খবর অনলাইন: প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিসেবে এই প্রথম এক জনকে মহিলাকে সম্ভবত পেতে চলেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা। সংবাদসংস্থা এপি জানিয়েছে, ৫৭১ জন সুপারডেলিগেট তাঁকে সমর্থনের কথা জানানোয় ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিসেবে হিলারি ক্লিন্টনের মনোনীত হওয়ার জন্য যে ন্যূনতম সমর্থনের প্রয়োজন ছিল তা তিনি পেয়ে গিয়েছেন। ফলে তিনিই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হচ্ছেন। যদিও প্রতিদ্বন্দ্বী বার্নি স্যান্ডার্স মনে করেন, আরও ছ’টি প্রাইমারির ডেলিগেটরা ভোট না দেওয়া পর্যন্ত নিশ্চিত ভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না।

ছ’টি প্রাইমারিতে মঙ্গলবার ভোট নেওয়া হচ্ছে। এগুলি হল মন্টানা, নিউ মেক্সিকো, সাউথ ডাকোটা, নর্থ ডাকোটা, ক্যালিফোর্নিয়া ও নিউ জার্সি। এই ছ’টি প্রাইমারির ভোটের আগেই এপি জানিয়েছে, ১৮১২ জন অঙ্গীকারবদ্ধ ডেলিগেট এবং ৫৭১ জন সুপারডেলিগেটের সমর্থন নিয়ে ক্লিন্টন মনোনয়নের জন্য প্রয়োজনীয় ২৩৮৩ জন ডেলিগেটের সমর্থন পেয়ে গিয়েছেন। সুপারডেলিগেটরা হলেন পার্টির সেই সব কর্মকর্তা যাঁরা দলীয় সম্মেলনে আনুষ্ঠানিক ভাবে ভোট দেন এবং এই আনুষ্ঠানিক ভোট দেওয়ার আগেই তাঁরা তাঁদের সমর্থন ঘোষণা করতে পারেন। ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সম্মেলন জুলাইয়ে হওয়ার কথা। স্যান্ডার্সের মুখপাত্র মাইকেল ব্রিগস বলেন, সুপারডেলিগেটরা আনুষ্ঠানিক ভাবে ভোট দেওয়ার আগে তাঁদের সমর্থন হিসেব করা উচিত নয়।

অবশ্য এপি-র ঘোষণার পর হিলারি ক্লিন্টন তাঁর জয় দাবি করেননি। সোমবার ক্যালিফোর্নিয়ার লং বিচে তিনি সমর্থকদের বলেন, “আমরা একটা ঐতিহাসিক ও অভূতপূর্ব মুহূর্তের দ্বারে এসে পৌঁছেছি। কিন্তু আমাদের এখনও কাজ বাকি আছে। কাল আমাদের ছ’টা প্রাইমারিতে ভোট আছে। আমাদের প্রতিটি ভোটের জন্য কঠিন লড়াই লড়তে হবে।”

নিউ জার্সিতে ক্লিন্টন সহজেই জিতবেন বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন। বাদ বাকি পাঁচটি প্রাইমারিতে জোরদার লড়াই হবে বলে মনে করা হচ্ছে। শেষ যে প্রাইমারিটিতে ভোট হবে সেটি হল ওয়াশিংটন ডি সি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here