অহল্যার সাফল্যের পর আবার একটি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবি নিয়ে হাজির পরিচালক সুজয় ঘোষ। অনুকূল। ছবি তৈরির নেপথ্যের নানা বিষয় নিয়ে কথা বললেন রাকা রায়ের সঙ্গে।

প্রশ্ন: অহল্যার সাফল্যের পর অনুকূল। কবে ঠিক করলে এই গল্পটা নিয়ে ছবি করার কথা? এই ছবিটা হিন্দিতে করার বিশেষ কোনো কারণ ?

উত্তর: আমি যখন খুবই ছোটো তখন সত্যজিৎ রায়ের অনুকূল গল্পটা পড়েছি। তবে ছবি করার কথা ভেবেছি কাহানিরও আগে। কিন্তু নানা কারণে হয়ে ওঠেনি। আর ছবিটা হিন্দিতে করার একটাই কারণ, অনেক বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়া। এমন একটা গল্প সত্যজিৎ রায় লিখেছেন সত্তরের দশকে। ভাবা যায়! অনেক বেশি মানুষ গল্পটা জানতে পারবে।

প্রশ্ন: একটা শর্ট ফিল্ম, একটা ফিচার ফিল্ম, ব্যালেন্স করছ ? নাকি বিশেষ কোনো কারণ আছে ?

উত্তর: আরে না না। এই গল্পটা শর্ট ফিল্ম দাবি করে বলে মনে করি, তাই করলাম। আর টাকাটাও তো দরকার ছবি করার জন্য।

প্রশ্ন: তা হলে সুজয় ঘোষকেও টাকার কথা ভাবতে হয়?

উত্তর: মানেটা কী? প্রডিউসার পাওয়া খুব মুশকিল।

প্রশ্ন: অনুকূল তৈরির অভিজ্ঞতার কথা কিছু বলো।

উত্তর: সত্যজিতের গল্প নিয়ে ছবি করা ইটসেল্ফ চাপের। একটু গড়বড় হলেই সমালোচনা। তবে সন্দীপ রায়ের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। গল্পটা নিয়ে কাজ করতে দিয়েছেন।

প্রশ্ন: তোমার শর্ট ফিল্ম হিট হতেই অনেক নামকরা পরিচালক শর্ট ফিল্ম বানাচ্ছে। সিনেমার ভবিষ্যত কি তা হলে ওয়েব?

উত্তর: এটা ঠিক কথা নয়। আগেও অনেক বিখ্যাত পরিচালক শর্ট ফিল্ম বানাত। আমি নিজে দেখেছি। আর মাধ্যম যা-ই হোক, ছবিটাই গুরুত্বপূর্ণ। কিছু গল্প আছে যেগুলো বড় পর্দা ডিমান্ড করবে যেমন বাহুবলী। আবার কিছু ছবি আছে যার টাইম অল্প হলেই চলবে। তবে ছবির ট্রিটমেন্ট একই থাকতে হবে। সেখানে কোনো কম্প্রোমাইজ নেই। কিছু ছবির বিষয়বস্তু বড়ো হয়। আর কিছু ছবি আয়তনে বড়ো হয়।

আরও পড়ুন : রুই মাছে আভিজাত্য নেই, তাই খাই না: সৃজিত 

প্রশ্ন: পরমব্রতকেই কি প্রথমে ভেবেছিলে?

উত্তর: আসলে ছবিটা অনেক দিন ধরেই করব ঠিক করেছিলাম। তাই কাস্টিং পরিবর্তন হয়েছে।

প্রশ্ন: ছবিতে রোবটটি খুব মানবিক।

উত্তর: সেটাই তো উদ্দেশ্য। সিনেমার প্রয়োজনে ছোটো ছোটো পরিবর্তন করেছি।

প্রশ্ন: নতুন ফিচার ফিল্ম কী আসছে?

উত্তর: কাজ করছি । সবে অনুকূল শেষ হল। যথা সময়ে জানতে পারবি ।

প্রশ্ন: ছবিতে একাধিক বার একটা ডায়লগ এসেছে। রোবট মানুষের কাজ কেড়ে নেবে।

উত্তর: আসলে ছোটো বেলায় বাবার মুখে কথাটা এত শুনেছি তাই রাখলাম (হাসি)। আসলে এটা একটা  ভয়। আজ আমরা গ্যাজেট ছাড়া চলতেই পারি না। তবু আমরা ভয় পাই মোবাইলে ছবি দেখে আমরা কি আর হলে যাব? এ-ও সে রকমই একটা ভয়।

প্রশ্ন: তুমি কোন শর্ট ফিল্ম মেকারের ফ্যান?

উত্তর: আমি এই ভাবে বিবেচনা করি না। আমার কাছে পরিচালক মানে সে পরিচালক। শর্ট ফিল্ম বলে আলাদা কিছু নেই।

প্রশ্ন: নতুন প্রজন্ম যারা অনুকূল পড়েনি। তারা কী বার্তা পাবে?

উত্তর: টেকনোলজিকে ঠিক ব্যবহার করলেই লাভ। তাকে ভয় পেয়ে লাভ নেই।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here