কলকাতা : শীত আসুক বা নাই আসুক, বড়োদিনের আর মাত্র ৬ দিন বাকি। তাই হালকা শীতের মিঠে রোদ্দুর গায়ে মেখে সপ্তাহের প্রথম দিনেই মানুষের ঢল আলিপুর চিড়িয়াখানায়।

সোমবার কর্মব্যস্ত দিন। কিন্তু চিড়িয়াখানায় সামনে গেলে রবিবার না সোমবার তা বোঝা ভার। এই কর্মব্যস্ত দিনে চিড়িয়াখানায় প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার মানুষ এসেছিলেন বলে জানালেন আলিপুর চিড়িয়াখানার  অধিকর্তা আশিসকুমার সামন্ত। 

এক দিকে যখন টাকা বাতিলের প্রভাব সর্বত্র, সেখানে চিড়িয়াখানায় তার প্রভাব চোখে পড়ল না। নভেম্বর মাসে লোক কম হলেও, রবিবার চিড়িয়াখানায় প্রায় ৬৫ হাজার লোক হয়েছিল বলে জানান অধিকর্তা।  এবং উৎসবের দিনে অর্থাৎ বড়োদিন ও পয়লা জানুয়ারি আরও ভিড় হবে বলে আশাবাদী তিনি। 

মাত্রাতিরিক্ত ভিড়ে যাতে চিড়িয়াখানার কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে, তার জন্য আগাম সর্তক প্রশাসন-সহ চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। আশিসবাবু জানান, প্রত্যক বছরের মতো এ বারেও ওয়াটগঞ্জ ও আলিপুর থানার পুলিশ আছে আইনি দিকটা দেখার জন্য। এ ছাড়া এ বার চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকেও বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যেমন ৫০ জন বিশেষ গ্রিন সিকিউরিটি মোতায়েন করা হয়েছে, যাঁরা ভিতরের ভিড় সামলাবেন। দেখবেন, যাতে একটা জায়গায় ভিড় না জমে যা, সকল মানুষ যাতে দেখার সুযোগ পান। এ ছাড়া ১৮০ জন নিজস্ব নিরাপত্তারক্ষী রাখা আছেন। গেটের মুখে সিসিটিভি ক্যামেরা আগে ছিল। তার সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। পাশাপাশি ভিতরেও ৬টি বিশেষ জায়গায় সিসিটিভি ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়েছে।  

প্রতি বছর নভেম্বরে যে সংখ্যক লোক আসেন এ বার তার তুলনায় কম হয়েছে বলে জানান আশিসবাবু।  অন্যান্য বছর ১ লক্ষ ৭০ থেকে ৭২ হাজার হত। এ বছর তা ১ লক্ষ ৫০ থেকে ৫৫ হাজারের মতন হয়েছে। কিন্তু  ডিসেম্বর মাস থেকে দর্শনার্থীর সংখ্যা বেশ বেড়েছে। নোট বাতিলের তেমন কোনো প্রভাব পড়েছে বলে মনে হয় না।  

প্রত্যেক বছর চিড়িয়াখানায় নতুন কোনো জন্তু বা পাখি বিশেষ আকর্ষণ হিসাবে থাকে। এ বারে কিছু দিন আগে জন্মানো ২টি জেব্রার শাবক বিশেষ আকর্ষণ হবে বলে কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে জানানো হয়। 

চিড়িয়াখানায় ঘুরতে আসা দর্শকদের জন্য এ বার বিশেষ গাইড ম্যাপের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই ম্যাপ যে কেউ  ৫ টাকা দিয়ে কিনতে পারবেন। চিড়িয়াখানায় ঢুকে সবাই যাতে সমস্ত কিছু দেখতে পান, কেউ যাতে হারিয়ে না যান, তাই এই গাইড ম্যাপের ব্যবস্থা। এ ছাড়া বিশেষ ক্যালেন্ডারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। চিড়িয়াখানার দর্শকদের ওই ক্যালেন্ডার দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here