students felicitation programme
কৃতী ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনায় ক্লাব সমন্বয় সমিতি। নিজস্ব চিত্র।
papiya mitra
পাপিয়া মিত্র

প্রতি বারের মতো এ বারেও ২০১৮-র কৃতী ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা জানাল ‘বেহালা ঠাকুরপুকুর ক্লাব সমন্বয় সমিতি’। ধারাবাহিক এই সমাজকল্যাণমূলক কাজটি হয়ে চলেছে ১৫ বছর ধরে। সম্প্রতি বেহালা শরৎ সদনে বিশিষ্টজনেদের উপস্থিতিতে শুভ উদ্যোগ সুসম্পন্ন হয়।

বেহালা-ঠাকুরপুকুর অঞ্চলের মোট ১৮টি মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, আইসিএসই ও আইএসসি স্তরের কলা-বিজ্ঞান ও বাণিজ্য বিভাগের পড়ুয়াদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। মোট ৫০ জন পড়ুয়ার হাতে তুলে দেওয়া হয় বই, মেমেন্টো, শংসাপত্র, ফুল ও মিষ্টি। বিশিষ্টজনেদের মধ্যে ছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার ‘ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গল’ সুহাসিনী দেবী, স্থানীয় কলেজের অধ্যক্ষ শর্মিলা মিত্র, সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, গায়ক পরিমল ভট্টাচার্য, কুন্দন বেলোয়ানি প্রমুখ। নানা সংগ্রামের কথা এই সব অনুষ্ঠানে ওঠে। এ দিনের সারমর্ম দাঁড়াল শুরুতেই থেমে যাওয়া নয়। পরীক্ষার নম্বর শেষ কথা নয়। জীবনের লম্বা পথে নিজের লক্ষ্য ঠিক রেখে বাধা ঠেলে এগিয়ে যেতে হবে।

girl student felicitation
কৃতী ছাত্রীকে সংবর্ধনা সুহাসিনী দেবীর। নিজস্ব চিত্র।

প্রাক্তন ফার্স্ট লেডি শুভ্রা মুখোপাধ্যায়, শান্তা মুখোপাধ্যায়, বীরেন্দ্রভূষণ দাস, অপর্ণা কুমার চক্রবর্তী, বন্দনা চট্টোপাধ্যায়, পরেশরঞ্জন পুরকায়স্থ, রেবতীরঞ্জন মণ্ডল, উষারঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়, শুভদীপ স্যানাল, নীলিমা দাস, প্রতুলকৃষ্ণ রায় সাফই ও জ্যোৎস্না পুরকায়স্থ স্মৃতি পুরস্কারে সম্মানিত করা হয় ছাত্রছাত্রীদের। একজনকে স্মৃতি পুরস্কার দিয়ে এক দিন এই উৎসব শুরু হয়েছিল, এ দিন অনুষ্ঠান চলাকালীন আরও ১২ জন এগিয়ে আসেন তাঁদের বাবা-মায়ের স্মৃতিরক্ষায় শামিল হতে।

১৫ বছর ধরে এই বিশাল কর্মকাণ্ডকে চালিয়ে নিয়ে যাওয়া খুব সামান্য ব্যাপার নয়, জানালেন সংগঠনের সম্পাদক গৌতম হালদার। তবে একই সঙ্গে বললেন বেহালা ও ঠাকুরপুকুর অঞ্চলের যে সব ক্লাব এই সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত তাদের সাহায্যের হাত ছাড়া চলা একবারেই সম্ভব নয়। সংগঠনের সদস্যদের দেওয়া আর্থিক সাহায্যেই এগিয়ে চলা। শুরুর পথ সে ভাবে মসৃণ ছিল না। নানা স্কুলে নানা প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়েছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে সেই জায়গা তৈরি হয়ে গিয়েছে। এখন ফল প্রকাশের পরেই স্কুল জানিয়ে দেয় তাদের মেধাতালিকা প্রস্তুত। এই পাওনা নেহাত সামান্য নয়। এ ছাড়াও ‘প্রভাতী কবি প্রণাম’, দুঃস্থ পড়ুয়াদের বই ও আর্থিক সহায়তা, গ্রীষ্মকালীন রক্তদান ও স্বাস্থ্য শিবির, পথশিশু ও স্বতন্ত্র ভাবে সক্ষম শিশুদের নিয়ে দুর্গাপ্রতিমা দর্শন-সহ এক গুচ্ছ সামাজিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত ৩২টি ক্লাবের এই ‘বেহালা-ঠাকুরপুকুর ক্লাব সমন্বয় সমিতি’।

শেষ পর্বে ছিল কল্যাণ সেন বরাটের নির্দেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ‘গুপি বাঘার কাণ্ড’। সমগ্র অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সুকুমার ঘোষ।

 

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন