেলা ভাটিয়া বা সাংবাদিক প্রভাত সিং-এর ঘটনায় তাঁর আচরণ মানবাধিকার লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ ওঠে দেশ জুড়ে।  এবং সম্ভবত এরই সূত্র ধরে এই বছরের গোড়ার দিকে ছত্তীসগঢ় সরকার কাল্লুরিকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে যেতে নির্দেশ দেন, যদিও সরকারিভাবে জানানো হয় যে অসুস্থতার জন্যেই তাঁকে ছুটি নিতে বলা হয়েছে। তাঁর স্থানে আসেন নতুন ডিআইজি পি সুন্দর রাজ। কিন্তু এই পরিবর্তন বস্তারের স্বার্থে কতটা ফলপ্রসূ হবে তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়। নতুন ডিআইজি সুন্দর রাজ কী নীতি গ্রহণ করেন, বা কাল্লুরি বা অন্য অভিযুক্তদের প্রতি ছত্তীসগঢ় রাজ্য কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়, তা দেখার জন্য সবাই উন্মুখ। (ক্রমশ)   

তথ্যসূচি: “উন্নয়ন ও অঘোষিত যুদ্ধ”:  বস্তার কথা

http://www.firstpost.com/india/bastar-ig-srp-kalluri-to-go-on-leave-chhattisgarh-govt-appoints-new-dig-3243538.html

http://www.hindustantimes.com/india/bastar-s-igp-kalluri-both-lauded-as-a-hero-and-damned-as-a-villain/story-QwkgtrhdHpIdaenf8y5bcK.html

http://www.adivasiresurgence.com/who-is-bastar-ig-srp-kalluri-whats-behind-ongoing-lawlessness-in-the-region-2/

(লেখক ইতিহাসের অধ্যাপক)

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here