Connect with us

বাংলাদেশ

‘পুশ ইন’নিয়ে ভারতের সঙ্গে আলোচনা চায় বাংলাদেশ

ওয়েবডেস্ক : ‘পুশ ইন’ বিষয়ে সরকারি ভাবে তিনি এখনও কিছুই জানেন না বলে জানালেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। 

বেশ কয়েকদিন ধরে ভারত থেকে বাংলাদেশে পুশ ইন হচ্ছে বলে সংবাদমাধ্যমে খবর পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে সেই খবর উপর ভরসা করে কোন পদক্ষপ নিতে নারাজ বাংলাদেশের বিদেশেমন্ত্রী। এ নিয়ে ভারতের সঙ্গে আলোচনা চান বলে তিনি জানিয়েছেন।

ঢাকায় একটি হোটেলে মঙ্গলবার এক অনুষ্ঠানের শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, ‘‘ভারত আশ্বাস দিয়েছে এনআরসি অভ্যন্তরীণ বিষয়। তা কোনো ভাবেই বাংলাদেশের প্রভাব ফেলবে না। অথচ পত্র–পত্রিকায় দেখছি পুশ ইন হচ্ছে। আমি ঠিক জানি না। এ নিয়ে আলাপ আলোচনা করতে হবে। ’’

বিদেশমন্ত্রীর মতে, দুই প্রতিবেশী দেশ আলোচনার মাধ্যমে আগে নানা সমস্যার সমাধান করেছে। এ ক্ষেত্রেও সে ভাবেই সমস্যার সমাধান হবে।

তথ্য কী বলছে?

এনআরসি- আতঙ্কে ভারত থেকে অনেকেই বাংলাদেশে চলে আসছেন বলে বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলি জানাচ্ছে।

প্রথম আলোর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, নভেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে ভারত থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ বেড়ে গিয়েছে।

ঝিনাইদহ মহেশপুর সীমান্তে এ মাসের ১০ তারিখ থেকে ২০ তারিখ পর্যন্ত ২০৩ জন ভারত থেকে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে বলে তথ্য জানানো হয়েছে।

গত রবিবার বেনাপোলের বাংলাদেশের সীমান্ত থেকে পুলিশ ৩২ জনকে আটক করেছে।

শনিবার বেঙ্গালুরু থেকে ৫৯ জনকে আটক করে কলকাতায় আনা হয় বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর জন্য। কিন্তু মানবাধিকার সংগঠন এপিডিআর-এর অভিযোগ অমানবিক ভাবে তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হচ্ছে। তাদের প্রতিবাদে ওই ৫৯ জনকে একটি বাড়িতে রাখা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন :

বাংলাদেশ

ঘরমুখো মানুষের ঢল ঢাকার সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে, স্বাস্থ্যবিধি চুলোয়

মাসের পনেরো তারিখ থেকে ফিরতি পালার চিত্র আরও ভয়ানক হবে। তখন এর থেকেও বেশি ভিড় থাকবে দক্ষিণ জনপদের সকল ঘাটে।

ঋদি হক: ঢাকা

বর্তমানে অর্থনৈতিক ভাবে উন্নয়নশীল বাংলাদেশের (Bangladesh) চেহারা পালটে গেছে। ঈদ-পার্বণ নয়, সারা বছরই বাজারে ভিড় লেগে থাকে। ঈদের মরশুমে তো কথাই নেই। সেই সকাল থেকে বেচাকেনা শুরু হয়ে চলে গভীর রাত পর্যন্ত। আর ঈদ-পার্বণে (Eid festival) ঘর-যাত্রার বিষয়ে তো বলার কিছু নেই। করোনায় জনসমাগম থেকে দৈহিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টি ধীরে ধীরে যেন উঠে যাচ্ছে বাংলাদেশে। 

গ্রামগঞ্জে সাধারণ সময়ের মতোই মানুষের চলাফেরা চলছে।হাটে-বাজারে ভিড় করে সওদা করা ইত্যাদি নিত্যকর্ম চলছেই। এ সব কাজ করতে গিয়ে সিংহভাগ মানুষ মাস্ক পরার প্রয়োজন বোধ করছেন না। অথচ করোনার বিস্তার থেমে নেই। 

বাংলাদেশের প্রধান নদী বন্দর ঢাকার সদরঘাট (Sadarghat)। ব্রিটিশ আমলেই বুড়িগঙ্গা তীরে স্টিমারঘাটের গোড়াপত্তন। কলকাতা থেকে চাঁদপুর হয়ে ঢাকায় পা রাখতেন সাহেবরা। সে কথা এখন অতীত।

ঈদের দ্বিতীয় দিনে সদরঘাট নদীবন্দরে গিয়ে বোঝা গেল এটা অন্য বাংলাদেশ।  নদীবন্দরের এক কিলোমিটার দূর থেকে যানজট। দীর্ঘ যানজট ঠেলে সদরঘাট টার্মিনালে পৌঁছোনোর আগে দেখা গেল বেসামাল পরিস্থিতি। লোকে লোকারণ্য।  মাস্কের বালাই নেই। দৈহিক দূরত্ব? এ কথা কাকে বলছেন মশাই। এ সব কি ভাবার সময় রয়েছে তাদের! কার আগে কে কোন লঞ্চে জায়গা নেবে সেই প্রতিযোগিতায় ব্যস্ত। এখানে মাস্কের কথা কেন?

তিন/চার তলা বিশাল লঞ্চ। সময়ের অনেক আগেই যাত্রী বোঝাই করে ঘাট ত্যাগ করছে দক্ষিণের পথে।

সদরঘাট থেকে দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ৪৫টি নৌরুটে প্রতি দিন শতাধিক নৌযান যাতায়াত করে। এক একটি লঞ্চের কোনো কোনোটিতে শতাধিক কেবিন রয়েছে।  ভিআইপি কেবিনের ব্যবস্থা তো আছেই।

ঢাকা-বরিশাল নন এসি সিঙ্গেল কেবিন এক হাজার টাকা। তা-ও টিকিট মেলে না। সদরঘাটে কর্মরত বিআইডব্লিউটিএ-র (বাংলাদেশ ইনল্যান্ড ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট অথরিটি, BIWTA) কর্মকর্তারা ‘খবর অনলাইন’কে বলেন, চলতি সপ্তাহের পুরোটাই এমন চিত্র থাকবে।

দৈহিক দূরত্বের বিষয়টি না মানার বিষয়ে একজন জানালেন, মাইকিং করতে করতে তাঁদের গলার বারোটা বেজে যাচ্ছে। তার পরও এমন ভিড়ে কারও কোনো কথাই কেউ শুনছে না। তাঁরা আরও জানালেন, এটা কেবল যাওয়ার ছবিটা দেখছেন।  মাসের পনেরো তারিখ থেকে ফিরতি পালার চিত্র আরও ভয়ানক হবে। তখন এর থেকেও বেশি ভিড় থাকবে দক্ষিণ জনপদের সকল ঘাটে।

Continue Reading

দেশ

ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহলবাসীর মুক্তির পাঁচ বছর পূর্ণ

ছিটমহল সমস্যার সমাধানের পরই সেখানে উন্নয়নের কাজে হাত লাগান শেখ হাসিনা।

ঋদি হক: ঢাকা

ব্রিটিশ মাতব্বর আইনজীবী সিরিল র‌্যাডক্লিফ যে মানবিক সমস্যার সৃষ্টি করে গিয়েছিলেন, ৬৮ বছরের ছিটমহলবাসীদের সেই অবরুদ্ধ জীবনের মুক্তি আসে শেখ হাসিনার হাত ধরে।

দীর্ঘ বছর ভারতবর্ষকে শোষণ-নিপীড়নের পর অবশেষে ভারতমাতার অনেক সন্তানের রক্তের বিনিময়ে ব্রিটিশদের তাড়ানো সম্ভব হয় দেশভাগের বিনিময়ে। ব্রিটিশদের হাতেই ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের দায়িত্বটা তুলে দেওয়া হয়েছিল।  দখলদাররা এমন প্রস্তাবের সাদর আমন্ত্রণ পেয়ে সে বছরের ৮ জুলাই লন্ডন থেকে উড়িয়ে নিয়ে আসেন র‌্যাডক্লিফকে। মুহূর্তটুকু বিলম্ব না করে তাঁকে প্রধান করে  গঠন করা হয় সীমানা নির্ধারণ কমিশন।

মাত্র ছয় সপ্তাহের মাথায় ১৩ আগস্ট র‌্যাডক্লিফ সীমানা নির্ধারণের চূড়ান্ত প্রতিবেদন পেশ করেন। এর তিন দিন পর ১৬ আগস্ট জনসমক্ষে প্রকাশ করা হয় সীমানার মানচিত্র। বিশাল ভারতবর্ষ ভাগ করে ভারত-পাকিস্তান মানচিত্র প্রকাশ করে এক কলঙ্কের গোড়াপত্তন করলেন মি. র‌্যাডক্লিফ। এই মানচিত্রের কারণে ১৬২টি খণ্ডভূমি অর্থাৎ ছিটমলের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে ভারতের ১১১টি ছিটমহল তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান অর্থাৎ অধুনা বাংলাদেশের অভ্যন্তরে। আর বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল ভারতের অভ্যন্তরে। এমন ভাগাভাগি আশ্চর্য ঘটনার খাতায় নাম লেখাতে পারে। ইতিহাস তাই বলছে।

ইন্দিরা-মুজিব চুক্তি

ভারতের বিদেশমন্ত্রকের সৌজন্যে।

১৯৭১ সাল। বর্বর পাকিস্তানি সেনাবাহিনী তৎকালীন পূর্ববঙ্গের সহজ সরল মানুষের ওপর রাতের আঁধারে হামলে পড়ে। তারা নির্বিচারে হত্যা-ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট চালাতে থাকে। দলে দলে বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে হত্যা করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষক-বুদ্ধিজীবীকে হত্যার পাশাপাশি মেয়ের শিক্ষার্থীদের আবাসিকে হামলা চালিয়ে তাদের ধর্ষণ করে। সারা বাংলায় এক ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে পাক সেনারা। সে সময় কাতারে কাতারে মানুষ ভারতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে ন’ মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে লাল-সবুজে খচিত স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা অর্জিত হয়।

ছিটমহলের বিলুপ্তি ঘটাতে ১৯৭৪ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গে চুক্তি সই করেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশের সৃষ্টি হয়েছে এবং শেখ হাসিনার হাত ধরে ছিটমহল সমস্যার সমাধান হয়েছে। এরই মধ্য দিয়ে ৬৮ বছরের রুদ্ধ জীবনের অবসান ঘটেছে। বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এই যুগান্তকারী পদক্ষেপ এক নয়া ইতিহাস, যা কোনো দিন বাংলার মানুষ ভুলবে না।

মুক্ত ছিটমহলের পাঁচ বছর পূর্ণ

শুধুমাত্র বাংলাদেশ-ভারতেই নয়, ২০১৫ সালের পয়লা আগস্ট ইতিহাস সৃষ্টি হল গোটা দুনিয়ায়। ৬৮টি বছর পর বন্দিদশার অবসান ঘটে ছিটমহলবাসীর। এর সঙ্গে অবসান ঘটে পাকিস্তান-ভারত সীমানা নির্ধারণের অসহনীয় পরিস্থিতির। এই কাঙ্ক্ষিত দিনটির জন্য এলাকার সাধারণ মানুষ শেখ হাসিনার জন্য বিশেষ প্রার্থনা করেন। আর বুদ্ধিজীবীরা মনে করেন, ছিটমহলের বিলুপ্তি বর্তমান সরকার প্রধান শেখ হাসিনার ঐতিহাসিক কূটনৈতিক বিজয়।

ছিটমহল সমস্যার সমাধানের পরই সেখানে উন্নয়নের কাজে হাত লাগান শেখ হাসিনা। রাস্তাঘাট, চিকিৎসা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল অর্থাৎ মানুষের প্রয়োজনে যা দরকার তার কিছুরই কমতি নেই সেখানে। এ কয়েক বছরেই পালটে গেছে অবহেলিত ছিটমহলের চিত্র।

ছিটমহলের পরিসংখ্যান

পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ভারতের ছিটমহলে বসবাসরত লোকসংখ্যা ছিল ৩৭ হাজার এবং ভারতের অভ্যন্তরে বাংলাদেশের ছিটমহলের লোকসংখ্যা ছিল ১৪ হাজার। ২৪ হাজার ২৬৮ একর ভূমি নিয়ে দুই দেশের ছিটমহল ছিল। তার মধ্যে ভারতের জমির পরিমাণ ছিল ১৭ হাজার ১৫৮ একর এবং বাংলাদেশের ছিটমহলের জমির পরিমাণ ছিল ৭ হাজার ১১০ একর। ভারতীয় ছিটমহলগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের লালমনিরহাটে ৫৯টি, পঞ্চগড়ে ৩৬টি, কুড়িগ্রামে ১২টি ও নীলফামারিতে ৪টি। বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলের মধ্যে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহারে ছিল ৪৭টি ও জলপাইগুড়ি জেলায় ৪টি।

Continue Reading

বাংলাদেশ

করোনা আর বন্যার মধ্যেই বাংলাদেশে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল আযহা

পবিত্র ঈদুল আযহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে সবাইকে বৈষম্যহীন, সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

ঋদি হক: ঢাকা

করোনা (coronavirus) ও বন্যাকে সঙ্গী করেই ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় নিয়ে বাংলাদেশে (Bangladesh) উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল আযহা (Eid ul Azha)।

বানের জলে ভেসে গেছে ঈদের আনন্দ। অনেকে পশু কোরবানি দিতে পারেননি। বসার মতো শুকনো জায়গাটুকু যেখানে অবশিষ্ট নেই, সেখানে কোরবানির চিন্তা করাটাই ভুল। রাজধানী ঢাকায় (Dhaka) প্রধান জমায়েতটি অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে (Baitul Mukarram)। এখানে সকাল সাতটায় প্রধান জমায়েত হয়। এর পর এক ঘণ্টা পর পর বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাঁচটি জমায়েত অনুষ্ঠিত হয়।

করোনা মহামারি ও বিস্তীর্ণ এলাকায় বানের জলকে সঙ্গী করে এসেছে এ বারের কোরবানির ঈদ। এই দুর্যোগের দিনে বন্যার্ত মানুষের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

শেখ হাসিনার আহ্বান

অসহায় মানুষ যাতে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হন, সে দিকে সকলকে খেয়াল রাখার আহ্বান জানিয়ে ঈদের সকালে এক ভিডিও-বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina)। পবিত্র ঈদুল আযহার মর্মবাণী অন্তরে ধারণ করে সবাইকে বৈষম্যহীন, সুখী, সমৃদ্ধ ও শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ গড়ে তোলারও আহ্বান জানান শেখ হাসিনা। 

অপর দিকে আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পবিত্র ঈদুল আযহার ত্যাগের শক্তি হবে জনগণের জীবনযুদ্ধে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রবল প্রত্যয়। ঈদের দিন সংসদ ভবন এলাকায় তার সরকারি বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। এ সময় তিনি দেশবাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানান।

বাংলাদেশের করোনা-তথ্য

অপর দিকে বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। শনিবার একদিনে ২১ জন মারা গেছেন। এপর্যন্ত মারা গেছেন ৩১৩২ জন। মোট শনাক্তর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৩৯ হাজার ৮০৭ জন।

Continue Reading
Advertisement
বিনোদন9 mins ago

জর্জ টেলিগ্রাফ ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইনস্টিটিউট-এর সূচনা, মেন্টরের দায়িত্বে পরিচালক সৃজিৎ মুখোপাধ্যায়

রাজ্য2 hours ago

রেকর্ড সংখ্যক টেস্ট, মৃত্যুর সংখ্যাতেও রেকর্ড, তবে রাজ্যে সুস্থতার হার ছুঁল ৭০ শতাংশ

রাজ্য3 hours ago

সিপিএম নেতা মোহাম্মদ সেলিম কোভিড পজিটিভ, হাসপাতালে ভরতি

রাজ্য4 hours ago

লকডাউনের সূচি ফের বদলাল রাজ্যে

দেশ5 hours ago

বুধবার থেকে খুলছে জিম, স্বাস্থ্য মন্ত্রকের নির্দেশিকা প্রকাশিত

দেশ6 hours ago

আত্মতুষ্টির ফল ভুগছি: পিনারাই বিজয়ন

বিদেশ6 hours ago

সেপ্টেম্বরের মধ্যেই টিকটক কিনতে পারে মাইক্রোসফট

দেশ6 hours ago

‘ভগবান রামের ইচ্ছে’, ভূমিপুজোর আমন্ত্রণ গ্রহণ করলেন অযোধ্যার অন্যতম মামলাকারী ইকবাল আনসারি

রবিবারের খবর অনলাইন

কেনাকাটা

things things
কেনাকাটা3 days ago

করোনা আতঙ্ক? ঘরে বাইরে এই ১০টি জিনিস আপনাকে সুবিধে দেবেই দেবে

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে ঘরে এবং বাইরে নানাবিধ সাবধানতা অবলম্বন করতেই হচ্ছে। আগামী বেশ কয়েক মাস এই নিয়মই অব্যাহত...

কেনাকাটা6 days ago

মশার জ্বালায় জেরবার? এই ১৪টি যন্ত্র রুখে দিতে পারে মশাকে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: একে করোনা তায় আবার ডেঙ্গুর প্রকোপ শুরু হয়েছে। এই সময় প্রতি বারই মশার উৎপাত খুবই বাড়ে। এই বারেও...

rakhi rakhi
কেনাকাটা2 weeks ago

লকডাউন! রাখির দারুণ এই উপহারগুলি কিন্তু বাড়ি বসেই কিনতে পারেন

সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে মনের মতো উপহার কেনা একটা বড়ো ঝক্কি। কিন্তু সেই সমস্যা সমাধান করতে পারে অ্যামাজন। অ্যামাজনের...

কেনাকাটা2 weeks ago

অনলাইনে পড়াশুনা চলছে? ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ৪০ হাজার টাকার নীচে ৬টি ল্যাপটপ

ইনটেল প্রসেসর সহ কোন ল্যাপটপ আপনার অনলাইন পড়াশুনার কাজে লাগবে জেনে নিন।

কেনাকাটা2 weeks ago

করোনা-কালে ঘরে রাখতে পারেন ডিজিটাল অক্সিমিটার, এই ১০টির মধ্যে থেকে একটি বেছে নিতে পারেন

শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা বুঝতে সাহায্য করে এই অক্সিমিটার।

কেনাকাটা3 weeks ago

লকডাউনে সামনেই রাখি, কোথা থেকে কিনবেন? অ্যামাজন দিচ্ছে দারুণ গিফট কম্বো অফার

খবরঅনলাইন ডেস্ক : সামনেই রাখি। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে দোকানে গিয়ে রাখি, উপহার কেনা খুবই সমস্যার কথা। কিন্তু তা হলে উপায়...

laptop laptop
কেনাকাটা3 weeks ago

ল্যাপটপ কিনবেন? দেখে নিন ২৫ হাজার টাকার মধ্যে এই ৫টি ল্যাপটপ

খবরঅনলাইন ডেস্ক : কোভিভ ১৯ অতিমারির প্রকোপে বিশ্ব জুড়ে চলছে লকডাউন ও ওয়ার্ক ফ্রম হোম। অনেকেই অফিস থেকে ল্যাপটপ পেয়েছেন।...

কেনাকাটা3 weeks ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা4 weeks ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা4 weeks ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

নজরে

Click To Expand