কলকাতা : বিশ্ব উষ্ণায়নের ফলে বদলাচ্ছে আবহাওয়া। সেই সঙ্গে বদলাচ্ছে মশার চরিত্রও। আর এই মশাবাহিত রোগ থেকে বাঁচতে হলে বদলাতে হবে আমাদের। আরও সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশ গড়ে তুলতে হবে, যাতে কোনো জীবাণু ও মশাবাহিত রোগ আমাদের ক্ষতি করতে না পারে। 

শনিবার কলকাতা পুরসভার স্বাস্থ্য দফতরের উদ্যোগে ডেঙ্গির প্রতিরোধ ও স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি করতে অভিনব সচেতনতা মিছিলের আয়োজন করা হয়। এই মিছিলে  মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়, মেয়র পারিষদ অতীন ঘোষ-সহ যোগ দিয়েছিলেন বাংলার বিশিষ্টজনেরা। এঁদের মধ্যে ছিলেন অভিনেতা হীরন,  পরিচালক হরনাথ চক্রবর্তী,   বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ  অভিরূপ সরকার,  অলিম্পিয়ান গুরবক্স সিং। এ ছাড়াও ছিলেন সুব্রত বকশি,  শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় প্রমুখ। মিছিল পুরভবন থেকে শুরু হয়ে  লেনিন সরণি,  সুবোধ মল্লিক স্কোয়ার হয়ে ফের পুরভবনে এসে শেষ হয়।

সচেতনতা জাগানোর এই মিছিলে ছিল ধামসা মাদল থেকে শুরু করে ঢাকি। ছিল সাঁওতাল নৃত্য। সব মিলিয়ে এই বর্ণময় মিছিলের মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল ডেঙ্গি প্রতিরোধ। 

মেয়র বলেন, মশা তার চরিত্র বদলছে। তাই এখন বর্ষার আগে থেকে শীত আসা পর্যন্ত নয়, বছরের ১২ মাসই সচেতনতার কাজ চালিয়ে যাওয়া হবে। ডেঙ্গিতে যাতে একটি মানুষেরও মৃত্যু না ঘটে, সেটা সুনিশ্চিত করাই আমাদের লক্ষ্য। মেয়র পারিষদ অতীন ঘোষ বলেন,  এ ধরনের উদ্যোগে সচেতনতা বাড়বে। কলকাতা শহরে এ বছর ডেঙ্গি আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৫০০ মতন। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মশার জন্ম নিজেদের বাসস্থান বা তার আশেপাশেই বলে দেখেছে পুরসভা। তাই মশার জন্ম ঠেকাতে মানুষ যাতে সচেতন হয় সে দিকে লক্ষ রাখা পুরসভার প্রধান উদ্দেশ্য। ১৬টি বরোর মধ্যে ১২টি বরোতে ডেঙ্গু ডিটেকশন কেন্দ্র খোলা হয়েছে। খুব শীঘ্রই আর ৩টি বরোতে খোলা হবে যেখানে মানুষ বিনা খরচে রক্ত পরীক্ষা করাতে পারবেন।

ক্রেতা অধিকার সুরক্ষা মন্ত্রী সাধন পাণ্ডে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে দুর্ঘটনা বিমার মধ্যে ডেঙ্গিতে মৃত্যুও ঢোকানো হয়েছে। মানুষ যাতে এ ব্যাপারে সচেতন হন তার জন্য আহ্বান জানান মন্ত্রী।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here