টিকা এখন দর কষাকষির বড়ো অস্ত্র হয়ে উঠেছে, বললেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী

0
বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী

ঋদি হক: ঢাকা

টিকা (Covid vaccine) এখন দর কষাকষির বড় অস্ত্র হয়ে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী (Bangladesh foreign minister) ড. এ কে আব্দুল মোমেন (Dr. A K Abdul Momen)। টিকার দেওয়ার নামে সবাই মুলা দেখাচ্ছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

Loading videos...

ড. মোমেন এ-ও বলেন, বড়ো বড়ো পণ্ডিতরা টিকার বিষয়ে কত কী বলছেন। জি-৭ দেশগুলো কিছু দিন আগে বৈঠক করে বলেছে তারা ১০০ কোটি ডোজ টিকা দরিদ্র দেশগুলোকে দেবে। এই নিয়ে শুধু গল্পই শুনছি। কিন্তু দেওয়ার জন্য কেউ আগ্রহ দেখাচ্ছে না।

মঙ্গলবার বিদেশমন্ত্রকে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন ড. মোমেন। এ সময় তিনি অনেকটা ক্ষোভের সঙ্গেই সাংবাদিক, সাহিত্যিক, গায়ক, ব্যবসায়ী, সবাইকেই টিকার ব্যবসায়ী বলে মন্তব্য করতে ছাড়েননি। ড. মোমেন বলেন, “সবাই আমাদের কাছে বিক্রি করার জন্য আসছে। আমেরিকার অনেক ব্যক্তিবিশেষ আমাদের জানিয়েছেন, অমুক লোক অনেক টিকা দিতে পারবেন। তাঁরা রাশিয়ান টিকার ডিলারশিপ পেয়েছেন, কিন্তু রাশিয়া সরকার আমাদের জানিয়েছে তাদের কোনো ডিলারই নাই।”

কী ভাবে টিকা সংকটের সমাধান

তা হলে কী ভাবে বাংলাদেশের টিকা সংকটের সমাধান হবে? এ বিষয়ে বিদেশমন্ত্রী বলেন, যখন নিজেরা টিকা তৈরি করব, তখন সব সমস্যার সমাধান হবে। তিনি বলেন, ধনী দেশগুলো টিকা নিয়ে বসে রয়েছে। তাদের যত জনসংখ্যা, তার থেকে তাদের কাছে টিকা বেশি রয়েছে। টিকা এখন দর কষাকষির অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে। অনেকে বলে টিকা দেব কিন্তু কেউ দেয় না। আবার দেওয়ার সময় জিজ্ঞাসা করে যে অমুক বিষয়ে আমাকে সমর্থন দেবেন কিনা। এখন দেখা যাচ্ছে, এটিকে একটি অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

ড, মোমেন বলেন, তবে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে অন্য ভ্যাকসিনের পাশাপাশি অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার (Oxford-AstraZeneca) ভ্যাকসিনও সরবরাহ করবে। যুক্তরাষ্ট্রের কাছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন আগেই চেয়েছি। আমরা আশাবাদী তারা আমাদের এই ভ্যাকসিন দেবে।

তিনি বলেন, উন্নত দেশগুলো প্রয়োজনের বেশি ভ্যাকসিন নিয়ে বসে আছে। সেজন্য তাদের বলেছি যে, বাড়তি ভ্যাকসিন নষ্ট না করে আমাদের দিয়ে সহযোগিতা করতে।

আরও পড়ুন: স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অনুমতিক্রমে ভারতে যেতে পারবেন বাংলাদেশিরা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.