শিকাগোয় সমকামী বিয়ে করায় গির্জার সদস্যপদ থেকে বরখাস্ত মহিলা

0
2866

শিকাগো : নাগরিক অধিকার আন্দোলনের ইতিহাসে যে চার্চের একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে, যে চার্চে ২০০৮ সালে তখনকার প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বক্তৃতা করেছিলেন, সাউথ সাইডের সেই অ্যাপস্টলিক চার্চ অব গড এখন বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে। সিবিএসসি টু-এর তথ্য অনুযায়ী, এক জন সমকামী মহিলা অন্য এক জন মহিলাকে বিয়ে করার পর গির্জা তাঁর ৩০ বছরের পুরোনো সদস্যপদ ছিনিয়ে নিয়েছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে রবিবার অ্যাপস্টলিক চার্চ অব গড-এর বাইরে বিক্ষোভ দেখান এলজিবিটি তথা সমকামী, উভকামী, রূপান্তরকামী-সহ সমস্ত তৃতীয় লিঙ্গের মানুষজন। এ দিন এই বিক্ষোভ কর্মসূচি পরিচালনায় ছিল চিক চিকস সোশ্যাল ক্লাব।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ও-ই মহিলা সংবাদমাধ্যমকে বলেন, যাজক বায়ার্ন ব্রাজিয়ার গত রবিবার ধর্মোপদেশ দেওয়ার সময় বক্তৃতায় প্রকাশ্যে তাঁকে লাঞ্ছিত এবং অপমানিত করেছেন। এতে তিনি খুবই দুঃখ পেয়েছেন। এই ধর্মোপদেশটি ফেসবুকে পোস্ট করা হয়েছিল। কিন্তু পরে তা মুছে ফেলা হয়। চিক চিকস সোশ্যাল ক্লাব এই পোস্টটি রেকর্ড করে রাখে।

পোস্টটিতে যাজককে বলতে শোনা যায়, “এই গির্জার এক জন বিশিষ্ট  মহিলা সদস্য একই লিঙ্গে, এক জন মহিলাকে বিয়ে করেছেন। আমি গত সপ্তাহে স্প্যানিশ ভাষায় কথা বলেছিলাম এবং সমকামী বিয়েতে গির্জার অবস্থান ব্যাখ্যা করেছিলাম, যা তিনি জানতেন। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন, এবং তিনি স্বীকার করেন যে তিনি আর অ্যাপস্টলিক চার্চ অব গডের সদস্য হতে পারেন না”।

চিক চিকস সোশ্যালের প্রধান ম্যাক্সওয়েল ব্রাউন এ দিনের এই প্রতিবাদ সংগঠিত করেন। তিনি বলেছেন, এ সব সহ্য করা হবে না। কেউ কারোর বিরুদ্ধেই বৈষম্যমূলক ভাবনা আনতে পারে না। কারণ ঈশ্বর সবাইকে ভালোবাসেন। ভালোবাসার অর্থ ভালোবাসাই হয়।

এ দিনের এই বিক্ষোভ সম্পর্কে যাজক ব্রাজিয়ার বলেন, “আমরা বুঝতে পারছি দেশে ভিন্ন মতে বিশ্বাসী লোক আছেন, তাঁরাই এখানে প্রতিবাদে সামিল হয়েছেন। কিন্তু আমরা এখানে উপাসনা করতে এসেছি”। তা ছাড়াও তিনি বলেন, “গির্জার সদস্য না হলেও ও-ই মহিলা যে কোনো সময় গির্জায় আসতে পারেন”। কিন্তু যাজকের এই কথার প্রেক্ষিতে ওই মহিলা বলেন তার কোনো প্রয়োজন নেই, “নো থ্যাংকস”।

উল্লেখ্য ৮৫ বছর আগে শিকাগোয় এই গির্জা গঠিত হয়। বর্তমানে এই গির্জার সদস্য সংখ্যা ২০ হাজার। ২০০৮ সালে প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এখানে বক্তৃতা দিয়েছিলেন।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here