Connect with us

বইমেলার খবর

বইমেলার কড়চা-উনিশ : ‘ফেসবুক ছাড়াও সাহিত্য হয়’

kolkata bookfair
jahir raihan

জাহির রায়হান

‘ফেসবুক ছাড়াও সাহিত্য হয়’ – কোনো একটি স্টলে অমোঘ এ লাইন নজরে নিয়েই শুরু হল আমার উনিশের বইমেলা পরিভ্রমণ।

বইমেলা আসা মানেই একলপ্তে বিশ্বদর্শন। দু’ হাজার আঠেরো সাল বহু গুণীজন, বিদগ্ধ সাহিত্যসাধকের প্রাণ নিয়েছে। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে তাই প্রতি দিন সকালবেলায় দিন গুণতাম, খবরের কাগজে চোখ রাখতাম ভয়ে ভয়ে। শেষমেশ সাল বিদায় নিলেও মৃত্যুমিছিল শেষ হল না।

চলে গেলেন দিব্যেন্দু পালিত। তাঁর শেষ যাত্রার দিন কয়েক পরেই অলৌকিক যানের সওয়ারি হয়ে নীলকন্ঠের খোঁজ করতে হারিয়ে গেলেন অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই কৈশোরেই পড়ে ফেলেছিলাম ‘নীলকন্ঠ পাখির খোঁজে’ ও ‘অলৌকিক জলযান’।

সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় ও অতীন বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঝরঝরে তরতরে বাংলা, আমি বড়োই ভালোবাসি। এঁদের মধ্যে অতীনবাবু আবার দীর্ঘদিন শিক্ষকতা করে গিয়েছেন আমারই এলাকায়, তাই তাঁর নামের সঙ্গে অনুভব করি সাবলীল আত্মীয়তার টান। সেই স্কুলটির পাশ দিয়ে যাতায়াতের পথে নিজ হতেই নজর চলে যায় বিদ্যালয়ের অলিন্দে। আমার বন্ধু সেবাব্রতের মা, অতীনবাবুর ছাত্রী, সেটা অবশ্য দুঃসংবাদটি পাওয়ার পরই জানলাম। অতগুলো তারকাপাতের পর ভেবেছিলাম যাব না আর বইমেলায়। কিন্তু লোভ সংবরণ করা গেল না, যেতেই হল। আর গিয়েই চোখে পড়ল ‘ফেসবুক ছাড়াও সাহিত্য হয়’!

আরও পড়ুন কলকাতা বইমেলা, কলকাতা প্রাণমেলা

মুর্শিদাবাদ জেলা বইমেলায় এ বার বেচাকেনা ভালো হয়েছে। আমার শহরের বইমেলার বয়স এ বার দুই। তারাও দাবি করছে, বিক্রিবাটা ভালোই। জেলার অন্যান্য বইমেলার বিক্রয়চিত্র নাকি ঊর্ধ্বমুখী। তা হলে কি মানুষ বইমুখী হচ্ছে আবার?

এ কথা লিখতে গিয়েই মাথায় এল, যত দামের মোবাইল ফোন বা জামাকাপড় আমরা ব্যবহার করি সচরাচর, সমমূল্যের বই কি আমরা কিনি কখনও? আমার শিক্ষক অরুণাভবাবু শিখিয়েছিলেন, শোন জাহির, নিমন্ত্রণবাড়িতে কখনও থালা, বাটি, গেলাস নিয়ে খেতে যাবি না, ওতে নিমন্ত্রণকর্তাকে অপমান করা হয়, যেন তাদের বড়িতে ও সব নেই, তাই তুই নিয়ে যাচ্ছিস! হয় খালি হাতে খেতে যাবি, আর যদি খালি হাতে যেতে লজ্জা লাগে, তা হলে এক গোছা ফুল নিয়ে যাস নতুবা একখানি বই। সেই থেকে সত্যসত্যই বই নিয়ে যাই নিমন্ত্রণ রক্ষা করতে, মাথায় রাখি কার বাড়ি যাচ্ছি, সেই অনুযায়ী বই নির্বাচন করে থাকি।

বই মানুষের পরম বন্ধু। বাস্তব চাহিদা অনুযায়ী বইয়ের সঙ্গে দইও পাওয়া যাচ্ছে বইমেলায় ঠিকই, কিন্তু এত মানুষ বইয়ের টানেই এসেছে বইমেলা, এটা দেখতেও ভালো লাগে। ‘জাগো বাংলা’র সজ্জা চোখ টানে, চোখ টানে বাংলাদেশের রোজ গার্ডেনের অনুরূপ মণ্ডপটিও। প্রবেশপথেই দেওয়া আছে রোজ গার্ডেনের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস।

ভিয়েতনামের স্টলের মধ্যে যে তরূণীদ্বয় মোবাইলে মগ্ন ছিল তারা ভিয়েতনামবাসী কিনা জানতে ইচ্ছে হল, কিন্তু জিজ্ঞেস করতে সাহস হল না। দেড়শো টাকায় এক ব্যাগ ছোটোদের বই পাওয়া যাচ্ছে, গতবার ফ্রি’তে বাইবেল দিয়েছিল, এ বার কোরআন শরীফও দিচ্ছে দেখলাম। আমি অবশ্য বিশ্বভারতীর সামনে বেশ কিছুক্ষণ ঘোরাঘুরি করলাম, যদি ফ্রি তে ‘রবীন্দ্র রচনাবলী’ পাওয়া যায়, কিন্তু সে সবের কোনো সম্ভাবনা দেখা গেল না।

আরও পড়ুন আমার বই পড়া: আমার পড়া বড়োই অগোছালো

অধুনা একটা বিতর্ক দেখা দিয়েছে, ইংরাজি-বিলাসীরা বলছেন রবি ঠাকুর ‘গীতাঞ্জলী’র কারণে নোবেল পাননি, পেয়েছিলেন তার ইংরাজি অনুবাদ ‘Song Offerings’-এর জন্য, অতএব বাংলা ছাড়ো ইংরাজি আনো। আমি আবার বুঝতে পারি না ভাষার সঙ্গে নোবেলের সম্পর্ক কী? অথবা নোবেল পুরস্কারই কি বিচারের একমাত্র মানদণ্ড? যে হেতু ‘Song Offerings’ নোবেল পেয়েছে তা হলে সেটাই শুধু থাকবে, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বাকি সৃষ্টিগুলি যে হেতু বাংলা ভাষায় রচিত তাই তার আর কোনো দাম নেই, সব জলাঞ্জলি দিতে হবে? অথবা নোবেলপ্রাপ্ত রবি ঠাকুর ছাড়া বাংলা ভাষার আর কোনো কবি-সাহিত্যিকের কোনো সম্মান নেই কারণ তাঁরা নোবেল পাননি! হায় হায়, আসলে আমরা ভুলে যাই সমালোচনা করার জন্যও ন্যূনতম একটা যোগ্যতা লাগে।

ফুড কোর্ট, পকোড়া, আইসক্রিম এ বারও আছে, গয়নার দোকানও দেখলাম, আর আছে বাউল গান, নানান আলাপ-আলোচনা, জটলা ও আড্ডা, আগের মতোই।

উৎসবপ্রিয় বাঙালির পরিচয় নানা ভাবে প্রকাশ পায় বইমেলায়। রাশি রাশি বইয়ের রাজ্য থেকে বেছে বেছে মণিমুক্তো তুলে নেয় সচেতন পাঠক নিজস্ব রুচি অনুযায়ী। মফস্‌সলের বিদ্যালয় থেকে দিদিমণির হাত ধরে আগত ছাত্র-ছাত্রীদের চোখে বইয়ের প্রতি থাকে এক অবাক করা ভালোবাসা, বইয়ের সাথে তাদের আলাপ হয়, নতুন বইয়ের মলাটে আলতো হাত বোলাতে বোলাতে, গন্ধ শুঁকতে শুঁকতে জন্ম হয় নতুন নতুন পাঠক-পাঠিকার। আর এ ভাবেই বেঁচে থাকে বইমেলা, অন্তরে ও আবদারে।

বইমেলার খবর

‘বোধিসত্ত্ব’র এক গুচ্ছ বই বইমেলায় প্রকাশের অপেক্ষায়

bodhisattva books

ওয়েবডেস্ক: বইপাড়ার অগ্রণী প্রকাশন সংস্থা ‘বোধিসত্ত্ব’র  এক গুচ্ছ বই প্রকাশিত হতে চলেছে কলকাতা বইমেলায়।

অসম সমস্যা নিয়ে সঞ্জয় মুখোপাধ্যায় ও সুজাত ভদ্র সম্পাদিত ‘অসম সমস্যা: বাঙালির বিপন্নতা ও অন্যান্য’ এবং সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়ের লেখা ‘গণতন্ত্রের সংকট’, বই দু’টি প্রকাশ করবেন প্রাক্তন রাজ্যপাল শ্যামল কুমার সেন।

ওই অনুষ্ঠানে রতন খাসনবিশের লেখা দু’টি বইও প্রকাশিত হবে – ‘বামপন্থা: সংকটের প্রেক্ষাপট’ ও ‘একুশ শতকের বামপন্থা’।

আরও পড়ুন বইমেলার বাছাই: বরণীয় ব্যক্তিত্বদের নিয়ে ‘বোধিসত্ত্ব’র বইয়ের ডালি

এই রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে অধ্যাপক অশোকেন্দু সেনগুপ্তের সঙ্গে সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়ের যৌথ ভাবে লেখা বই ‘শিক্ষার সংকট শিক্ষার রাজনীতি’। এই বইটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন কেন্দ্রীয় সরকারের আইসিসিআর-এর আঞ্চলিক অধিকর্তা গৌতম দে।

এ ছাড়াও গৌতমবাবু আরেকটি বই প্রকাশ করবেন – পৃথ্বীরাজ সেনের লেখা ‘রবীন্দ্রনাথ ও বিবেকানন্দ, দুই মনীষীর সম্পর্ক’।

বই প্রকাশের ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন প্রকৃতিতীর্থ ও নজরুলতীর্থের প্রধান প্রশাসনিক আধিকারিক সমীর কুমার বাগচি, বাংলাদেশ উপদূতাবাসের প্রথম প্রেস সচিব ডঃ মোফাক খারুল ইকবাল, প্রাক্তন শেরিফ ডাঃ সাধন রায়, অধ্যাপক শুভদীপ মুখোপাধ্যায় প্রমুখ।

আগামী শনিবার ৯ ফেব্রুয়ারি কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলার মৃণাল সেন মিডিয়া সেন্টারে বিকেল সোয়া তি’নটেয় বই প্রকাশের অনুষ্ঠান হবে।

আরও পড়ুন বইমেলার বাছাই : প্রসঙ্গ বামপন্থা

এ ছাড়াও এই বইমেলায় ‘বোধিসত্ত্ব’ থেকে ইতিমধ্যেই যে সব বই প্রকাশিত হয়েছে সেগুলি হল –
সুজাত ভদ্রের ‘বই, আন্দোলন রাজনীতি ও মানবাধিকার’; অরুণাভ ঘোষের ‘বিচারব্যবস্থা, ক্ষমতা, রাজনীতি’; তুষার চক্রবর্তীর ‘স্বৈরতন্ত্রের উন্নয়ন’; এবং অনীশ ঘোষ সম্পাদিত ‘মৃণাল সেন: সত্তা ও সৃষ্টি’।

কলকাতা বইমেলায় বইগুলি পাওয়া যাচ্ছে ‘বোধিসত্ত্ব’ (স্টল নং ২৫০), ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাব (স্টল নং ৩৬৮) প্রভৃতি স্টলে। বইমেলার পরে বইগুলি পেতে হলে যোগাযোগ – ২ বঙ্কিম চ্যাটার্জি স্ট্রিট (তিনতলায়), কলেজ স্কোয়ারের পিছনে। মোবাইল – ৯৩৩৩৮৪৬৪০০, ৯৮৩৬৩৫৭৫০০।

 

Continue Reading

বইমেলার খবর

শক্তি চট্টোপাধ্যায়, নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকে কবিতায় স্মরণ বইমেলায়

recitation programme organised by cjc

নিজস্ব প্রতিনিধি: সদ্যপ্রয়াত কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকে কবিতায় স্মরণ করলেন কবিরা। সেই সঙ্গে কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে স্মৃতিচারণা।

বুধবার কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলায় এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাব।

বইমেলার মৃণাল সেন মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত ওই অনুষ্ঠান শুরু হয় বিকেল সাড়ে চারটেয়। শুরুতেই শক্তি চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে স্মৃতিচারণা করেন কবি কমল দে সিকদার। ‘শক্তিদা’র সঙ্গে কাটানো বেশ কিছু অন্তরঙ্গ সময়ের গল্প শোনান প্রবীণ এই কবি। তাঁর সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় বুঝিয়ে দেন কেমন প্রাণের মানুষ ছিলেন ‘শক্তিদা’। বক্তৃতা শেষে শক্তি চট্টোপাধ্যায়কে শ্রদ্ধা জানিয়ে একটি স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন অশীতিপর কবি।

poet kamal dey sikder and prantik sen

‘শক্তিদা’ সম্পর্কে বলছেন কবি কমল দে সিকদার। পাশে ক্লাব সভাপতি প্রান্তিক সেন।

এর পর শুরু হয় কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীকে কবিতায় স্মরণ। যে সব কবি স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন তাঁরা হলেন, অসীম দাশশর্মা, সুব্রত দাশ, বিনতা মণ্ডল, বাসন্তী দাস, কাজল চক্রবর্তী, অমল কর, সুস্মেলী দত্ত, কৃষ্ণা দাস, শ্রীপর্ণা বন্দ্যোপাধ্যায়, সোমা মল্লিক, মুনমুন মণ্ডল এবং ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাবের কর্মসমিতির সদস্য নরেশ মণ্ডল।

শক্তি চট্টোপাধ্যায় ও নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তীর লেখা কবিতা আবৃত্তি করে ওই দুই কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন লিপিকা চট্টোপাধ্যায়, সোমা ঘোষ, তাপসী সিংহ এবং নাসরিন নাজমা।

ধন্যবাদজ্ঞাপক বক্তৃতায় ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রাহুল গোস্বামী দেশের এই দুর্দিনে সকলকে সচেতন হওয়ার ডাক দিলেন।

‘কবিতায় স্মরণ’ অনুষ্ঠানের মাঝেই ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাবের মুখপত্র ‘সাংবাদিক’-এর ২০১৯ বইমেলা সংখ্যা প্রকাশ করেন কবি কমল দে সিকদার। কমল দে সিকদার ও রাহুল গোস্বামী ছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সভাপতি প্রান্তিক সেন ও কোষাধ্যক্ষ ইমন কল্যাণ সেন।

আরও পড়ুন কলকাতা বইমেলা, কলকাতা প্রাণমেলা

সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ক্লাবের কর্মসমিতির সদস্য শম্ভু সেন। ৪১ বছর আগে ক্যালকাটা জার্নালিস্টস ক্লাব গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কবি-সাংবাদিক শক্তি চট্টোপাধ্যায়ের কী ভূমিকা ছিল, শম্ভুবাবু তাঁর প্রারম্ভিক ভাষণে সে কথা সংক্ষেপে বলেন।

ছবি: অভিজিৎ ভট্টাচার্য

Continue Reading

বইমেলার খবর

মুখ্যমন্ত্রী সূচনা করলেন কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা, উদ্বোধনের দিনেও অগোছালো!

inauguration of kolkata book fair

কলকাতা: শুরু হয়ে গেল ৪৩তম কলকাতা বইমেলা। কিন্তু সেই মেলা এখনও যেন অগোছালো। বইয়ের স্টল আছে, বই আছে। সঙ্গে আছেন অসংখ্য শ্রমিকও! তাঁরা নিজেদের কাজে অতি ব্যস্ত।

বৃহস্পতিবার বিকালে সল্টলেকের সেন্ট্রাল পার্কে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলার ৪৩তম বর্ষের উদ্বোধনের দিন এমনই খণ্ডচিত্র ধরা পড়ল বইপ্রেমীদের নজরে।

আরও পড়ুন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রাক্তন আপ্ত-সহায়কের বাড়িতে তল্লাশি সিবিআই-ইডির!

মুখ্যমন্ত্রী মমতা এ দিন বিকেলে বইমেলার উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী ভাষণে তিনি বলেন, কলকাতা বইমেলা বিশ্বের সেরা বইমেলা৷ বইয়ের মধ্যেই রয়েছে শিক্ষা-সংস্কৃতি৷ তাই বইয়ের কোনো বিকল্প নেই৷

এ বারের বইমেলায় থিম কান্ট্রি গুয়াতেমালা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গুয়াতেমালার রাষ্ট্রদূত জিয়োবান্নি কাসতিয়ো। এ বার সিইএসসি সৃষ্টিসম্মান দেওয়া হল সাহিত্যিক শংকরকে। এর আগে সিইএসসি সৃষ্টিসম্মান পেয়েছেন অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় এবং কবি নীরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী। এবারের বইমেলায় থাকছে ৬০০টি বইয়ের স্টল এবং ২০০ লিটল ম্যাগাজিন।

kolkata Book Fair

চলছে জোরকদমে প্রস্তুতি। নিজস্ব চিত্র

এবারের বইমেলায় থাকছে ৬০০টি বইয়ের স্টল এবং ২০০ লিটল ম্যাগাজিন। জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা ব্যবস্থা। দায়িত্বে থাকা বিধাননগর কমিশনারেট জানিয়েছে, ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা থাকছে এ বারের মেলায়।

মেলায় নজরদারি বাড়াতে বসানো হয়েছে দু’টি ওয়াচ টাওয়ার, থাকছে অ্যান্টি মলেস্টেশন স্কোয়াড, অ্যান্টি ক্রাইম স্কোয়াড এবং র‍্যাপিড অ্যাকশন ফোর্স। বিশেষ ওয়াইফাই পরিষেবার বন্দোবস্ত করেছে বইমেলা কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া অ্যাপের মাধ্যমে স্টল খুঁজে পেতে সুবিধে হবে পাঠকদের।

kolkata Book Fair

চলছে জোরকদমে প্রস্তুতি। নিজস্ব চিত্র

এমনকি আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য রাখা হয়েছে দমকলের যাবতীয় বন্দোবস্ত।

কিন্তু এ দিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বইমেলা উদ্বোধনের সময়েও কাজ অসম্পূর্ণ রয়ে যাওয়ার চিহ্ন স্পষ্ট। চারি দিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে স্টল নির্মাণ সামগ্রী।

সেন্ট্রাল পার্কে ঢুকতে করুণাময়ী বাসস্ট্যান্ডের দিকের প্রবেশপথও অসম্পূর্ণ এবং বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে।

রাতে যখন এ দিনের মতো মেলা ভাঙল তখনও চলছে গোছানোর পালা। মেলা একেবারে সাফসুতরো হতে যে শুক্রবারটাও চলে যাবে তা বলে দেওয়া যায়।

 

Continue Reading
Advertisement
রাজ্য2 hours ago

নতুন সংক্রমণ কিছুটা কম, রাজ্যে করোনামুক্ত হলেন ১৫ হাজার

প্রযুক্তি2 hours ago

নতুন অ্যাপ ‘সেল্‌ফ স্ক্যান’ নিয়ে এল রাজ্য সরকার! এর কাজ কী?

বিনোদন4 hours ago

সুশান্ত সিং রাজপুত মৃত্যু-রহস্যে থানায় বয়ান রেকর্ডের পর নি‌ঃশব্দেই বেরিয়ে এলেন সঞ্জয়লীলা বনশালী

ক্রিকেট5 hours ago

ওপেনার সচিন তেন্ডুলকরের গোপন রহস্য ফাঁস করলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

কেনাকাটা5 hours ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

দার্জিলিং5 hours ago

‘বিশ্বাস ছিল এই লড়াই জিতব’, করোনাকে জয় করে বাড়ি ফিরলেন অশোক ভট্টাচার্য

বিদেশ5 hours ago

মার্কিন পথে কুয়েতও, কর্মহীন হয়ে দেশছাড়া হতে পারেন ৮ লক্ষ ভারতীয়

currency
শিল্প-বাণিজ্য5 hours ago

পিপিএফের ৯টি নিয়ম, যা জেনে রাখা ভালো

কেনাকাটা

কেনাকাটা5 hours ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

কেনাকাটা1 day ago

হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ৩১ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

অনলাইনে খুচরো বিক্রেতা অ্যামাজন ক্রেতার চাহিদার কথা মাথায় রেখে ঢেলে সাজিয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের সম্ভার।

DIY DIY
কেনাকাটা6 days ago

সময় কাটছে না? ঘরে বসে এই সমস্ত সামগ্রী দিয়ে করুন ডিআইওয়াই আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক :  এক ঘেয়ে সময় কাটছে না? ঘরে বসে করতে পারেন ডিআইওয়াই অর্থাৎ ডু ইট ইওরসেলফ। বাড়িতে পড়ে...

smartphone smartphone
কেনাকাটা1 week ago

লকডাউনের মধ্যে ফোন খারাপ? রইল ৫ হাজারের মধ্যে স্মার্টফোনের হদিশ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে ঘরে বসে যতটা কাজ সারা যায় ততটাই ভালো। তাই মোবাইল ফোন খারাপ...

নজরে