লখনউ:  ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রকমারি চমক দেওয়ায় তৎপর তিনি। রাজ্যের সব স্কুলে নার্সারি থেকে ইংরেজি পঠন পাঠন চালু করেছেন। সম্প্রতি রাজ্যের সব বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ থেকে তুলে দিয়েছেন জাতপাত ভিত্তিক সংরক্ষণ।তিনি উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। মুখ্যমন্ত্রী এবার মুখ খুললেন তিন তালাক প্রসঙ্গে। বললেন, “এই প্রসঙ্গে রাজনিতিকদের নীরব থাকা মনে করিয়ে দিচ্ছে মহাভারতের এক অন্ধকার অধ্যায়কে। দ্রৌপদীর বস্ত্রহরণ করেছিলেন যারা, আর কোনো প্রতিবাদ না করে সভায় বসেছিলেন যারা, প্রত্যেকেই সমান দোষী”।

“ সারা দেশ জুড়ে বিষয়টি নিয়ে যখন বিতর্ক হচ্ছে, নিয়মিত নতুন নতুন তত্ত্ব উঠে আসছে, এসবের মাঝেই এক দল রাজনীতিবিদ আশ্চর্য রকম চুপ। তিন তালাক প্রথার জন্য যারা দায়ী এবং যারা এই প্রথার বিরুদ্ধে সোচ্চার নয়, আইন তাঁদের সবাইকেই একসঙ্গে আদলতে দাঁড় করাবে”, সোমবার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখরের ওপর লেখা একটি বই প্রকাশে এসে এমনটাই বললেন উত্তর প্রদেশের বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী।

বর্তমানে ‘তিন তালাক’-এর বিরুদ্ধে আবেদন করা মামলার শুনানি চলছে শীর্ষ আদালতে। আবেদনকারীদের মধ্যে এমন মহিলাও রয়েছেন, যাকে তাঁর স্বামী ‘তালাক’ দিয়েছেন ‘হোয়াটস্‌ অ্যাপ’ মারফত। রবিবার ‘তিন তালাক’-এর বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীও। চলতি মাসের শুরুতেই কেন্দ্র সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়েছে, ‘তিন তালাক’ এমন এক প্রথা যা মুসলিম মহিলাদের সম্মান এবং সামাজিক অবস্থা নষ্ট করে এবং ভারতীয় সংবিধান দ্বারা সুনিশ্চিত মৌলিক অধিকারকেও খণ্ডন করে।

সর্ব ভারতীয় মুসলিম ব্যক্তিগত আইন বোর্ড অবশ্য প্রথম থেকেই তিন তালাক প্রসঙ্গে শীর্ষ আদালতের হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ করেছে। তাঁরা বলেছে এই প্রথার অপব্যবহার বন্ধ করতে একটি আচরণ বিধি তৈরি করবে বোর্ড।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here